Uttarakhand: হিমালয়ের অন্য এক দৃশ্যের সাক্ষী হতে পারেন কুমায়নের এই গ্রাম থেকে!

এরকম আরও পৌরাণিক কাহিনির সাক্ষী হতে পারেন এই মুন্সিয়ারিতে। তার সঙ্গে রয়েছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। কেউ যদি ট্রেকিংয়ে ইচ্ছুক হন, তাহলে মুন্সিয়ারি হতে পারে আপনার সেরা পছন্দ।

Uttarakhand: হিমালয়ের অন্য এক দৃশ্যের সাক্ষী হতে পারেন কুমায়নের এই গ্রাম থেকে!
মুন্সিয়ারি থেকে পঞ্চচুল্লির দৃশ্য

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, রোমাঞ্চকর রাস্তা আর পৌরাণিক কাহিনির খোঁজে যদি থাকেন, তাহলে ঘুরে আসতে পারেন উত্তরাখণ্ডের মুন্সিয়ারি। পিথোরাগড় জেলার কুমায়ন অঞ্চলের মধ্যে অবস্থিত এই মুন্সিয়ারি। উত্তরাখণ্ডের এই গ্রাম থেকে আপনি হিমালয়ের এক অন্য রূপ দেখতে পেতে পারেন।

নন্দাদেবী, নন্দাকোট, রাজারম্ভার এবং পঞ্চচুল্লির মত শৃঙ্গ দেখতে চাইলে মুন্সিয়ারির থেকে সেরা জায়গা ভূ-ভারতে আপনি পাবেন না। উত্তরাখণ্ডে দেবতাদের বাস থাকায় একে বলা হয় দেবভূমি। এই দেবভূমিরই আর এক অংশ হল মুন্সিয়ারি। এই মুন্সিয়ারির সঙ্গে যোগ রয়েছে মহাভারতের। কথিত আছে, পাণ্ডবরা নাকি এই মুন্সিয়ারি থেকে স্বর্গের পথে রওনা হয়েছিলেন৷ স্বর্গ যাওয়ার আগে পঞ্চচুল্লিতেই তাঁরা রেঁধে ছিলেন। যার জন্য পাঁচটি শৃঙ্গের এই পাহাড়ের নাম পঞ্চচুল্লি। পঞ্চ অর্থাৎ পাণ্ডব এবং চুল্লি যার অর্থ উনুন।

birthifalls

বিরথি জলপ্রপাত

এরকম কিছুটা গল্প রয়েছে নন্দাদেবীর। এই পাহাড় পর্বতগুলির দৃশ্য আরও মনোরম ভাবে দেখার জন্য রয়েছে নন্দাদেবীর মন্দির; যেখানে লুকিয়ে আছে আরেকটি পুরাণ কাহিনি। এরকম আরও পৌরাণিক কাহিনির সাক্ষী হতে পারেন এই মুন্সিয়ারিতে। তার সঙ্গে রয়েছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। কেউ যদি ট্রেকিংয়ে ইচ্ছুক হন, তাহলে মুন্সিয়ারি হতে পারে আপনার সেরা পছন্দ। এই গ্রাম থেকে আপনি খালিয়া টপের মত জায়গায় ট্রেক করতে যেতে পারেন। এর জন্য পোর্টা‌র সহ যাবতীয় ট্রেকিংয়ের সরঞ্জাম মুন্সিয়ারির বাজারেই পেয়ে যাবেন।

তিব্বতের প্রাচীন সল্ট রুটটিও গেছে এই গ্রাম ছুঁয়ে। তবে এই গ্রাম পৌঁছানোর জন্য পেরোতে হয় কালামুনি টপ। এই পাসের উচ্চতা প্রায় ৯০০০ মিটারেরও বেশি এবং সেই উচ্চতা থেকে উত্তরাখণ্ডের আর এক দৃশ্য ধরা দিতে পারে আপনার চোখে। তবে কালামুনি টপ যাওয়ার আগে মুন্সিয়ারির প্রায় ৩৫ কিলোমিটার আগে রয়েছে বিরথি জলপ্রপাত। ১২০ মিটার উচ্চ এই জলপ্রপাত পর্যটকদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়।

kalamuni pass

কালামুনি পাস

কাঠগোদাম থেকে লোহাঘাটে হয়ে সোজা চলে যেতে পারেন মুন্সিয়ারি। কিংবা চোকৌড়িতে এক রাত কাটিয়েও পৌঁছে যেতে পারেন মুন্সিয়ারি। নভেম্বর ডিসেম্বর মাস থেকেই এখানে বরফ পড়া শুরু হয়ে যায়। সুতরাং সময় গেলে হয়তো ট্রেকিংয়ের সুযোগ মিস হয়ে যেতে পারে। তাই চেষ্টা করুন শীতের আগেই মুন্সিয়ারি ঘুরে আসার।

আরও পড়ুন: উত্তরাখণ্ডে বেড়াতে গেলে বাকেট লিস্টে রাখুন নন্দা দেবীর মন্দিরকে!

আরও পড়ুন:  পুজোয় সিকিম যাবেন ভাবছেন? ঘুরে আসুন দক্ষিণে

আরও পড়ুন: বিদেশি পর্যটকদের ভিসা দেওয়ার কথা ঘোষণা করল নেপাল সরকার, তবে তার আগে কিছু শর্ত মেনে চলতে হবে!

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla