Bidyut Chakraborty: ‘বিশ্বভারতী পশ্চিমবঙ্গ ভারতী, বোলপুর ভারতী হয়ে গিয়েছে’, ফের বিতর্কিত মন্তব্য উপাচার্যের

Bidyut Chakraborty: 'বিশ্বভারতী পশ্চিমবঙ্গ ভারতী, বোলপুর ভারতী হয়ে গিয়েছে', ফের বিতর্কিত মন্তব্য উপাচার্যের
উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী (ফাইল ছবি)

Bidyut Chakraborty: প্রজাতন্ত্র দিবসের এক অনুষ্ঠানে উপাচার্যের ভাষণের ভিডিয়ো ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে ইতিমধ্যেই। যদিও সেই ভিডিয়ো ফুটেজের সত্যতা যাচাই করেনি TV9 বাংলা।

TV9 Bangla Digital

| Edited By: শর্মিষ্ঠা চক্রবর্তী

Jan 28, 2022 | 12:12 PM

বীরভূম: আবারও বিতর্কে বিশ্বভারতীর উপাচার্য। ‘বিশ্বভারতী এখন পশ্চিমবঙ্গ ভারতী, বোলপুর ভারতী হয়ে গিয়েছে…’ , এমনই মন্তব্য করলেন উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী। প্রজাতন্ত্র দিবসের এক অনুষ্ঠানে উপাচার্যের ভাষণের ভিডিয়ো ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে ইতিমধ্যেই। যদিও সেই ভিডিয়ো ফুটেজের সত্যতা যাচাই করেনি TV9 বাংলা।

ওই ভিডিয়ো ফুটেজে দেখা যাচ্ছে উপাচার্য বিনয় ভবনের মাঠে একটি অনুষ্ঠানে মঞ্চে দাঁড়িয়ে বলছেন, “যাঁরা বিশ্বভারতীর সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন, তাঁদের কি দায়িত্ব নয়? যে আমরা যাব, আমরা গিয়ে বিশ্বভারতী ক্যাম্পাস গড়ব। যদি আমরা দায়িত্ব না নিই, তাহলে উত্তরাখণ্ড ক্যাম্পাস হয়ে যাবে কিন্তু। আজকে বিশ্বভারতী হয় হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ ভারতী না হয় বোলপুর ভারতী হয়ে গিয়েছে। আমি থাকতে কিন্তু এটা উত্তরাখণ্ড ভারতী হতে দেব না। আমি এটাকে বিশ্বভারতীই রাখতে চাই। সেই জন্য আমাদের বেশ কিছু লোকজনকে কিন্তু ওখানে যেতে হবে। আমাদের ওখানে থাকতে হবে। তাতে বিশ্বভারতী বিশ্বভারতীই থাকবে। ”

এই ভিডিয়ো ফুটেজ এখনও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। ‘বিশ্বভারতী পশ্চিমবঙ্গ ভারতী না হয় বোলপুর ভারতী হয়ে গিয়েছে’, এহেন মন্তব্যের বিরুদ্ধে সোচ্চার আশ্রমিক থেকে শুরু করে ছাত্রছাত্রীরাও। বিশ্বভারতীর একজন আশ্রমিক সুপ্রিয় ঠাকুর বলেন, ” এ সম্পর্কে আর কী বলার আছে। এখন তো ওঁ-ই সর্বময় কর্তা। ওঁ তো বিশ্বভারতীর সর্বময় কর্তা হয়ে বসে আছেন। বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নতি প্রসঙ্গে ওঁ কী করেন, এখন সেটাই দেখার। তিনি যদি উন্নতি করতে পারবেন, তো দেখা যাক না। ওঁ আসলে কী বার্তা দিতে চাইছেন, জানি না।”

উপাচার্য আরও বলেছেন, “বিশ্বভারতীর একাংশ কর্মী রয়েছেন, যাঁরা আসে যান মাইনে পান। কিন্তু বিশ্বভারতী নিয়ে সচেতন নন।” এর আগেও একাধিকবার বিতর্কে জড়িয়েছেন উপাচার্য।

তবে উপাচার্যের নয়া বিতর্কিত ভিডিয়ো প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতা তাপস রায় বলেন, “কী বলব ঠিক জানি না। ভাইস চ্যান্সেলরের মর্যাদা ঠিক কতটা রক্ষা হচ্ছে জানি না। আগে কারা কারা এই পদে ছিলেন, আর বর্তমান ভাইস চ্যান্সেলর যে সমস্ত কথা বার্তা বলছেন, তা তো ভাইস চ্যান্সেলরসুলভ নয়। মনে হয় তিনি যেন কোনও রাজনৈতিক দলের কর্মী। বা কোনও রাজনৈতিক দলের পদাধিকারী কথা বলছেন। ওঁর সময়ে বিশ্বভারতীর যদি কোনও উত্তরণ হয়ে থাকে, তাঁর কৃতিত্ব ওঁর। আর বিশ্বভারতীর যদি এ সময়ে কোনও সম্মানহানি কিংবা মর্যাদাহানি হয়, তারও দায় ও দায়িত্ব তিনি ফেরাতে পারেন না।” তৃণমূল নেতা তথা বিধায়কের প্রশ্ন, “ওঁ কি কেন্দ্রীয় সরকারের হয়ে কথা বলছেন কি? ওঁ কি বার্তা দিতে চাইছেন একজন উপাচার্য হয়ে?”

শিক্ষাবীদ অমল মুখোপাধ্যায় এ প্রসঙ্গে বলেন, “আজকে উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী যে কথাটি প্রকাশ্যে বলেছেন, গত ২৫ বছর ধরে আমার কাছে বিশ্বভারতীর উপাচার্যরা একই কথা বলেছেন, কিন্তু কেউই প্রকাশ্যে বলেননি। তাঁরা সকলেই বলেছিলেন, রবীন্দ্রনাথের আদর্শ ছিল এক। দুর্ভাগ্যক্রমে দেখা গিয়েছে, বিশ্বভারতীতে যাঁরা পড়ছেন, তাঁদের ৯০ শতাংশ বোলপুরের ছাত্রছাত্রী কিংবা বীরভূমের ছাত্রছাত্রী। তার ফলে বিশ্বভারতী প্রকৃতপক্ষে আজ আর বিশ্বভারতী নেই, এই কথাটাই ভাইস চ্যান্সেলর বলেছেন আর তিনি সঠিক কথা বলেছেন।”

উল্লেখ্য, এদিনের অনুষ্ঠান মঞ্চেই সাধারণতন্ত্র দিবসের ট্যাবলো বিতর্ক উঠে আসে তাঁর কথায়। কেন্দ্র-রাজ্য যে সংঘাত চলছে, সে প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “তাতে কি আদৌ গরিবের পেট ভরবে? কোথায় কী স্ট্যাচু হবে, কোথায় কোন ট্যাবলো যাবে এটা এখন বড় ইস্যু। এই ট্যাবলো যদি যেত বা বড় কোনও স্ট্যাচু তৈরি করা হত তাহলে যারা গরিব মানুষ রয়েছেন তাদের কি পেট ভরবে?” বিতর্ক উস্কে উলঙ্গ রাজার প্রসঙ্গও টেনে আনেন তিনি।

আরও পড়ুন: TMC Clash in Bolpur: ‘অনুব্রত-গড়েই’ ঘাসফুলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, দলেরই পুরনো কর্মীকে ‘মারধর’ নেতার

Follow us on

Related Stories

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 BANGLA