Indo-France Diplomacy: আফগানিস্তান হয়ে উঠতে পারে জঙ্গিদের ডেরা, উদ্বিগ্ন মোদী-ম্যাক্রোঁ

Modi-Macron Conversation : মার্কিন মুলুকের উপর বেজায় চটে রয়েছে ফ্রান্স। আর এদিকে আজই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে উড়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার আগে এই ফোনালাপে স্বাভাবিকভাবেই পারদ চড়ছে কূটনৈতিক মহলে।

Indo-France Diplomacy: আফগানিস্তান হয়ে উঠতে পারে জঙ্গিদের ডেরা, উদ্বিগ্ন মোদী-ম্যাক্রোঁ
নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে আজ দীর্ঘক্ষণ টেলিফোনে কথা বলেন এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ (ফাইল ছবি)

নয়া দিল্লি : ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সঙ্গে আজ টেলিফোনে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আজ ওয়াশিংটনের উদ্দেশে উড়ে যাওয়ার আগেই দুই রাষ্ট্রপ্রধানের মধ্যে আজ দীর্ঘক্ষণ কথা হয়। দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক আরও মজবুত করার দিক থেকে দেখলে, আজ মোদী-ম্যাক্রোঁ এই আলোচনা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করবে বলেই মনে করছেন কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা।

আজ প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে এই প্রেস বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের মধ্যে আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি সহ একাধিক আঞ্চলিক ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তালিবানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের আমলে আফগানিস্তানের মাটিকে সন্ত্রাসবাদীরা ব্যবহার করতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তাঁরা। একইসঙ্গে মাদক, বেআইনি অস্ত্র এবং মানব পাচারের মতো সংবেদনশীল ইস্যুগুলিও আফগানিস্তানে ফের মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তাঁরা।

আফগানিস্তানের তালিবান সরকারের আমলে মানবাধিকার, বিশেষ করে মহিলাদের অধিকার এবং সংখ্যালঘুদের অধিকার কতটা রক্ষা করা হবে, তা নিয়েও যথেষ্ট উদ্বিগ্ন নরেন্দ্র মোদী এবং এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।

ভারত ও ফ্রান্সের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক কীভাবে আরও মজবুত করা যায়, সেই সংক্রান্ত বিষয় নিয়েও দুই দেশের প্রধানের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা হয়। বিশেষ করে ভারত – প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় কীভাবে দুই দেশে আগামী দিনে কীভাবে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করতে পারে এবং সেই সঙ্গে এই এলাকার শান্তি ও নিরাপত্তা কীভাবে নিশ্চিত করা যায়, তা নিয়েও কথা হয় দু’জনের মধ্যে।

কোয়াড বৈঠকে যোগ দিতে আজই ওয়াশিংটন উড়ে যাওয়ার আগে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সঙ্গে নরেন্দ্র মোদীর এই ফোনালাপ যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা। বিশেষ করে কোয়াড বৈঠকের ঠিক আগেই এই ফোনালাপ আরও জল্পনা বাড়িয়েছে। কোয়াড দেশগুলির মধ্যে রয়েছে ভারত, আমেরিকা, জাপান ও অস্ট্রেলিয়া। সম্প্রতি ফ্রান্সের থেকে ডিজ়েল-ইলেকট্রিক চালিত সাবমেরিন কেনার চুক্তি করেছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু গত সপ্তাহে সেই চুক্তি বাতিল করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

পরিবর্তে আমেরিকার থেকে পারমানবিক সাবমেরিন কিনেছে অস্ট্রেলিয়া। আর বাইডেনের প্রশাসনের এই কাণ্ড মোটেই ভাল চোখে দেখছে না ফ্রান্স। কারণ, অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে এই চুক্তি সম্পন্ন হলে, বিশ্বের অস্ত্র বাজারে ভাল নাম করার সুযোগ ছিল ফ্রান্সের হাতে। তার উপর কয়েকশো কোটি ডলারের মুনাফা তো ছিলই। সব মিলিয়ে এখন মার্কিন মুলুকের উপর বেজায় চটে রয়েছে ফ্রান্স। আর এদিকে আজই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে উড়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার আগে এই ফোনালাপে স্বাভাবিকভাবেই পারদ চড়ছে কূটনৈতিক মহলে।

আরও পড়ুন : Havana Syndrome: করোনার পর নতুন আতঙ্ক, ভারত সফররত সিআইএ অফিসারের হাভানা সিনড্রোমের উপসর্গ

আরও পড়ুন : Afghanistan Crisis: আফগানিস্তানের উন্নয়নে টাকা বরাদ্দ করতে আপত্তি আইএমএফ-র

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla