Diabetes Diet: পাকা আম থেকে রসালো লিচু—গরমের এই ৫ ফল সুগারের রোগীরা খেলেই বিপদ

Summer Fruits: সব ধরনের ফল সুগার রোগীদের চলে না। এমন বেশ কিছু ফল রয়েছে যার গ্লাইসেমিক সূচক বেশি। তার উপর প্রাকৃতিক শর্করায় ভরপুর। আবার সেগুলো এই গ্রীষ্মকালেরই ফল। বছরে দু-এক মাসই তাদের দেখা পাওয়া যায়। অথচ, সুগার রোগী হওয়ায় সেগুলো আপনি খেতে পারবেন না।

Diabetes Diet: পাকা আম থেকে রসালো লিচু—গরমের এই ৫ ফল সুগারের রোগীরা খেলেই বিপদ
Follow Us:
| Updated on: May 15, 2024 | 1:00 PM

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে খাওয়া-দাওয়া নিয়ে সচেতন হতে হয়। কী খাবেন, আর কী-কী খাবেন না, এসব নিয়ে দোটানা চলতে থাকে। চিকিৎসকদের মতে, যে সব খাবারে ফাইবারের পরিমাণ বেশি এবং গ্লাইসেমিক সূচক কম সেগুলো ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য আদর্শ খাবার। আর এই প্যারামিটারকে ছুঁয়ে যায় দানাশস্য থেকে শাকসবজি, ফল সবকিছুই। তবু, সব ধরনের ফল সুগার রোগীদের চলে না। এমন বেশ কিছু ফল রয়েছে যার গ্লাইসেমিক সূচক বেশি। তার উপর প্রাকৃতিক শর্করায় ভরপুর। আবার সেগুলো এই গ্রীষ্মকালেরই ফল। বছরে দু-এক মাসই তাদের দেখা পাওয়া যায়। অথচ, সুগার রোগী হওয়ায় সেগুলো আপনি খেতে পারবেন না। কোন ফলগুলো কথা বলছি, বুঝতে পারছেন না? দেখে নিন এক নজরে।

তরমুজ: বাজারে এখন তরমুজের ছড়াছড়ি। লাল, রসালো ও মিষ্টি তরমুজের থেকে মুখ ফেরানো কঠিন। অনেকেই মনে করেন, যেহেতু তরমুজ জলে ভরপুর, তাই এই ফল খেলে সুগার বাড়বে না। কিন্তু রক্তে শর্করার মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে হলে ডায়াবেটিসের রোগীদের তরমুজ থেকে দূরে থাকাই উচিত। তবে, মাসে এক-দু’বার তরমুজের ছোট টুকরো খাওয়াই যায়।

কলা: কলাকে সুপারফুড বলা হয়। কিন্তু এই ফল ব্লাড প্রেশারের রোগীদের জন্য উপযোগী। কলার গ্লাইসেমিক সূচক ৬২, তাই সুগারের রোগীদের এই ফল এড়িয়ে যাওয়াই উচিত। কলা খেলেও সঙ্গে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার রাখুন। যাতে হঠাৎ করে সুগার লেভেল বেড়ে না যায়।

এই খবরটিও পড়ুন

পাকা আম: আমের জন্যই গ্রীষ্মকালের অপেক্ষা। কিন্তু ডায়াবেটিসের রোগীদের পাকা আম থেকে দূরে থাকাই উচিত। একটা পাকা আম খেলেই রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। এতে প্রাকৃতিক শর্করার পরিমাণ অনেক বেশি। সুগার রোগীরা চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া আম খাওয়া উচিত নয়।

আনারস: আম, তরমুজের পাশাপাশি আনারসও সুগার রোগীদের খাওয়া উচিত নয়। আনারস অন্যান্য ফলের তুলনায় বেশি পুষ্টিকর। এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ফাইবার রয়েছে, তাও সুগারের রোগীদের এই ফল থেকে দূরে থাকা উচিত। খেলেও অল্প পরিমাণে খাওয়া উচিত।

লিচু: গরমের আরেকটি জনপ্রিয় ফল হল লিচু। কিন্তু সুগার রোগীদের লিচু থেকেও দূরে থাকা উচিত। গরমে নিয়মিত লিচু খেলে হঠাৎ করে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। তাই এই ফলও বুঝেশুনে খান।