IMPS: ২ লক্ষ থেকে ৫ লক্ষ হল আইএমপিএসে লেনদেনের উর্ধ্বসীমা। কীভাবে রেজিস্টার করবেন জেনে নিন।

IMPS, Banking, বর্তমানে টাকা লেনদেনের মাধ্যম হিসেবে এই পদ্ধতি খুবই জনপ্রিয়। খুব সহজেই এই পদ্ধতি ব্যবহার করে টাকা আদান প্রদান করা সম্ভব। এনপিসিআই ক্রমশ এই পদ্ধতিকে সহজ থেকে সহজতর করছে।

1/5
ভারতীয় ব্যাঙ্কিং পরিষেবায় আইএমপিএস (IMPS) একটি পরিচিত নাম। এই শব্দটির পুরো নাম হল ইমিডিয়েট পেমেন্ট সার্ভিস (Immediate Payment Service)। এই পদ্ধতির মাধ্যমে সহজেই টাকা পাঠানো যায়। ২০১০ সালে পাইলট প্রজেক্ট (Pilot Project) হিসেবে আইএমপিএসের ব্যবহার শুরু করে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (Reserve Bank of India) ও ন্যাশানাল পেমেন্ট কর্পোরেশন অব ইন্ডিয়া (National Payments Corporation of India)। সেই সময় মাত্র ৪ টি ব্যাঙ্কে এই পরিষেবা মিলত এখন সেই ব্যাঙ্কের সংখ্যা বেড়ে ১৫০ টিরও বেশি হয়েছে।  ছবি- প্রতীকী চিত্র
ভারতীয় ব্যাঙ্কিং পরিষেবায় আইএমপিএস (IMPS) একটি পরিচিত নাম। এই শব্দটির পুরো নাম হল ইমিডিয়েট পেমেন্ট সার্ভিস (Immediate Payment Service)। এই পদ্ধতির মাধ্যমে সহজেই টাকা পাঠানো যায়। ২০১০ সালে পাইলট প্রজেক্ট (Pilot Project) হিসেবে আইএমপিএসের ব্যবহার শুরু করে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (Reserve Bank of India) ও ন্যাশানাল পেমেন্ট কর্পোরেশন অব ইন্ডিয়া (National Payments Corporation of India)। সেই সময় মাত্র ৪ টি ব্যাঙ্কে এই পরিষেবা মিলত এখন সেই ব্যাঙ্কের সংখ্যা বেড়ে ১৫০ টিরও বেশি হয়েছে। ছবি- প্রতীকী চিত্র
2/5
বর্তমানে টাকা লেনদেনের মাধ্যম হিসেবে এই পদ্ধতি খুবই জনপ্রিয়। খুব সহজেই এই পদ্ধতি ব্যবহার করে টাকা আদান প্রদান করা সম্ভব। এনপিসিআই ক্রমশ এই পদ্ধতিকে সহজ থেকে সহজতর করছে। এখন সব ব্যাঙ্কেই এই পরিষেবা সহজেই পাওয়া যায়। সম্প্রতি আইএমপিএসে লেনদেনের উর্ধ্বসীমা ২ লক্ষ টাকা থেকে বেড়ে ৫ লক্ষ টাকা হয়েছে। ছবি- প্রতীকী চিত্র
বর্তমানে টাকা লেনদেনের মাধ্যম হিসেবে এই পদ্ধতি খুবই জনপ্রিয়। খুব সহজেই এই পদ্ধতি ব্যবহার করে টাকা আদান প্রদান করা সম্ভব। এনপিসিআই ক্রমশ এই পদ্ধতিকে সহজ থেকে সহজতর করছে। এখন সব ব্যাঙ্কেই এই পরিষেবা সহজেই পাওয়া যায়। সম্প্রতি আইএমপিএসে লেনদেনের উর্ধ্বসীমা ২ লক্ষ টাকা থেকে বেড়ে ৫ লক্ষ টাকা হয়েছে। ছবি- প্রতীকী চিত্র
3/5
