Anti-aging: এই পাঁচ খাবার রাখুন রোজকার ডায়েটে! মুখে পড়বে না বয়সের ছাপ…

Food: জোর করে বয়স আটকে রাখা যায় না। বরং জীবনযাত্রায় কিছু পরিবর্তন আনলে বেশিদিন সুস্থ থাকবেন। সেই সঙ্গে নিয়ম মেনে খাওয়া-দাওয়া করুন। পর্যাপ্ত ঘুমও জরুরি

Anti-aging: এই পাঁচ খাবার রাখুন রোজকার ডায়েটে! মুখে পড়বে না বয়সের ছাপ...
ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে রাখুন খাদ্য তালিকায়

বয়স বাড়লে তার ছাপ চোখে-মুখে পড়বেই। কোনও ভাবে তাকে রুখে দেওয়া যায় না। বয়স হচ্ছে, এই সত্য আমাদের মেনে নিতেই হবে। কিন্তু বয়স বাড়লেও কী ভাবে সুস্থ থাকা যাবে, কীভাবেই বা ধরে রাখা যাবে রূপ-লাবণ্য এসবের জন্য ডায়েটে জোর দিতেই হবে। জীবনযাত্রা নিয়ন্ত্রিত হলে এবং সেই সঙ্গে ঠিকঠাক ডায়েট মেনে চলতে পারলে তবেই শরীর থাকবে সুস্থ। সঠিক ডায়েটের অর্থ কম খাওয়া নয়।

কিংবা ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট একেবারেই ছেঁটে ফেলা নয়। সঠিক সময়ে, সঠিক পরিমাণ খাবার খেতে হবে। এছাড়াও বয়স ৪০ পেরোলেই নিয়মিত বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া উচিত। ৫০ পেরোলে কেমন হবে আপনার ডায়েট, এ বিষয়ে পরামর্শ দিলেন পুষ্টিবিদরা। দেখে নিন তাঁরা কী কী রাখতে বলছেন ডায়েটে-

ব্লুবেরি

বাজার কিংবা ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে এখন পাওয়া যায় ব্লু বেরি। এছাড়াও জাম এবং ব্লু বেরির ভূমিকা খানিকটা একইরকম। ব্লুবেরি আমাদের কোশকে সযত্নে রক্ষা করে। সেই সঙ্গে বয়স নিয়ন্ত্রণেও ভূমিকা রয়েছে ব্লু বেরির। বেশ কিছু সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে ব্লু বেরি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর। সেই সঙ্গে রয়েছে ভিটামিন সি। যা আমাদের এজিং প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে দেয়।

বাদাম

বয়স ৫০ হলে প্রতিদিন বিভিন্ন রকম বাদাম অবশ্যই রাখুন খাদ্যতালিকায়। বিশেষ আমন্ড, আখরোট এসব রাখতেই হবে। বাদামের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা আমাদের হার্টকে ভাল রাখে। এছাড়াও থাকে প্রয়োজনীয় মিনারেলস। এছাড়াও বাদাম কিন্তু হৃদরোগের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়। মেটাবলিক রেট বাড়ায়। ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

অ্যাভোকাডো

অ্যাভোকাডোর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি, সি, ফোলেট, ম্যাগনেসিয়াম, লুটেইন, বিটা ক্যারোটিন। এছাড়াও এর মধ্যে থাকে মনোআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট। থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা ত্বককে ভেতর থেকে রাখে তরতাজা।

সবজি শাকসবজি

সব বয়সের সব মানুষের জন্যই সবুজ শাকসবজির প্রয়োজন। প্রতিদিন সবজি খেতেই হবে। বিভিন্ন রকম শাক, ডাল আমাদের দেহে প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করে। এছাড়াও সবজির মধ্যে থাকে গুরুত্বপূর্ণ খনিজ, ভিটামিন। যা আমাদের স্ট্রেস কমায়। মনে করে অবশ্যই কিন্তু ডায়েটে রাখবেন টমেটো।

ওটস

এই বয়সে হাড় মজবুত রাখা জরুরি। আর তাই প্রতিদিন যে ভাবেই হোক এক বাটি টকদই খেতে হবে। রায়তা খেতে পারেন। কিংবা ওটসের সঙ্গেও খেতে পারেন। ওটস আর দইএর সঙ্গে অবশ্যই মিশিয়ে নিন ড্রাই ফ্রুটস। এছাড়াও মিশিয়ে নিতে পারেন চিয়া সিডস।

ব্রকোলি

ব্রকোলির মধ্যে রয়েছে ক্যালশিয়াম, ভিটামিন এ, সি, কে । রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার। যে কারণে ব্রকোলিকে সবজির শক্তিঘর বলা হয়। এছাড়াও ব্রকোলি কিন্তু ক্যানসার প্রতিরোধেও সাহায্য করে। ব্রকোলির মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হাড়ের শক্তি বাড়ায়। মেটাবলিজম ঠিক রাখে। এছাড়াও ব্রকোলিতে ক্যালোরি খুব কম। এসব কারণের জন্যই পুরো শীতকাল ডায়েটে অবশ্যই রাখুন ব্রকোলি।

আরও পড়ুন: Immunity tea: ইমিউনিটি বাড়াতে সাহায্য করে দারুচিনি-মধুর চা! যে ভাবে বানাবেন বাড়িতে

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla