গাড়ির ডিকিতে ভরা বোনপো-বোনঝির মৃতদেহ, ১ বছর ধরেই গাড়ি চালাচ্ছিলেন মাসি!

জেরায় ওই মহিলা জানান, ওই বাচ্চা দুটি তাঁর বোনের ছেলেমেয়ে। ২০১৯ সালে তাঁদের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল নিকোলের উপর। প্রায়সই ওই দুটি শিশুর গায়ে হাত তুলতেন তিনি।

গাড়ির ডিকিতে ভরা বোনপো-বোনঝির মৃতদেহ, ১ বছর ধরেই গাড়ি চালাচ্ছিলেন মাসি!
প্রতীকী চিত্র।

ওয়াশিংটন: প্রতিদিনের মতোই হাইওয়েতে চলছিল রুটিন তল্লাশি। কাগজপত্র ঠিক না থাকায় আটক করা হয় একটি গাড়িকে। তবে মহিলার কথাবার্তা সন্দেহজনক মনে হোয়ায় পুলিশ গাড়িতে তল্লাশি চালানোর সিদ্ধান্ত। ভাবা হয়েছিল, মদ বা নেশার কোনও বস্তু মিলতে পারে, কিন্তু ডিকি খুলে যা চোখে পড়ল, তাতে আঁতকে উঠলেন পুলিশকর্মীরাও।

বৃহস্পতিবার আমেরিকার বাল্টিমোরে নিকোল জনসন (৩৩) নামক এক মহিলাকে গাড়ির বৈধ কাগজপত্র না থাকায় আটক করে পুলিশ। গাড়ির তল্লাশি চালাতেই পিছনের অংশে দেখা যায় একটি সুটকেস ও কালো প্লাস্টিকে জড়ানো কিছু রাখা হয়েছে। ব্যাগ খুলতেই ভিতর থেকে উদ্ধার হয় একটি বাচ্চার কঙ্কাল, পাশের কালো প্লাস্টিক থেকেও একটি বাচ্চার পচাগলা দেহ উদ্ধার করা হয়। জেরায় জানা গিয়েছে ওই মৃতদেহ দুটি মহিলার বোনপো ও বোনঝির।  মেয়েটির বয়স ছিল ৭ বছর ও ছেলেটির ৫ বছর।

জেরায় ওই মহিলা জানান, তিনি পেশাগতভাবে মোটরসাইকেল চালান। ওই বাচ্চা দুটি তাঁর বোনের ছেলেমেয়ে। ২০১৯ সালে তাঁদের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল নিকোলের উপর। প্রায়সই ওই দুটি শিশুর গায়ে হাত তুলতেন তিনি। গত বছর মে মাসেই তিনি বোনঝিকে মারেন, সঙ্গে সঙ্গে মেয়েটি মেঝেতে পড়ে যায় এবং মাথা ঠুকে গিয়ে মৃত্য়ু হয়। এরপরই তিনি একটি সুটকেসে দেহটি ভরে গাড়ির ডিকিতে রেখে দিয়েছিলেন। সম্প্রতিই তিনি পাঁচ বছরের বোনপোকেও মেরে ফেলেন। তাঁর দেহ কালো প্লাস্টিকে মুড়িয়ে ওই সুটকেসের পাশেই রেখে দেন। দুটি দেহ নিয়ে তিনি এভাবেই তিনি গাড়ি চালাচ্ছিলেন, কেউ কিছুই টের পাননি।

স্থানীয় সংবাদপত্রের দাবি, ওই মহিলাকে পুলিশ আটক করলে তিনি বলেন, “আমায় পাঁচদিনও আটকে রাখতে পারবে না। কয়েকদিনের মধ্যেই খবরের শিরোনামে থাকব আমি।” জেরায় বোনঝিকে হত্যা করার বিষয়টি স্বীকার করে নিলেও কীভাবে তাঁর বোনপোকেও হত্যা করেছেন, তা কিছুতেই জানাননি অভিযুক্ত মহিলা। আরও পড়ুন: বছর ঘুরতেই লকডাউন একের পর এক শহরে, ডেল্টার দাপটে ফের কি পুরনো হালই হবে চিনের?

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla