নির্বাচনের আগেই দলবিরোধী কার্যকলাপের অভিযোগে বহিষ্কৃত ১১ বিজেপি নেতা

বহিষ্কারের কারণ হিসাবে বিজেপির মুখপাত্র সুব্রত চক্রবর্তী(Subrata Chakraborty) বলেন, "দলের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করা, নিয়মবিধি ভঙ্গ ও দলবিরোধী কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বহিষ্কৃত নেতারা। দলের অভ্যন্তরে এই বিষয়ে তদন্ত করার পরেই তাঁদের বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।"

নির্বাচনের আগেই দলবিরোধী কার্যকলাপের অভিযোগে বহিষ্কৃত ১১ বিজেপি নেতা
প্রতীকী চিত্র।

আগরতলা: নির্বাচনের মুখেই দল থেকে ১১ জন নেতাকে বহিষ্কার করল বিজেপি(BJP)। ছয় মাস বা এক বছরের জন্য নয়, দলবিরোধী কার্যকলাপের জন্য আগামী ছয় বছরের জন্য দল থেকে বহিষ্কার (Expel) করা হল।

বৃহস্পতিবার ত্রিপুরা বিজেপির মুখপাত্র সুব্রত চক্রবর্তী (Subrata Chakraborty) জানান, বহিষ্কৃত ১১ জন নেতাই উপজাতি অধ্যুষিত স্বশাসিত জেলা পরিষদ নির্বাচনের দিন ঘোষণার পরই দলবিরোধী কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। বহিষ্কৃত নেতাদের মধ্যে অধিকাংশই উনোকোটি, ধালাই ও খোয়াই জেলার নির্বাচনী কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। এদের মধ্যে দুইজন মন্ডল প্রেসিডেন্ট ও অন্যান্য কার্যকর্তারাও রয়েছেন।

আরও পড়ুন: মেয়াদ বাড়ল কার্ফুর, করোনা নিয়ে কঠোর ক্যাপ্টেন

বহিষ্কারের কারণ হিসাবে তিনি বলেন, “দলের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করা, নিয়মবিধি ভঙ্গ ও দলবিরোধী কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বহিষ্কৃত নেতারা। দলের অভ্যন্তরে এই বিষয়ে তদন্ত করার পরেই তাঁদের বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।”

সূত্র অনুযায়ী, স্বশাসিত জেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজেপি আইপিএপটির সঙ্গে জোট বাধার পরই দলের শাখা সংগঠন জনজাতি মোর্চা ও একাধিক বিজেপি কর্মীরা ক্ষুব্ধ ছিলেন। এরইমাঝে আসন রফাতেও আইপিএফটিকে প্রাধান্য দেওয়ায় তাঁদের ক্ষোভ আরও বৃদ্ধি পায়। এর আগেও জনজাতি মোর্চার প্রধান রেবতী ত্রিপুরা ও ১০ জন বিধায়ক বিজেপির শীর্ষনেতৃত্বের কাছে চিঠি লিখে আইপিএফটির সঙ্গে জোটের বিরোধিতা করেন।

আরও পড়ুন: ‘দিল্লি, ত্রিপুরাতে যা হয়েছে, এখানেও তাই হবে’, নির্বাচনে ৭০ আসন নিয়ে আত্মবিশ্বাসী মেট্রোম্যান

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla