‘মুকুলিত’ ঘাসফুল, ‘ওঁ তুখোড় নেতা’, মন্তব্য রাজু বিস্তার, ‘বেদনাক্রান্ত’ অগ্নিমিত্রা

ঘাসফুলে প্রত্য়াবর্তন প্রসঙ্গে সরব বঙ্গ বিজেপি। একদিকে, বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তা বললেন, 'ওঁ তুখোড় রাজনীতিবিদ', তো অন্যদিকে, 'বেদনাক্রান্ত' অগ্নিমিত্রা।

'মুকুলিত' ঘাসফুল, 'ওঁ তুখোড় নেতা', মন্তব্য রাজু বিস্তার, 'বেদনাক্রান্ত' অগ্নিমিত্রা
নিজস্ব চিত্র

দার্জিলিং: চারবছর পর নিজের ‘পুরনো’ ঘরে ফিরলেন মুকুল রায়। বিজেপির সর্বভারতীয়-সহ সভাপতির পদ ছেড়ে এখন সপুত্র তৃণমূলের সদস্য তিনি। বিধায়ক পদ থেকেও ইস্তফা দিয়েছেন মুকুল। ঘাসফুলে প্রত্য়াবর্তন প্রসঙ্গে সরব বঙ্গ বিজেপি। একদিকে, বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তা বললেন, ‘ওঁ তুখোড় রাজনীতিবিদ’, তো অন্যদিকে, ‘বেদনাক্রান্ত’ অগ্নিমিত্রা।

মুকুল রায়ের দলত্যাগ প্রসঙ্গে দার্জিলিঙের বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তা বলেন, “মুকুলবাবু তুখোড় নেতা। ওঁ যা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা আশা করি ভেবেচিন্তে নিয়েছেন। গণতন্ত্রের সুবিধা এই যে সকলেই তাঁর নিজস্ব মতামত রাখতে পারেন। আশা করি, মুকুলবাবুও তৃণমূলে গিয়েছেন ভাবনা চিন্তা করেই। বাংলায় যদিও গণতন্ত্রের স্থান নেই। তবে, ভারতীয় জনতা পার্টি গণতন্ত্রের পক্ষে। তাই মুকুলবাবুর সিদ্ধান্তকে দল সম্মান জানায়। দলবদল তাঁর সম্পূর্ণই ব্যক্তিগত।”

অন্যদিকে, আসানসোল দক্ষিণের বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা পাল জানিয়েছেন তিনি বেদনাতুর। মুকুল রায়ের সিদ্ধান্ত তাঁর পক্ষে মানা কঠিন। এদিন, অগ্নিমিত্রা বলেন, “মুকুলদা কোন মতাদর্শের দোহাই দিয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে এলেন, ফের বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে গেলেন! আমি জানিনা। জানা নেই। অবাক হয়েছি খুব। তার চেয়েও বেশি অবাক হলাম, যখন শুনলাম, মুখ্য়মন্ত্রী মুকুলদার হয়ে দাবী করছেন এজেন্সির ভয়ে উনি নাকি বিজেপিতে গিয়েছিলেন। বিজেপির হয়ে ভোট জেতার পর তৃণমূলে যাওয়াটা কৃষ্ণনগরের মানুষের প্রতি অন্যায় হল। দলের কর্মীদের সঙ্গে প্রতারণা করা হল। আমি মুকুলদার হাত ধরেই বিজেপিতে এসেছিলাম। আমিও জানতাম না তাঁর এই সিদ্ধান্তের কথা। ভীষণ কষ্ট হচ্ছে। অত্যন্ত বেদনাদায়ক এই ঘটনা।”
উল্লেখ্য, ২০১৯- লোকসভা নির্বাচনের আগে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন অগ্নিমিত্রা। পরে, ২০২১- বিধানসভা নির্বাচনে তিনি আসানসোল দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির তরফে বিধায়ক নির্বাচিত হন।

আরও পড়ুন: ‘জল্পনা কল্পনায় কান দেওয়ার সময় নেই, কর্মীদের সুরক্ষা নিয়ে চিন্তিত’, ‘ফুলবদল’ মুকুলের, মন্তব্য দিলীপের