পায়ের পাওয়ার ! এক পা দিয়েই দিদির ছবি

ছোট থেকেই পোলিওতে হাত বলতে কিছুই নেই। তিনি পায়ের জোরেই এগিয়ে চলেছেন। পা দিয়েই সবকিছু করেন। ছবি আঁকেন। না দেখলে বিশ্বাস করবেন না।


এক পা দিয়েই দিদির ছবি এঁকে অবাক করলেন রঞ্জন কূর্মি। হাওড়া ময়দানের টালির বাড়িতে থাকা রঞ্জন কুর্মির কাছে পা সারা জীবনের প্রসঙ্গ। ছোট থেকেই পোলিওতে হাত বলতে কিছুই নেই। তিনি পায়ের জোরেই এগিয়ে চলেছেন। পা দিয়েই সবকিছু করেন। ছবি আঁকেন। না দেখলে বিশ্বাস করবেন না।

হাঁটাচলা, ফোনে কথাবলা সবকিছুই পায়ের জোরে। লক্ষ্য করে দেখুন হাত দু’টো নেই বললেই চলে। হাত দিয়ে কিছু করার উপায় নেই। তাই ছোট থেকে পা দিয়েই সবকিছু করার অভ্যেস। পা দিয়েই রান্নাবান্না, খাওয়া-দাওয়া, টিভি দেখা যে কোনও ধরনের কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করেন রঞ্জন। তিনি একজন শিল্পী। ছবি আঁকা শিখিয়ে এই সংসার চলে তার। লকডাউন মানেই তো রোজগার বন্ধ। প্রতিবন্ধীর সরকারি সুযোগ-সুবিধা কিছুই পাননি বলে জানালেন রঞ্জন। তবে তাঁর পায়ের চিত্রশিল্প পৌঁছে গেছে দেশের গণ্ডির বাইরে বিদেশেও। সম্মান কিছুটা হয়তো পেয়েছেন। কিন্তু তা দিয়ে তো আর জীবন চলে না। পায়ের উপর ভর করেই লড়ে যাচ্ছেন।

এবার ভোটে পা একটা প্রসঙ্গ। রঞ্জন বলেন, “দিদি এক পায়েই কামাল করে দিয়েছেন। আর শিল্প আমারও একমাত্র শক্তি। আমিও তো হারিনি। জীবনযুদ্ধে ঠিক এভাবেই টিকে রয়েছি। তাই ভাবলাম দিদির একটা পোর্ট্রেট আকি। ইচ্ছে রয়েছে কোনওদিন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর হাতেই তুলে দিতে পারব তাঁরই ছবি।”