ISL 2021-22: সুপার সাব ঈশানের গোলেই বিফলে হীরা-অঙ্কিতদের লড়াই

লিগ টেবিলে সবার নীচে ইস্টবেঙ্গল। আদৌ চলতি আইএসএলে জয়ের মুখ দেখবে কিনা লাল-হলুদ, সেটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন।

ISL 2021-22: সুপার সাব ঈশানের গোলেই বিফলে হীরা-অঙ্কিতদের লড়াই
ISL 2021-22: সুপার সাব ঈশানের গোলেই বিফলে হীরা-অঙ্কিতদের লড়াই

কৌস্তভ গঙ্গোপাধ্যায়

জামশেদপুর এফসি ১ : এসসি ইস্টবেঙ্গল ০ (ঈশান পান্ডিতা ৮৮)

সুপার সাব ঈশান পান্ডিতা। আইএসএলের (ISL) এক ব্যতিক্রমী চরিত্র হয়ে উঠেছেন। গত আইএসএলে এফসি গোয়ার হয়ে পরিবর্ত হিসাবে মাঠে নেমেই একের পর এক গোলে মূল্যবান পয়েন্ট এনে দিয়েছেন এফসি গোয়াকে। এ বার জামশেদপুরের জার্সিতেও সেই একই মিথ ধরে রেখেছেন। গত ম্যাচে যেমনটা করেছিলেন, এই ম্যাচেও তাই-ই করলেন। ঈশান পান্ডিতার ওই একটা হেডেই বিফলে চলে গেল হীরা-অঙ্কিতদের লড়াই। বিফলে গেল রেনেডির স্ট্র্যাটেজি।

সীমিত শক্তি দিয়েও রুখে দেওয়া যায় হেভিওয়েট বিপক্ষকে। ডেভিড-গোলিয়াথের যুদ্ধ যেমন। ইতিহাসের পাতায় এমন অনেক লড়াইয়ের উল্লেখ রয়েছে। যে লড়াই আর অদম্য জেদে উদ্বুদ্ধ হয়েই কঠিন যুদ্ধ জয় করা সম্ভব হয়েছে। রেনেডির লাল-হলুদ আজ ০-১ হারলেও, তাঁদের লড়াইকে কুর্নিশ।

মানোলো দিয়াজ দলটাকে ডুবিয়ে চলে গিয়েছেন। রেনেডি সিং দায়িত্ব নেওয়ার পর শরীরী ভাষায় পাল্টে গিয়েছে এসসি ইস্টবেঙ্গলের। বেঙ্গালুরু, মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে পয়েন্ট কাড়লেও জামশেদপুরের বিরুদ্ধে খালি হাতেই ফিরতে হল লাল-হলুদকে। ৮৮ মিনিট পর্যন্ত দাঁতে দাঁত চাপে হেভিওয়েট জামশেদপুরের বিরুদ্ধে লড়াই চালালেন অমরজিৎ-রফিকরা। আক্রমণ, বল পজেশন, স্কোরলাইন সবেতেই এগিয়ে থেকে শেষ করল জামশেদপুর। কিন্তু লাল-হলুদের লড়াই মন কাড়ল।

যেমন কথা, তেমন কাজ। ম্যাচের আগেই বলেছিলেন, জামশেদপুরের বিরুদ্ধে প্রথম এগারো জন ভারতীয়দের নিয়ে দল সাজাবেন। ঠিক কথা মতো কাজ করলেন রেনেডি সিং। আইএসএলের মঞ্চে এগারো জন ভারতীয় ফুটবলার খেললেন শুরু থেকে। প্রথম থেকেই লাল-হলুদ রক্ষণে বারবার আক্রমণ শানালেন স্টুয়ার্ট, মারেরা। কয়েকবার কাউন্টার অ্যাটাক করল এসসি ইস্টবেঙ্গল। তবে বেশিরভাগ সময়ই ব্যস্ত থাকলেন আদিল, অঙ্কিত, হীরা মণ্ডলরা। জামশেদপুরের আক্রমণ রুখতে নীচে নেমে আসলেন সৌরভ, রফিকরাও। বল দখলের লড়াইতেও এগিয়ে ছিল জামশেদপুর এফসি।

দ্বিতীয়ার্ধের চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন ডিফেন্ডার আদিল খান। তাঁর পরিবর্তে ডাচ ফুটবলার ড্যারেন সিডুলকে নামান রেনেডি সিং। আদিলের পরিবর্তে নেমে রক্ষণেই খেললেন সিডুল। ৭৪ মিনিটে মারের একটা শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। এর আগে তাঁর একটা হেড ক্রসপিসে লেগে ফিরে আসে। ৮৮ মিনিটেই ছন্দপতন। গ্রেগ স্টুয়ার্টের কর্নার থেকে হেডে জয়সূচক গোল ঈশান পান্ডিতার (১-০)। আর ওই গোলেই মূল্যবান ৩ পয়েন্ট আর টেবিল টপার হয়ে গেল জামশেদপুর এফসি। চলতি আইএসএলে ১১ ম্যাচে জয়হীন এসসি ইস্টবেঙ্গল। সব মিলিয়ে টানা ১৫ ম্যাচ জয়ই পায়নি লাল-হলুদ। গত আইএসএলে জামশেদপুর এফসির বিরুদ্ধে শেষ বার জিতেছিল মশাল ব্রিগেড। তারপর বাকি চার ম্যাচে ১টায় ড্র আর বাকি ৩টে-তে হার। আর এবার ১১টার মধ্যে ৬টায় ড্র, ৫টায় হার। লিগ টেবিলে সবার নীচে। আদৌ চলতি আইএসএলে জয়ের মুখ দেখবে কিনা লাল-হলুদ, সেটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন।

এসসি ইস্টবেঙ্গল: অরিন্দম, হীরা,অঙ্কিত, আদিল (সিডুল), অমরজিৎ, সৌরভ (জ্যাকিচাঁদ), আঙ্গুসানা, হামতে, রফিক, নাওরেম (বলবন্ত), হাওকিপ।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla