ল্যাম্বরগিনি Urus Pearl Capsule এডিশন, ভারতে লঞ্চের পরই কিনলেন রণবীর সিং

অত্যাধুনিক এবং বিলাসবহুল এই গাড়িতে রয়েছে ৪.৪ লিটারের টার্বোচার্জড ভি৮ ইঞ্জিন।

ল্যাম্বরগিনি Urus Pearl Capsule এডিশন, ভারতে লঞ্চের পরই কিনলেন রণবীর সিং
রণবীর সিংয়ের নতুন ল্যাম্বরগিনি।

ভারতে সদ্য লঞ্চ হয়েছে ল্যাম্বরগিনি Urus Pearl Capsule এডিশন। বিলাসবহুল এই নতুন গাড়ি দেশে লঞ্চ হওয়ার পরই নিজের জন্য কিনে ফেলেছেন বলিউড অভিনেতা রণবীর সিং। শোনা গিয়েছে, ৩.১৫ কোটি টাকা (এক্স শোরুম) থেকে দাম শুরু ল্যাম্বরগিনির এই এডিশনের গাড়ির। ২০১৯ সালের শেষে দিকেই এই গাড়ির জন্য অর্ডার দিয়েছিলেন রণবীর। ভারতে লঞ্চ হওয়ার পরই ডেলিভারি পেয়ে গিয়েছেন অভিনেতা।

ল্যাম্বরগিনি Urus Pearl Capsule এডিশনের গাড়িতে রয়েছে ‘কসমেটিক আপগ্রেড প্যাকেজ’। রণবীর যে সুপার এসইউভি গাড়িটি কিনেছেন তার রঙ Arancio Borealis, অর্থাৎ ক্যান্ডি অরেঞ্জ শেডের গাড়ি। কমলা রঙের সঙ্গে কালোর মিশেল রয়েছে এই ল্যাম্বরগিনি মডেলে। বেশ চকচকে কালো রঙের বাম্পার রয়েছে এই এসইউভিতে। এছাড়াও এই গাড়িতে রয়েছে ORVMs, body skirts, wheel cladding।

রণবীর সিংয়ের নতুন ল্যাম্বরগিনি Urus Pearl Capsule এডিশনের গাড়িতে চাকার ক্ষেত্রেও রয়েছে বিশেষত্ব। ২৩ ইঞ্চির Taigete wheels- এর পরিবর্তে এই গাড়িতে ২২ ইঞ্চির Nath wheels রয়েছে। জানা গিয়েছে, ল্যাম্বরগিনির স্পেশ্যাল এডিশনের মডেলে স্ট্যান্ডার্ড হিসেবে Taigete wheels থাকে। অন্যদিকে স্ট্যান্ডার্ড ল্যাম্বরগিনি Urus মডেলে ২১ ইঞ্চির অ্যালয় হুইলস থাকে।

গাড়ির ভিতরের অংশের বিভিন্ন ফিচার-

১। ল্যাম্বরগিনি Urus Pearl Capsule এডিশনের গাড়িতে ডুয়াল টোনের Alcantara ম্যটেরিয়াল সিট রয়েছে। এক্ষেত্রে গাড়ির বাইরের রঙের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সিটের কভারের রঙ নির্বাচন করা হয়। পিছনের অংশে ‘Urus’ কথাটি এমব্রয়ডারি করা থাকে। আর সিটের উপরের দিকে মাথার অংশে থাকে ল্যাম্বরগিনি-র লোগো।

২। গাড়ির দরজার প্যানেলে যুক্ত থাকে কার্বন-ফাইবার। অন্যদিকে গাড়ির কেবিনের অংশে রয়েছে কালো রঙের anodised trims।

আরও পড়ুন- এপ্রিল মাসে কোন বাইকের বিক্রি হয়েছে কেমন? রইল প্রথম ১০-এর তালিকা

৩। অত্যাধুনিক এবং বিলাসবহুল এই গাড়িতে রয়েছে ৪.৪ লিটারের টার্বোচার্জড ভি৮ ইঞ্জিন। ৬৪১ bhp এবং ৮৫০ Nm of peak torque শক্তি উৎপাদন করতে পারে এই ইঞ্জিন। ৮ স্পিডের অটোম্যাটিক গিয়ারবক্স রয়েছে ইঞ্জিনের সঙ্গে। স্থির থাকা অবস্থায় অর্থেত শূন্য থেকে ১০০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায় স্পিড তুলতে সময় লাগে ৩.৬ সেকেন্ড। এই গাড়ির সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ৩০৫ কিলোমিটার। বিশ্বের দ্রুততম এসইউভি গাড়িগুলোর মধ্যে ল্যাম্বরগিনি Urus Pearl Capsule এডিশন অন্যতম।