Basirhat: স্বামীর পাঠানো টাকা চাইতে গিয়েছিলেন! ভাসুরের হাতে মার জুটল মহিলার

women harassment: এখানেই শেষ নয়, ৪ বছরের পুত্র সন্তানের মেলেনি রেহাই। তাঁকেও মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ।

Basirhat: স্বামীর পাঠানো টাকা চাইতে গিয়েছিলেন! ভাসুরের হাতে মার জুটল মহিলার
ভাসুরের হাতে মার খেলেন ভাইয়ের বউ (প্রতীকী ছবি)

বসিরহাট: পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে খুন,মারধরের ঘটনা আকছাড় খবরে আসেই। এইবারও সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। স্বামীর পাঠানো টাকা ভাসুরের কাছে চাইতে গিয়ে বচসায় জড়ালেন মহিলা। টাকাতো পেলেনা না উল্টে জুটল মার। এমনকী অভিযুক্ত ভাসুর ওই মহিলার শ্লীলতাহানী করছেন বলেও অভিযোগ।

ঘটনাস্থান বসিরহাট মহকুমার হাসনাবাদ। বছর তেইশের এক গৃহবধূ তাঁর ছেলেকে নিয়ে নিজের বাড়িতে থাকতেন। ওই যুবতীর স্বামী কর্মসূত্রে বাড়ির বাইরে থাকেন। তিনি যা রোজগার করেন সেই টাকা পাঠান নিজের দাদার কাছে। এইপরই শুরু হয় সমস্যা। অর্থ নিয়ে ভাইয়ের বউয়ের সঙ্গে হয় হিসেবের গড়মিল। অভিযোগ, জমানো অর্থও বউমাকে দিতে নারাজ ভাসুর। অর্থ চাইতে গেলে সেই নিয়ে একাধিকবার বাধে বচসা, গণ্ডগোল ও ঝামেলা। বেরোয়নি কোনও সমাধান সূত্র।

এরপর আজ সকালে টাকা নিয়ে ফের বাধে অশান্তি। জলখাবার তৈরির সময় ভাসুরের সঙ্গে বচসা ও গণ্ডগোল হয় যুবতীর। অভিযোগ সেই সময় ওই গৃহবধূকে বেধড়ক মারধর করে অভিযুক্ত। এমনকী ঘর ভাঙচুর করে তাঁকে বাইরে বের করেও দেওয়া হয়। এখানেই শেষ নয়, ৪ বছরের পুত্র সন্তানের মেলেনি রেহাই। তাঁকেও মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ।

পুজোর জন্য ছুটি নিয়ে বাড়িতে এসেছিলেন ওই যুবতীর স্বামী । আজকের গণ্ডগোলের সময় দোকানে গিয়েছিলেন তিনি। সেই সুযোগেই এই ঝামেলা,মারধর ও ভাঙচুর চালানো হয় বলেই দাবি গৃহবধূর। পাশাপাশি যুবতীর জামা-কাপড় ছিঁড়ে দেওয়াও অভিযোগ উঠেছে ওই ভাসুরের বিরুদ্ধে।

বাড়িতে এসে যুবতীর স্বামী দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ির সামনে পড়ে রয়েছে তাঁর স্ত্রী। এরপর তাঁকে উদ্ধার করে টাকি গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অভিযুক্ত ভাসুরের বিরুদ্ধে মারধর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ করা হয়েছে থানায়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে হাসনাবাদ থানার পুলিশ। এর পেছনে অন্য কোনও কারণ আছে কিনা সেটাও তদন্তে রাখছে হাসনাবাদ থানার পুলিশ।

মালদায়ও কয়েকমাস আগে এইরকমই ঘটনা সামনে আসে। দাদাকে টাকা ধার দিয়েছিল ভাই। কিন্তু অনেকদিন কেটে যাওয়ার পরও সেই টাকা না মেলায় দাদার কাছে পাওনা টাকা চাইতে যান তিনি। আর সেখানেই হলো বিপত্তি। ধারের টাকা শোধ করা তো দূর, উল্টে ভাইকে খুনের চেষ্টা অভিযোগ উঠল দাদার বিরুদ্ধে।

আক্রান্ত ভাইয়ের নাম সুজিত হালদার। স্থানীয় সূত্রে খবর, দু’মাস আগে ভাই সুজিত হালদারের থেকে প্রায় ৪০ হাজার টাকা ধার নেয় তপন হালদার। সেই টাকার মধ্যে থেকে ২০ হাজার টাকা শোধ দিয়ে দেন তিনি। কিন্তু বাকি ২০ হাজার টাকা না মেলায় দাদার থেকে টাকা চাইতে যান সুজিত। এরপরই ঘটে যায় দুর্ঘটনা। পাওনা টাকা চাইতেই রেগে যান তপনবাবু। ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুনের চেষ্টার অভিযোগ উঠল তার বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন: Petrol-Diesel Price Today: ১৭ দিনে ১৪ বার বেড়েছে জ্বালানির দাম, আজও দাম বাড়ল কলকাতার পেট্রোলের

 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla