“আমি প্রতারিত,” নুসরতের পাল্টা বিবৃতিতে বললেন নিখিল জৈন; ‘স্বামী-স্ত্রীর মতো একসঙ্গে থাকতেন’ তাঁরা

"একজন বিশ্বস্ত স্বামী হিসেবে নিজের দায়িত্ব পালন করেছি," বিবৃতিতে দাবি নিখিলের। কিন্তু ২০২০ অগাস্ট মাসের এক শুটিংয়ের পর থেকে নিখিলের বৈবাহিক জীবনে পরিবর্তন আসে। কারণ?

  • Updated On - 8:54 pm, Thu, 10 June 21 Edited By: amartya mukhopadhaya
"আমি প্রতারিত," নুসরতের পাল্টা বিবৃতিতে বললেন নিখিল জৈন; 'স্বামী-স্ত্রীর মতো একসঙ্গে থাকতেন' তাঁরা
নিখিল-নুসরত।

তাঁর সঙ্গে ‘প্রতারণা’ করা হয়েছে। নুসরত জাহানের নাম উল্লেখ না-করে জন-প্রতিনিধি তথা অভিনেত্রীর ঘোরাফেরার খবর সংবাদমাধ্যমে জানতে পেরে তিনি ভেঙে পড়েছেন। তাঁরা ‘স্বামী-স্ত্রীর মতো একসঙ্গে থাকতেন’ এবং তাঁরা ‘সমাজেও বিবাহিত হিসেবে পরিচিত’। বুধবার সংবাদমাধ্যমের কাছে যে বিবৃতি দিয়েছিলেন নুসরত জাহান, বৃহস্পতিবার সেই বিবৃতির পাল্টা বিবৃতি দিয়ে এমনটাই দাবি করলেন নিখিল জৈন।

তুরস্কের বিবাহবিধি অনুযায়ী নুসরত-নিখিলের ‘বিয়ে’র যে সামাজিক আয়োজন হয়েছিল, তাকে পরবর্তীতে স্পেশ্যাল ম্যারেজ অ্যাক্ট-এর ধারায় বিবাহ হিসেবে বৈধতা দেওয়া হল না কেন? নুসরতের বুধবারের বিবৃতির পর বারবার উঠেছে এই প্রশ্ন। নুসরত তাঁর বিবৃতিতে দাবি করেছেন, আইনগতভাবে নিখিলের সঙ্গে বৈবাহিক বন্ধনে আবদ্ধ হননি তিনি। নিখিল তাঁর ‘লিভ-ইন পার্টনার’ ছিলেন। নুসরতের এই বক্তব্যকে ঘিরে তুলকালাম রাজনৈতিক ময়দান থেকে টলিউড।

 

আরও পড়ুন সাংসদ নুসরতের শপথবাক্য পাঠের ভিডিয়ো টুইট মালব্যর, কুণাল বললেন ‘তর্ক শুরু হলে বিজেপির পক্ষে ভাল হবে না’

 

জন-প্রতিনিধি হিসেবে কি মিথ্যাচার করেছেন নুসরত? প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে। নুসরতের বিবৃতির পর পাল্টা মুখ খুলে সেই বিতর্কই কার্যত উস্কে দিয়েছেন নিখিল। বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া বিবৃতিতে নিখিল দাবি করেছেন, “রেজিস্ট্রি বিয়ের কথা বারবার বলা সত্বেও নুসরত এড়িয়ে গিয়েছেন।” এখানেই থামেননি নিখিল। একের পর এক অভিযোগের তির ছুঁড়েছেন অভিনেত্রীর দিকে।

নিখিল বিবৃতিতে দাবি করেছেন, “আমরা স্বামী-স্ত্রীর মতো একসঙ্গে থাকতাম। এবং সমাজেও বিবাহিত হিসেবে আমরা পরিচিত। একজন বিশ্বস্ত স্বামী হিসেবে নিজের দায়িত্ব পালন করেছি। কিন্তু ২০২০ অগাস্ট মাসের এক শুটিংয়ের পর থেকে তাঁর বৈবাহিক জীবনে পরিবর্তন আসে। এবং তার কারণ তিনিই জানেন।”

নুসরত তাঁর বুধবারের বিবৃতিতে দাবি করেছিলেন, নিখিল তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা নিয়েছেন। বিবৃতিতে নুসরতের অভিযোগ ছিল, “আমি তাঁকে ব্যবহার করেছি বলে যিনি অভিযোগ করছেন, তিনি আমার ব্যঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা নিয়েছেন। আলাদা থাকতে শুরু করার পরেও। আমি ইতিমধ্যেই ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষকে বিষয়টা জানিয়েছি। খুব তাড়াতাড়ি পুলিশেও অভিযোগ দায়ের করব।”

 

আরও পড়ুন নিখিলের সঙ্গে বিয়ে নুসরত অস্বীকার করার পরই বিশেষ বার্তা দিলেন যশ!

 

বৃহস্পতিবার নিখিলের পাল্টা দাবি, বালিগঞ্জের ফ্ল্যাটের ঋণ বাবদ তাঁর এবং তাঁর পরিবারের কাছে থেকে টাকা নেন নুসরত। নিখিলের দাবি, ফ্ল্যাট কেনার পর সুদ-বাবদ যে টাকা নুসরতকে দিতে হয়েছিল, তার কিছুটা অংশ দিয়েছিলেন নিখিলের পরিবার। জৈন পরিবারের অ্যাকাউন্ট থেকে তা গিয়েছিল নুসরতের অ্যাকাউন্টে।  সেই টাকাই নুসরতের অ্যাকাউন্ট থেকে জৈন পরিবারের অ্যাকাউন্টে ফেরতস্বরূপ জমা পড়ছে। বিশ্বাস করে যে টাকা নিখিলের পরিবার দিচ্ছিল, তার বেশিরভাগ এখনও ফেরত পাননি নিখিল। বিবৃতিতে তিনি আরও দাবি করেন, ব্যাঙ্ক স্টেটমেন্ট এবং ক্রেডিট কার্ড স্টেটমেন্ট-এর প্রমাণ হিসেবে যথেষ্ট। নিখিল বিবৃতিতে দাবি করেন, এই ধরণের অভিযোগ ভিত্তিহীন, অবমাননাকর, অসত্য।

নিখিল বিবৃতিতে দাবি করেছেন, যে সংবাদমাধ্যমে তাঁর ঘোরাফেরার খবর জানতে পেরে তিনি ভেঙে পড়েন এবং তাঁর মনে হয় যে তাঁর সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। শেষমেষ গত ৮ মার্চ আলিপুর আদালতে বিয়ে বাতিলের জন্য সিভিল স্যুট দায়ের করা হয় নিখিলের তরফে।

আরও পড়ুন ‘বিয়ে নয়, লিভ-ইনে ছিলাম’, নুসরতের বিস্ফোরক মন্তব্যের পাল্টা মুখ খুললেন নিখিলও

 

নুসরতের বুধবারের বিবৃতিতে ‘তুরস্কের বিবাহ বিধি’ এবং ‘লিভ-ইন’ সম্পর্কের যে উল্লেখ রয়েছে, তাকে কেন্দ্র করে প্রশ্ন উঠেছে, জন-প্রতিনিধি হিসেবে লোকসভার বায়োপ্রোফাইলে তাহলে ‘বিবাহিত’ এবং স্বামীর নামের জায়গায় নিখিল জৈনের উল্লেখ করলেন কেন? আরও প্রশ্ন, ঠিকানাতেও নিখিলের আলিপুরের ফ্ল্যাটের উল্লেখ রয়েছে কেন? সংসদ ভবনে ‘আমি নুসরত জাহান রুহি জৈন’ বলে সাংসদ হিসাবে নুসরত জাহানের শপথবাক্য পাঠের যে মুহূর্তের ভিডিয়ো টুইটে শেয়ার করেছেন বিজেপির অমিত মালব্য, তার জেরে আরও একবার প্রশ্নই জোরালো হয়ে উঠেছে: জন-প্রতিনিধি হিসেবে নুসরত তাঁর ম্যারিটাল স্টেটাস সম্পর্কে যে তথ্য পেশ করেছেন, তা আদৌ নীতিগত বলে বিবেচিত হতে পারে কি না।