Mamata Banerjee: ‘প্রমাণ ছাড়া আমি বলি না’, কার্তিক মহারাজকে আরও বড় প্রশ্নের মুখে দাঁড় করালেন মমতা

Mamata Banerjee: কার্তিক মহারাজের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক যোগের অভিযোগ তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। TV9 বাংলার একান্ত সাক্ষাৎকারে কার্তিক মহারাজ বলেছেন, 'আমি কোথায় বলেছি কথা, সেটা প্রমাণ দিতে হবে। যদি প্রমাণ হয়, শাস্তি মাথা পেতে নেব।'

Follow Us:
| Edited By: | Updated on: May 20, 2024 | 4:00 PM

বাঁকুড়া: তৃণমূলের এজেন্টকে বুথে বসতে না দেওয়ার অভিযোগ। কার্তিক মহারাজকে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিতর্কিত মন্তব্যে তপ্ত বঙ্গ। ইতিমধ্যে তাঁকে আইনি নোটিস পাঠিয়েছেন ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের বেলডাঙা শাখার প্রধান কার্তিক মহারাজ। TV9 বাংলার এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, সাধু সন্তদের নিয়ে এহেন মন্তব্য করার অবিলম্বে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ক্ষমা চাইতে হবে। তা না হলে আইনি মামলার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি এটাও বলেছেন, যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমাণ করতে পারেন,  তাহলে তিনি শাস্তি মাথা পেতে নেবে। এবার বাঁকুড়ার সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, ‘এভিডেন্স ছাড়া আমি কথা বলি না।’ কোথায় কখন একথা কার্তিক মহারাজ বলেছেন, তার ব্যাখ্যাও দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সময়-স্থানকাল উল্লেখ করেই ব্যাখ্যা দিলেন।

কার্তিক মহারাজের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক যোগের অভিযোগ তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। TV9 বাংলার একান্ত সাক্ষাৎকারে কার্তিক মহারাজ বলেছেন, ‘আমি কোথায় বলেছি কথা, সেটা প্রমাণ দিতে হবে। যদি প্রমাণ হয়, শাস্তি মাথা পেতে নেব।’

বাঁকুড়ার সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী বললেন, “মুর্শিদাবাদের রেজিনগরের ওঁর আশ্রম। আশ্রম করুন, আপত্তি নেই। কিন্তু ওখানে বুথে আমাদের এজেন্ট ছিল না। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, ওখানে আমাদের এজেন্ট নেই কেন? আমার লোক বলল, কার্তিক মহারাজ বসতে দেননি। কার্তিক মহারাজ বলেছেন, ‘তৃণমূলের লোককে বসতে দেব না।”

মমতা আরও বলেন, “ওখান কিছু লোককে ক্ষেপিয়েছে, যাঁরা ছানার ব্যবসায়ী। ছানা তৈরি করে বিক্রি করে। খবর আমিও রাখি।  এলাকায় এলাকায় গিয়ে ধর্মের নামে বিজেপির প্রচার করে বেরান। আমি বলছি, আপনি করুন। কিন্তু বিজেপির চিহ্নটা বুকে লাগিয়ে করুন। ধর্মের নামে কেন, লুকিয়ে লুকিয়ে কেন? আমি যেটা বলি, প্রমাণ ছাড়া বলি না।”

তবে এদিনও মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট করে বলেন, “সাগরে ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের অফিস রয়েছে। আশ্রম রয়েছে। ওরা এতো ভালো, ওরা সত্যি আমাকে ভালোবাসে। আমি সবার কথা বলছি না। আমি একটি লোকের নাম করে বলেছি, তিনি কার্তিক মহারাজ। তিনি আমাদের এজেন্ট বসতে দেননি। ভোটের দুদিন আগে।”