High Cholesterol: গরমে চড়চড়িয়ে বাড়ে কোলেস্টেরল, এই ৪ ফল ও সবজি না খেলে হতে পারে হার্ট অ্যাটাক

Summer Foods: যাঁরা উচ্চ কোলেস্টেরলের সমস্যায় ভুগছেন, খুব ভাল করেই জানেন যে তেল ও চর্বিযুক্ত খাবার আপনাদের চলে না। এতে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। আর গরমে তেল-মশলাদার খাবার খেলে শরীর আরও অসুস্থ হয়ে যেতে পারে। বরং, গরমের এই ৪ খাবার খান।

High Cholesterol: গরমে চড়চড়িয়ে বাড়ে কোলেস্টেরল, এই ৪ ফল ও সবজি না খেলে হতে পারে হার্ট অ্যাটাক
রক্তে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে গেলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ে। এটা সকলেরই জানা। কিন্তু, জানেন কি কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়লে পায়েরও সমস্যা বাড়ে? পায়ের কয়েকটি লক্ষণ দেখলেই বোঝা যায় কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়েছে কিনা
Follow Us:
| Updated on: Apr 24, 2024 | 2:10 PM

গ্রীষ্মের পারদ যত চড়তে থাকে, রক্তনালিতেও জমতে থাকে খারাপ কোলেস্টেরল। মূলত, গরমে শরীরে জলের পরিমাণ কমে যায়। এর জেরেই নানা রোগ বাসা বাঁধে। আর খাওয়া-দাওয়ার অনিয়ম করলে ভুগতেই হবে কোলেস্টেরলের সমস্যায়। তবে, গ্রীষ্মকালীন খাবার খেয়েও কোলেস্টেরলকে বশে রাখা যায়।

যাঁরা উচ্চ কোলেস্টেরলের সমস্যায় ভুগছেন, খুব ভাল করেই জানেন যে তেল ও চর্বিযুক্ত খাবার আপনাদের চলে না। এতে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। আর গরমে তেল-মশলাদার খাবার খেলে শরীর আরও অসুস্থ হয়ে যেতে পারে। বরং, গরমের এই ৪ খাবার খান। এতে রক্তে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমবে এবং গরমে সুস্থ জীবনযাপন করতে পারবেন।

ঢ্যাঁড়শ: কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়লে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবারের উপর জোর দিতে বলে চিকিৎসকেরা। এই ফাইবার উচ্চ পরিমাণে পাবেন ঢ্যাঁড়শের মধ্যে। ফাইবারের পাশাপাশি ঢ্যাঁড়শে ভিটামিন কে, সি, এ এবং ম্যাগনেসিয়াম, ফোলেটের মতো পুষ্টি পাবেন। এমনকি এই সবজিতে থাকা পেকটিন কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সবচেয়ে বেশি সক্ষম। ওজন কমানো ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতেও এই আনাজ উপযোগী।

এই খবরটিও পড়ুন

শসা: এই গরমে শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে হলে পাতে রাখতে হবে শসাকে। শসার মধ্যে জলের পরিমাণ বেশি, যা শরীরের আর্দ্রতা বজায় রাখে। এছাড়া শসার মধ্যে ফাইটোস্টেরলস নামের একটি উপাদান পাওয়া যায়, যা উচ্চ কোলেস্টেরলের সমস্যা কমাতে সহায়ক। এছাড়া এই ফলের মধ্যে ফাইবার রয়েছে, যা কোলেস্টেরলের রোগীদের জন্য উপযোগী।

তরমুজ: গরমে সুস্থ থাকতে গেলে তরমুজ খেতেই হবে। এই ফলের মধ্যেও জলের পরিমাণে বেশি। তরমুজের মধ্যে লাইকোপেন নামের যৌগ কোলেস্টেরলের মাত্রা সহায়ক। রোজ একবাটি তরমুজ বা এক গ্লাস তরমুজের শরবত খেলেই নিয়ন্ত্রণে থাকবে কোলেস্টেরল। পাশাপাশি শরীরও হাইড্রেটেড থাকবে।

পটল: পটলের নাম শুনলে অনেকেই নাক সিঁটায়। কিন্তু কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে গেলে এই গরমে পটলের তৈরি পদ খেতেই হবে। ভিটামিন সি, বি এবং এ-এর মতো পুষ্টি রয়েছে এই সবজিতে। পটল রক্তে খারাপ কোলেস্টেরল বা এলডিএল কমাতে এবং ভাল কোলেস্টেরল বা এইচডিএল বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এতে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। এমনকি পটল খেয়ে কমাতে পারেন স্ট্রোকের সম্ভাবনাও।