ব্যবহারকারীরা যে ব্যাঙ্কের গ্রাহক, সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের মোবাইল অ্যাপলিকেশন (mobile application) বা ওয়েবসাইট (website) ব্যবহার করেই আইএমপিএস পরিষেবা ব্যবহার করতে হয়। এই পদ্ধতিতে লেনদেন সম্পূর্ণ হওয়ার পরেই প্রাপক (reciever) ও প্রেরকের (sender) কাছে ব্যাঙ্কে তরফে একটি এসএমএস আসে। যার ফলে দুতরফই লেনদেনের (transaction) ব্যাপারে নিশ্চিন্ত হতে পারে।  ছবি ফাইল চিত্র
ব্যবহারকারীরা যে ব্যাঙ্কের গ্রাহক, সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের মোবাইল অ্যাপলিকেশন (mobile application) বা ওয়েবসাইট (website) ব্যবহার করেই আইএমপিএস পরিষেবা ব্যবহার করতে হয়। এই পদ্ধতিতে লেনদেন সম্পূর্ণ হওয়ার পরেই প্রাপক (reciever) ও প্রেরকের (sender) কাছে ব্যাঙ্কে তরফে একটি এসএমএস আসে। যার ফলে দুতরফই লেনদেনের (transaction) ব্যাপারে নিশ্চিন্ত হতে পারে। ছবি ফাইল চিত্র
4/5
প্রথমেই সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের মোবাইল ব্যাঙ্কিং সার্ভিসের পরিষেবা গ্রহন করতে হবে। মোবাইল ব্যাঙ্কিং আইডেনটিফায়ার (Mobile Money Identifier) ও এমপিনও (MPIN) প্রয়োজন। প্রাপকেও ক্ষেত্রেও এই পরিষেবা গুলি চালু থাকা বাধ্যতামূলক। গ্রাহকের ব্যাঙ্কে যদি এসএমএস আইএমপিএস পরিষেবা থাকে তবে সেই পরিষেবার মাধ্যেমেই লেনদেন সম্ভব। অথবা মোবাইল অ্যাপলিকেশন থেকে ব্যবহার করতে হবে। ছবি- প্রতীকী চিত্র
প্রথমেই সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের মোবাইল ব্যাঙ্কিং সার্ভিসের পরিষেবা গ্রহন করতে হবে। মোবাইল ব্যাঙ্কিং আইডেনটিফায়ার (Mobile Money Identifier) ও এমপিনও (MPIN) প্রয়োজন। প্রাপকেও ক্ষেত্রেও এই পরিষেবা গুলি চালু থাকা বাধ্যতামূলক। গ্রাহকের ব্যাঙ্কে যদি এসএমএস আইএমপিএস পরিষেবা থাকে তবে সেই পরিষেবার মাধ্যেমেই লেনদেন সম্ভব। অথবা মোবাইল অ্যাপলিকেশন থেকে ব্যবহার করতে হবে। ছবি- প্রতীকী চিত্র
5/5
ব্যাঙ্কের নেট ব্যাঙ্কিং পরিষেবা ব্যবহার করে আইএমপিএসে টাকা লেনদেন করা যায়। এই ক্ষেত্রে গ্রাহককে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের ওয়েবসাইটে যেতে হবে। তার পর নিজের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য প্রদান করার মাধ্যমে গ্রাহক আইএমপিএস পরিষেবার ব্যবহার করে টাকা লেনদেন করতে পারবেন।  ছবি- প্রতীকী চিত্র
ব্যাঙ্কের নেট ব্যাঙ্কিং পরিষেবা ব্যবহার করে আইএমপিএসে টাকা লেনদেন করা যায়। এই ক্ষেত্রে গ্রাহককে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের ওয়েবসাইটে যেতে হবে। তার পর নিজের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য প্রদান করার মাধ্যমে গ্রাহক আইএমপিএস পরিষেবার ব্যবহার করে টাকা লেনদেন করতে পারবেন। ছবি- প্রতীকী চিত্র

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla