‘…অসম্মান নয়, বন্ধুদের মধ্যে মজার কথা’, ভাস্বরকে ‘মিচকে শয়তান’ বলা প্রসঙ্গে প্রথমবার মুখ খুললেন রুদ্রনীল

ঠিক কী কারণে ভাস্বরকে 'মিচকে শয়তান' বলেছিলেন রুদ্রনীল? টিভিনাইন বাংলার এই প্রশ্নের জবাবে রুদ্রনীল বলেন, " আমার সত্যি মনে পড়ছে না, কারণ ভাস্বরের সঙ্গে আমার কোনওদিনও ঝগড়া, মনোমালিন্য হয়েছে এমনটা নয়।"

  • TV9 Bangla
  • Published On - 17:20 PM, 3 May 2021
'...অসম্মান নয়, বন্ধুদের মধ্যে মজার কথা', ভাস্বরকে 'মিচকে শয়তান' বলা প্রসঙ্গে প্রথমবার মুখ খুললেন রুদ্রনীল
রুদ্র-ভাস্বর

 

সকাল থেকেই সরগরম সোশ্যাল মিডিয়া। কারণ, ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়ের একটি ফেসবুক পোস্ট। ইন্ডাস্ট্রিতে ‘সাতে পাঁচে’ না থাকা নির্বিবাদী হিসেবে পরিচিত অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায় একটি পোস্ট করেছেন তাঁরই সতীর্থ রুদ্রনীল ঘোষকে নিয়ে। প্রকাশ্যে তাঁকে বলেছেন ‘ধান্দাবাজ’। কারণ, প্রায় ১৪ বছর আগে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা। অন্যদিকে ভাস্বরের পোস্টের পরিপ্রেক্ষিতে আবার মুখ খুললেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষও, প্রথমবার টিভিনাইন বাংলার কাছে।

২০০৭ সালে এক সাক্ষাৎকারে মিডিয়ার সামনে ভাস্বরকে ‘মিচকে শয়তান’ বলে উল্লেখ করেছিলেন রুদ্রনীল। সেই ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে এনেই এ দিন সকালে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে ভাস্বর লেখেন, “রুদ্রনীল তোর জন্য… ২০০৭-এ তুই মিডিয়াতে সাক্ষাৎকারে বলেছিলি আমি মিচকে শয়তান। হতে পারে তোর চোখে আমি তাই কিন্তু আমি এতদিনে একটা কথাও মিডিয়াতে বলিনি তোর বিরুদ্ধে। আজ বলি, আমি আর যাই হই তোর মতো ধান্দাবাজ নই।” এখানেই থামেননি ভাস্বর রুদ্রনীলকে কটাক্ষ করে তাঁর বক্তব্য, “তুই তো বড় মাপের অভিনেতা, কিন্তু জানিস তো অভিনেতা হোস বা নেতা, আগে ভাল মানুষ হতে হয়। নাহলে লোকের মনোরঞ্জন বা মানুষের জন্য কাজ করবি কী করে? তুই হেরে গিয়ে এক দিকে তোর মঙ্গল হয়েছে। ইন্ট্রোস্পেক্ট কর। ভাল মানুষ হয়ে ওঠ। দেখবি নিজেরই ভাল লাগবে। গেট ওয়েল সুন ডিয়ার।”


১৪ বছর একটা লম্বা সময়। এত বছর আগে ঘটে যাওয়া একটা ঘটনা নিয়ে এতদিন পর মুখ খোলায় কী বড্ড দেরি হল? মাঝের সময়গুলো কেন চুপ ছিলেন অভিনেতা? টিভিনাইন বাংলার তরফে ভাস্বরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “দু’টো জিনিস। আমি পায়ে পা দিয়ে ঝগড়া করি না। আর আমি সুযোগের অপেক্ষায় ছিলাম?” কীসের সুযোগ? রাজনীতির মঞ্চে রুদ্রনীলের হারের? ভাস্বরের কথায়, “না একেবারেই না, এই সুযোগ, মানুষকে অকারণে আঘাত না করাই ভাল। রুদ্র আমাকে চেনে না। আমিও রুদ্রকে চিনি না। কারণ আমরা বন্ধু নই। একটাই কাজ করেছি আমরা। ২০০৫ সালে একটি টেলিফিল্মে। তাই একটা কাজের পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায় না, কোন মানুষ মিচকে শয়তান আর কোন মানুষ ভগবান। আমি সত্যি কথা বলতে খুব অবাক হয়েছিলাম। শুধু মনে হচ্ছিল ও তো আমায় চেনে না, তাও কেন এ সব বলল। সে সময়ও মিডিয়া আমার কাছে জানতে চেয়েছিল, উত্তর চেয়েছিল। আমি বলিনি কিছু।”

আরও পড়ুন ‘অন্যকে রগড়াতে গিয়ে নিজেই কখন রগড়ে যাবেন.. ধরতে পারবেন না’, দুই ‘ঘোষ’কে নিয়ে পোস্ট সৃজিতের

ভাস্বর যোগ করেন,” ওকে আঘাত করা আমার উদ্দেশ্য নয়। ও কোন দল করল সেটাও ওর ব্যাপার। আমি শুধু ওকে এটাই বলতে চাই নিজেকে নিয়ে একটু ভাব। একটু ভাব আমি যা করছি তা কি ঠিক করছি। সে জন্যই ১৪ বছরের বনবাসের পর আমার মনে হল ওকে এবার বলা উচিত।”
ভাস্বরের পোস্টে তাঁর স্বপক্ষে যোগ হয়েছে অনেক কমেন্ট। অনেক কমেন্ট এসেছে ইন্ডাস্ট্রির সহকর্মীদের থেকেও।

কিন্তু ঠিক কী কারণে ভাস্বরকে ‘মিচকে শয়তান’ বলেছিলেন রুদ্রনীল? টিভিনাইন বাংলার এই প্রশ্নের জবাবে রুদ্রনীল বলেন, ” আমার সত্যি মনে পড়ছে না, কারণ ভাস্বরের সঙ্গে আমার কোনওদিনও ঝগড়া, মনোমালিন্য হয়েছে এমনটা নয়।” এর পর খানিক থেমে রুদ্রনীল আবার বলেন, “যতদূর মনে পড়ছে আমার মনে পড়ছে, বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বলে না মজার ছলে, ‘নিজেদের বন্ধুদের সম্পর্কে কিছু বল’… কে খুনসুটিবাজ, কে রাগী, তো সেই প্রসঙ্গেই মজা করে বলেছি এমনিতে দুষ্টুমি জানে ও, কিন্তু বড্ড চুপচাপ থাকে। তাতে তো কাউকে অসম্মান করা নয়। মিচকে কথাটা একেবারেই অসম্মান করা নয়, বন্ধুদের মধ্যে মজার কথা। এই মজার কথাকে ও অন্যভাবে কেন ধরছে ওই বলতে পারবে। ও আমার কাছে যেমন ছিল তেমনই আছে। আমার ওর উপর কোনও রাগ নেই, অভিযোগ নেই।”

আরও পড়ুন‘দিলীপ জেঠু দিলীপ জেঠু তোমার বাড়ি যাব…’, কবিতা লিখলেন ভাস্বর, পাল্টা রুদ্রনীল বললেন…

আর ভাস্বর? ভবিষ্যতে রুদ্রর সঙ্গে যদি এক ছবিতে কাজের অফার আসে? তিনি কী করবেন? করবেন কাজ? বললেন, “হ্যাঁ করব।, ক্যামেরার সামনে তো ব্যক্তিগত জীবনে যাই হোক না কেন তা এনে লাভ নেই। বাকি সময়টা না হয় দেওয়াল হয়ে থাকবে। কোনও চাপ নেই আমার।” ভোটের আঁচ ক্রমশ ঠান্ডা হওয়ার পথে, সমস্ত উত্তাপ যেন এক লহমায় কেড়ে নিচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াই।