‘কেরলের জন্য উপযুক্ত নয় বিজেপি’, নির্বাচনে জয়ের পরই সাম্প্রদায়িকতার খোঁচা বিজয়নের

ইউডিএফের পরাজয় নিয়ে বিজয়ন বলেন, "রাহুল গান্ধী জাতীয় স্তরের নেতা হতে পারেন, কিন্তু সাধারণ মানুষের বামের বিকল্প হিসাবে তাঁকে দেখতে চান না।"

'কেরলের জন্য উপযুক্ত নয় বিজেপি', নির্বাচনে জয়ের পরই সাম্প্রদায়িকতার খোঁচা বিজয়নের
ফাইল চিত্র।

তিরুবনন্তপুরম: ৪০ বছরে ইতিহাস তৈরি করলেন তিনি। প্রতি বিধানসভা নির্বাচনে সরকার বদলের নীতি আটকে দিয়ে টানা দ্বিতীয়বাারের জন্য কেরলের মসনদে বসতে চলেছেন পিনারাই বিজয়ন। জয় ঘোষণার পরই তবে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের নেতৃত্বে ইউডিএফ নয়ং, বরং কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপিরই সমালোচনা করলেন তিনি।

২০১৬ সালে ৯১টি আসনে জয়ী হয়েছিল এলডিএফ, এ বার বেড়েছে আসন সংখ্যাও। ১৪০টি আসনের মধ্যে ৯৭টি আসনে জয়ী হয়েছেন তাঁরা। কন্নুরের প্রার্থী হিসাবে বিজয়নের জয় ঘোষণার পরই তিনি বিজেপিকে আক্রমণ করে বলেন, “কেরলে বিজেপির জন্য নয়। কেরল কখনওই সাম্প্রদায়িকতা বা ধর্মীয় ভেজাভেদকে স্বীকার করবে না।”

বিজেপির প্রধান তুরুপের তাস মেট্রো ম্যান ই শ্রীধরন, যাকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করেছিল বিজেপি, তিনিও ভোটে হেরে যান। বিজেপির রাজ্য সভাপতি কে সুরেন্দ্রনও জয়ের মুখ দেখতে পাননি। অন্যদিকে, রাহুল গান্ধীর লাগাতার প্রচারের পরও ইউডিএফের পরাজয় নিয়ে বিজয়ন বলেন, “রাহুল গান্ধী জাতীয় স্তরের নেতা হতে পারেন, কিন্তু সাধারণ মানুষের বামের বিকল্প হিসাবে তাঁকে দেখতে চান না। অনেকগুলিই বিজেপি শাসিত রাজ্য রয়েছে, ওনার উচিত সেখানে গিয়ে প্রচার চালানো। তার বদলে উনি কেবল কেরলেই মনোনিবেশ করলেন।”

জয়ের কারণ হিসাবে তিনি জানান, বিগত পাঁচ বছরে এলডিএফ সরকারের কাজে খুশি সাধারণ মানুষ। তাদের উন্নয়নে একাধিক কাজ করা হয়েছে। তিনি মুখ্যমন্ত্রী হবেন কিনা, তা নিশ্চিত না হলেও রাজ্যের উন্নয়ন জারি থাকবে বলেই জানান তিনি।

নির্বাচন মিটতেই এ বার করোনা সংক্রমণ রোখার পদ্ধতিতে মন দিতে চান, এমনটাই জানিয়েছেন পিনারাই। তিনি বলেন, “লকডাউনের মতোই কড়া বিধি নিষেধ আরোপ করা হবে। উৎপাদন ও নির্মাণকার্যকে বাদ দিয়ে কীভাবে বাকি জায়গায় বিধি নিষেধ আরোপ করা যায়, তা নিয়ে চিন্তাভাবনা চলছে।”

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla