পড়ে রইল কেক, হাসপাতালে জন্মদিন উদযাপন করতে এসে বিক্ষোভের মুখে নির্মল মাজি

Nirmal Maji: তৃণমূলপন্থী চিকিৎসক পড়ুয়ারাই হাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি হাতে তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভের প্রস্তুতি হচ্ছে দেখেই গাড়ি নিয়ে তড়িঘড়ি হাসপাতাল ছাড়লেন চিকিৎসক বিধায়ক। পড়ে থাকল জন্মদিনের কেক।

পড়ে রইল কেক, হাসপাতালে জন্মদিন উদযাপন করতে এসে বিক্ষোভের মুখে নির্মল মাজি
ফের বিতর্কে নির্মল মাজি। ফাইল ছবি


কলকাতা: জন্মদিনেও (Birth Day) বিতর্ক পিছু ছাড়ল না নির্মল মাজি (Nirmal Maji)-র। কলকাতা মেডিকেল কলেজে প্রগ্রেসিভ ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের অফিসে কেক কেটে জন্মদিন পালনের পরিকল্পনা করেছিলেন তৃণমূলের চিকিৎসক বিধায়ক। কিন্তু তৃণমূলপন্থী চিকিৎসক পড়ুয়ারাই হাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি হাতে তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভের প্রস্তুতি হচ্ছে দেখেই গাড়ি নিয়ে তড়িঘড়ি হাসপাতাল ছাড়লেন চিকিৎসক বিধায়ক। পড়ে থাকল জন্মদিনের কেক।

এদিন নির্মল মাজির জন্মদিন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট প্রগ্রেসিভ ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের অফিসে কেক, ফুল আবার কেউ কেউ তাঁকে উপহার দেওয়ার জন্য হাতঘড়িও নিয়ে এসেছিলেন। তাঁরা ওই অফিসের সামনে ফুল নিয়ে ওই চিকিৎসক বিধায়ককে অভ্যর্থনা জানানোর জন্য দাঁড়িয়ে ছিলেন। কিন্তু তাঁদের সেই জন্মদিন পালনের ইচ্ছা ভেস্তে গেল চিকিৎসক পড়ুয়াদের বিক্ষোভের জেরেেই। বিক্ষোভকারীদের দাবি, কোভিডকালে হাসপাতাল চত্বরে কখনও রাখিবন্ধন উৎসব, কখনও জন্মদিন পালন করতে চান নির্মল মাজি। যা একেবারেই ঠিক নয় বলে তাঁদের মত। এই প্রেক্ষিতে তৃণমূল বিধায়ক তথা চিকিৎসক নির্মলবাবু হাসপাতালে আসার আগেই বিক্ষোভের প্রস্তুতি নিচ্ছেলেন তৃণমূল পন্থী চিকিৎসক পড়ুয়ারা।়

এদিকে সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরা দেখে রীতিমতো ঘরের মধ্যে ছুট দিতে দেখা যায় চিকিৎসক বিধায়কের জন্মদিনের অনুষ্ঠানের আয়োজনকারীদের। অন্যদিকে নির্মল মাজি তখন গাড়ি ঘুরিয়ে কলেজ স্ট্রিটের গেটের দিকে ছুটছেন। বিক্ষোভরত তৃণমূল পন্থী চিকিৎসক পড়ুয়াদের কথায়, “কলকাতা মেডিকেল কলেজে কোভিড আক্রান্তদের চিকিৎসা হচ্ছে। এখন করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে প্রত্যেকে চিন্তিত। সেখানে হাসপাতালের ভিতর জন্মদিন পালন করবেন কেউ, তাও আবার ধুমধাম করে সেটা অন্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই হাসপাতালে উন্নয়নে অনেক কাজ করেছেন। কিন্তু দলের কারও কারও এই ধরনের আচরণে ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে আমাদের দলের নেত্রীর।” জন্মদিনে এমন অপ্রত্যাশিত বিক্ষোভের প্রেক্ষিতে নির্মল মাঝির অবশ্য কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, এর আগে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে মাইক বাজিয়ে রাখিবন্ধন উৎসব উদযাপন করা এবং সেখানে চিকিৎসক-বিধায়ক তথা রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলের সভাপতি নির্মল মাজির উপস্থিতি নিয়ে তীব্র বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। সেবার ‘দর্শকের’ সংখ্যাও নেহাত কম ছিল না। অথচ অনুষ্ঠানের ‘মধ্যমণি’ নির্মল মাজি-সহ চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদেরও একাংশের মুখে ছিল না মাস্ক। স্বাস্থ্যবিধিও শিকেয় ওঠে নাচে-গানে জমজমাট রাজ্যের প্রথম সারির সরকারি কোভিড হাসপাতাল চত্বরে। অতিমারির আবহে এই ধরনের কাণ্ড স্বভাবতই বিতর্ক তৈরি করেছে। সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না হয় তাই আগেভাগেই বিক্ষোভের প্রস্তুতি নেন কয়েকজন পড়ুয়া।

সংগঠনের প্রতিনিধিদের বক্তব্য, সংক্রমণ বাড়তে পারে এই আশঙ্কায় লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করা হয়নি। এখনও বন্ধ স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ও। সেখানে রাজ্যের প্রথম সারির কোভিড হাসপাতাল তথা মেডিক্যাল কলেজে এ ধরনের উৎসব পালন অনভিপ্রেত।

আরও পড়ুন: WB Fever: দশ রকমের জ্বর কাঁপুনি ধরাচ্ছে বাংলাকে, কী লক্ষণ, কী করবেন জেনে নিন

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla