Maldah Drug Smuggling: ধাওয়া করতেই পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি মাদক কারবারির, ফের সীমান্তে চাঞ্চল্য

Maldah Drug Summglers: গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ায়. গুলিবিদ্ধ হয়েছেন অন্য এক স্থানীয় যুবক। তাঁর তলপেটে গুলি লেগেছে বলে খবর। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

Maldah Drug Smuggling: ধাওয়া করতেই পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি মাদক কারবারির, ফের সীমান্তে চাঞ্চল্য
পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি (প্রতীকী ছবি)

মালদা: মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানে গিয়েছিলেন। পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিচালনার অভিযোগ উঠল এক মাদক কারবারির বিরুদ্ধে। ঘটনাকে ঘিরে উত্তেজনা মালদার কালিয়াচকের বালিয়াডাঙায়। তবে গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ায়. আহত হয়েছেন অন্য এক স্থানীয় যুবক। তাঁর তলপেটে গুলি লেগেছে বলে খবর। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গুলিবিদ্ধ যুবকের নাম রাজীব শেখ। বছর ষোলোর রাজীবের বাড়ি বৈষ্ণবনগর থানার কুম্ভীরাতে। অভিযুক্ত মাদক কারবারিকেও ধাওয়া করে ধরে ফেলেছে পুলিশ। ধৃতের নাম আসমাউল শেখ। তার বাড়ি কালিয়াচকের কলেজ মোড়ে।

পুলিশের দাবি, ধৃতের কাছ থেকে একটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারের পাশাপাশি উদ্ধার হয়েছে প্রায় ৪০০ গ্রাম ব্রাউন সুগার। তবে ওই কারবারির সঙ্গে থাকা আরও এক কারবারি পালিয়ে যায়। তার খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে কালিয়াচক থানার পুলিশ।

প্রসঙ্গত, সীমান্তে বেশ কয়েক মাস ধরেই অতিসক্রিয় হয়ে উঠেছে পাচারকারী, মাদরক কারবারিরা। চলতি মাসের ১১ তারিখেই ভারত বাংলাদেশে সীমান্তে নদীর হাঁটু জলে এক বিএসএফ জওয়ানের দেহ উদ্ধার হয়। গরু পাচারকারীদের হাতে খুন বলেই প্রাথমিক অনুমান বিএসএফ-এর। নিহত বিএসএফ জওয়ানের নাম বিবেক তেওয়ারি (৩৬)। এই ঘটনার পর মঙ্গলবার থেকে বামনগোলা থানা এলাকার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে নজরদারি আরও জোরদার করা হয়।

বিএসএফ সূত্রে খবর, বেশ কয়েক মাস ধরেই মালদার সীমান্তবর্তী এলাকা হবিবপুর, বামনগোলা এলাকায় পাচারকারী, মাদক কারবারিরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। গত শুক্রবারই ওই এলাকার হবিবপুরের ১৫৯ব্যাটালিয়নের জওয়ানদের গুলিতে এক বাংলাদেশি পাচারকারীর মৃত্যু হয়। এরপরেই বামনগোলা ব্লকের ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে খুটাদহ ক্যাম্পের ধারে নদীতে এই বিএসএফ জওয়ানের মৃতদেহ উদ্ধার ঘিরে গোটা এলাকা জুড়েই চাঞ্চল্য ছড়ায়। তার কয়েকদিনের মধ্যেই এই ধরনের ঘটনায় আতঙ্কিত এলাকাবাসীরাও।

বিএসএফ ও পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে, সীমান্তে পাচারের ক্ষেত্রে নিত্য নতুন কায়দা আবিষ্কার করছে পাচারকারীরা। সেক্ষেত্রে পাচারে বাধা পেলে আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে তারা। বিএসএফ, পুলিশের ওপরই ইট, লাঠি, বাঁশ, লোহার রড নিয়ে হামলা চালায়। বেপরোয়া ইট ছুড়তে ছুড়তে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে তারা। এক্ষেত্রেও মাদক পাচারকারীকে ধরতে গিয়ে আক্রমণের মুখে পড়তে হয় পুলিশকে। তবে এটাও দেখার বিষয়, এই ভাবে পাচারকারী, মাদক কারবারিদের হাতে অস্ত্র পৌঁছে দিচ্ছে কারা, সেক্ষেত্রে কোনও একটি চক্র ভীষণভাবে সক্রিয়। তদন্তকারীরা মনে করছেন, জাল ছড়িয়ে রয়েছে অনেকদূর। সেক্ষেত্রে যারা ধরা পড়ে, তারা নিজেরাও অনেক ক্ষেত্রে চাঁইয়ের নাম বলতে পারে না। তাদেরও জানা থাকে না।

আরও পড়ুন: শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি সর্ষে আর আলুর, দুর্বিসহ অবস্থায় কৃষকরা

আরও পড়ুন: ‘কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় গুরুত্ব পাচ্ছেন না, শীঘ্রই হয়ত বের করে দেওয়া হবে’, দাবি অর্জুনের

Related News

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla