Digha: দিঘা যাওয়ার কথা ভাবছেন? এই দু’দিন নেওয়া হবে না কোনও হোটেল বুকিং

Digha: এই প্রসঙ্গে কাঁথির মহকুমা শাসক ও দিঘা শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের মুখ্য নির্বাহী আধিকারিক শৌভিক ভট্টাচার্য বলেন, "এই বিষয়ে প্রশাসন কিংবা পর্ষদের কোনও ভূমিকা নেই। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ মেনেই নির্বাচনের সময় বহিরাগত লোকজন হোটেলে না রাখার জন্যে বলা হয়েছে।"

Digha: দিঘা যাওয়ার কথা ভাবছেন? এই দু'দিন নেওয়া হবে না কোনও হোটেল বুকিং
দিঘায় বন্ধ বুকিংImage Credit source: TV9 Bangla
Follow Us:
| Edited By: | Updated on: May 23, 2024 | 11:47 AM

দিঘা: ভোটের সময় দিঘা বেড়াতে এসে সমস্যায় পড়তে পারেন পর্যটকরা। তাই নেওয়া হল বড় সিদ্ধান্ত। নির্বাচন কমিশনের গাইডলাইন অনুসারে, ভোট গ্রহণের দু দিন আগে থেকে এলাকায় বহিরাগত লোকজন থাকতে পারবেন না।

ষষ্ঠ দফার নির্বাচন ২৫ মে শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। যার কারণে ২৩ তারিখ থেকে হোটেলগুলি খালি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। যদিও এই নির্দেশের কথা মৌখিক ভাবে জানানো হলেও কোনও নোটিশ জারি করা হয়নি। যার কারণে নির্বাচনের সময় হোটেলে পর্যটক রাখা নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে হোটেল মালিকদের মধ্যে।

হোটেল সংগঠনগুলির কথায় গরমের ছুটি চলছে। যার কারণে উইকন্ডে শনি ও রবিবার প্রচুর পর্যটক ভিড় জমছে দিঘা ,শংকরপুর, মন্দারমণি,তাজপুরের সৈকতে। এই পরিস্থিতিতে নির্বাচনের সময় হোটেলে পর্যটক রাখা নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন হোটেল মালিকরা। দিঘা শঙ্করপুর হোটেলিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক বিপ্রদাস চক্রবর্তী বলেন, “পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশের কথা জানানো হয়েছে। বেড়াতে এসে পর্যটকরা যাতে সমস্যায় না পড়েন তার জন্যে ২৩ মে থেকে ২৫ মে পর্যন্ত কোনA বুকিং না নেওয়ার জন্যে হোটেল মালিকদের বলা হয়েছে।” তিনি আরও বলেন, “নির্বাচন কমিশনের গাইডলাইনের কথা বলা হলেও এই সংক্রান্ত কোনও নোটিশ পাইনি আমরা। যার কারণে অনেক বুঝতে পারছেন না। হোটেলে পর্যটক থাকলে কোনও সমস্যা হবে কি না। যারা হোটেল বুকিংয়ের কথা বলছেন তাদের ২৫ তারিখের পর বুকিং করার কথা বলা হচ্ছে।”

এই প্রসঙ্গে কাঁথির মহকুমা শাসক ও দিঘা শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের মুখ্য নির্বাহী আধিকারিক শৌভিক ভট্টাচার্য বলেন, “এই বিষয়ে প্রশাসন কিংবা পর্ষদের কোনও ভূমিকা নেই। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ মেনেই নির্বাচনের সময় বহিরাগত লোকজন হোটেলে না রাখার জন্যে বলা হয়েছে।”

ডিএসপি( ডিএন্ডটি) আবুনুর হোসেন বলেন, “কমিশনের গাইড লাইন মেনে চলার জন্যে হোটেল সংগঠনগুলিকে বলা হয়েছে। পাশাপাশি বহিরাগত আটকাতে দিঘার ওড়িশা বার্ডার এলাকায় নজরদারি ও চেকিং বাড়ানো হয়েছে। নজরদারি বাড়ানো হয়েছে উপকৃল এলাকা জুড়ে।”