অ্যাপেলের ‘ফেসটাইম অ্যাপ’, আইওএস ১৫ ভার্সানে এই কলিং অ্যাপে কী কী পরিবর্তন এসেছে?

গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে করোনার কারণে ঘরবন্দি হয়েছেন প্রায় সকলেই। ফলে প্রিয়জনের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় মন খারাপ অনেকের। এই পরিস্থিতিতে অ্যাপেলের ফেসটাইম কলিং অ্যাপের জনপ্রিয়তা ক্রমশ বেড়েছে।

অ্যাপেলের 'ফেসটাইম অ্যাপ', আইওএস ১৫ ভার্সানে এই কলিং অ্যাপে কী কী পরিবর্তন এসেছে?
আইওএস ১৫ ভার্সানে ফেসটাইম অ্যাপে কী কী বদল এসেছে, দেখে নিন।

WWDC 2021, কথা মতোই এই ইভেন্টে একগুচ্ছ নতুন ঘোষণা করেছেন অ্যাপেল কর্তৃপক্ষ। ২০২১ সালে অ্যাপেলের Worldwide Developer Conference (WWDC) অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ৭ জুন। এই ইভেন্টে অ্যাপেল কর্তৃপক্ষ যা যা ঘোষণা করেছেন তার মধ্যে অন্যতম ছিল আইওএস ১৫। জানা গিয়েছে, এই বছরের শেষ বা পরের বছর থেকে আইফোন ৬এস মডেল এবং আগামী অন্যান্য ফোনে আইওএস ১৫ ব্যবহৃত হবে। সেই সঙ্গে এও জানা গিয়েছে, আগামী মাসে অর্থাৎ জুলাইতে আইওএস ১৫- এর জন্য ‘পাবলিক বিটা’ লঞ্চ হতে চলেছে। দেখে নেওয়া যাক আইওএস ১৫- এর দৌলতে ফেসটাইম কলিং অ্যাপের বিভিন্ন ফিচারে কী কী পরিবর্তন এসেছে।

গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে করোনার কারণে ঘরবন্দি হয়েছেন প্রায় সকলেই। ফলে প্রিয়জনের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় মন খারাপ অনেকের। এই পরিস্থিতিতে অ্যাপেলের ফেসটাইম কলিং অ্যাপের জনপ্রিয়তা ক্রমশ বেড়েছে।

আইওএস ১৫- র ক্ষেত্রে এই ফেসটাইম কলিং অ্যাপে যা যা পরিবর্তন হয়েছে-

১। এই ভিডিয়ো টেলিফোনিক অ্যাপের মাধ্যমে কথা বললেন মনে হবে যেন সবাই এক ঘরে বসে একসঙ্গে মুখোমুখি কথা বলছেন। পুরো অভিজ্ঞতাই ভীষণ ন্যাচরাল মনে হবে।

২। এই অ্যাপের ক্ষেত্রে স্ক্রিনে থাকে স্পিকার। ফলে স্পষ্টভাবে আওয়াজ শোনা সম্ভব। এছাড়া ভয়েস আইসোলেশনের ফিচার রয়েছে ফেসটাইম অ্যাপে। যার সাহায্যে আশপাশের অতিরিক্ত আওয়াজ বন্ধ করা যায়। ইউজার যার গলা শুনতে চাইছেন, সেই কণ্ঠস্বরের উপর প্রায়োরিটিও দেওয়াও সম্ভব র ফিচারের মাধ্যমে।

৩। আইওএস ১৫ ভার্সানে ফেসটাইম অ্যাপের লিঙ্ক পাঠিয়ে অন্যদের ফেসটাইম কলে যুক্ত করানো যাবে। একসঙ্গে অনেকে যুক্ত হতে পারবেন ভিডিয়ো কলে। ঠিক যেমনটা গুগল মিট কিংবা জুম কলে হয়ে থাকে।

আরও পড়ুন- জিও ফোনে চালু হল হোয়াটসঅ্যাপের ভয়েস কল পরিষেবা, কোন ভার্সানের অ্যাপ ডাউনলোড করবেন?

৪। ওয়েব ব্রাউজারের ক্ষেত্রে অ্যানড্রয়েড এবং পিসি অর্থাৎ ডেস্কটপ উইন্ডোজ ভার্সানের ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা যাবে ফেসটাইম কলিং অ্যাপ। লিঙ্ক পাঠিয়ে ইনভাইট দিলেই হবে। মেসেজ কিংবা ইমেলে এই লিঙ্ক পাঠানো যাবে।

৫। এন্ড-টু-এন্ড পদ্ধতিতে ইউজারদের ব্যক্তিগত তথ্য এই ফেসটাইম কলিং অ্যাপে সুরক্ষিত থাকবে।