টিকিট পাওয়ার পরের দিনই রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা বিজেপি প্রার্থীর

টিকিট না পেয়ে দল ছেড়েছেন, এমন ঘটনা বাংলা ছাড়াও একাধিক রাজ্যে ঘটেছে। এবার প্রার্থী (Candidate) হয়েও ছাড়লেন দল।

টিকিট পাওয়ার পরের দিনই রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা বিজেপি প্রার্থীর
প্রতীকী ছবি

তিরুঅনন্তপুরম: ভোট যত এগিয়ে আসছে, ততই রাজনীতিতে (politics) সামনে আসছে নিত্য নতুন ঘটনা। বাংলা ছাড়া অন্যান্য় রাজ্যে টিকিট না পেয়ে প্রার্থীদের দল ছাড়ার ঘটনা সামনে এসেছে। এবার টিকিট পাওয়ার পরই রাজনীতি ত্যাগ করার ঘটনা ঘটল কেরলে। বিজেপি প্রার্থী (BJP Candidate) তালিকা প্রকাশ করার পরই দল তথা রাজনীতি ছাড়ার কথা জানান ওই প্রার্থী।

বাম শাসিত এই রাজ্যে বিজেপির বিধায়ক মাত্র এক। সেখানে মানানথায়াডি কেন্দ্র থেকে ৩১ বছর বয়সী মনিকুত্তন নামে এক ব্যক্তিকে প্রার্থী করা হয়। পানিয়া উপজাতির একমাত্র ব্যক্তি যার এমবিএ ডিগ্রি আছে। রবিবার প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করার সময়ই একথা জানায় বিজেপি। ঘোষণার পরই তিনি জানিয়ে দেন, তিনি এই ভোটে লড়তে রাজি নন।

মনিকুত্তন বলেন, আমি একজন সাধারণ মানুষ। আমি নির্বাচসের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হতে চাই না। আমার পরিবার আছে, চাকরি আছে। খুশির সঙ্গেই আমি এই প্রস্তাব ফিরিয়ে দিচ্ছি। তিনি জানিয়েছেন, নিজের প্রার্থী হওয়ার খবর টিভি দেখে জানতে পারেন তিনি।

কেরলে এবার একটি নয়, দুটি আসন থেকে লড়বেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি কে সুরেন্দ্রন। মেট্রোম্যান ই শ্রীধরন দাঁড়াবেন পালাক্কাড থেকে। রবিবার বিজেপির জাতীয় জেনারেল সেক্রেটারি অরুণ সিং নির্বাচনমুখী রাজ্যগুলির প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেন। সেখানেই জানানো হয়, কেরলে মোট ১১৫টি আসনে লড়বে বিজেপি।

আগামী ৬ এপ্রিল কেরলে ১৪০টি আসনে বিধানসভা নির্বাচন হতে চলেছে। বিজেপি ১১৫টি আসনে লড়বে এবং বাকি ২৫টি আসনে লড়বে জোটসঙ্গী দলগুলি। কেরলের রাজ্য সভাপতি কে সুরেন্দ্রন লড়বেন কাসারগড়ের মঞ্জেশ্বর ও পাঠানামথিত্তার কোন্নি থেকে। সম্প্রতি বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন মেট্রোম্যান ই শ্রীধরন। রাজ্যের সম্ভাব্য মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থীও তিনি।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla