‘আমাকে লকেটের মতো দেখতে হয়ে যায়নি,’ কেন ফোঁস করলেন শিলাজিৎ? ভ্রম সংশোধন গুগলের…

Silajit: গুগলে 'অযোগ্য' ছবির কাস্ট লিস্ট সার্চ করলে শিলাজিৎ মজুমদারের ছবির জায়গায় দেখা যাচ্ছিল লকেট চট্টোপাধ্যায়ের ছবি। বিষয়টি ভাইরাল নেটমহলে। নেটজুড়ে স্ক্রিন শটের ছড়াছড়ি, হাসাহাসি। শিলাজিৎকেও মেসেজ করে বিষয়টি জানিয়েছেন অনেকে। অতিষ্ট তারকা ফোঁস করলেন নিজ কায়দায়। অবিলম্বে ভ্রম সংশোধন গুগলের।

'আমাকে লকেটের মতো দেখতে হয়ে যায়নি,' কেন ফোঁস করলেন শিলাজিৎ? ভ্রম সংশোধন গুগলের...
শিলাজিৎ মজুমদার।
Follow Us:
| Updated on: Jul 11, 2024 | 10:52 AM

চলতি জুলাই মাসের ৭ তারিখ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় ‘অযোগ্য’। ছবিতে রক্তিমের চরিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনেতা-গায়ক শিলাজিৎ মজুমদার। অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর (চরিত্রের নাম পর্ণা) স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। রয়েছেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্য়ায়ও (চরিত্রের নাম প্রসেন)। এটি প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা জুটির ৫০ নম্বর ছবি। ছবি সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে এবং ছবির কাস্ট সম্পর্কে জানতে যদি গুগলে সার্চ করা হয়, তা হলে ক্রেডিট লিস্টে ছবিসহ যে নামগুলি দেখা যাচ্ছে, তা দেখে অনেকেই থমকে যান। হাসাহাসিও হয় খুব। বিষয়টা এটাই–লিস্টে শিলাজিতের নাম আছে, কিন্তু ছবি দেওয়া হয় অভিনেত্রী-রাজনীতিক লকেট চট্টোপাধ্যায়ের। বিষয়টি নিয়ে এবার সরব হয়েছেন শিলাজিৎ স্বয়ং। তিনি বিরক্ত হলেও, বিষয়টিকে নিয়ে রসিকতা করেছেন পরিচিত কায়দায়।

শিলাজিতের ছবি বিভ্রাট নিয়ে তাঁকে নানা জনে মেসেজ করেছেন বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে। সমাধানের রাস্তা খোঁজেন অভিনেতা-গায়ক। পরিচয় কেলেঙ্কারির স্ক্রিনশট পোস্ট করে শিলাজিৎ লিখেছেন, “গতকাল থেকে আমাকে মেসেঞ্জারে, হোয়াট্সঅ্যাপে, ইনস্টাগ্রামে বিভিন্ন মানুষ এই ছবিটা পাঠাচ্ছেন, নানারকম টেক্সট করে। এটা কীভাবে সম্ভব আমি জানি না। কে বা কারা বা কোন যন্ত্রের গাফিলতিতে এটা হচ্ছে আমি জানি না। এটা আমার যেমন সমস্যা, তেমনই লকেটেরও (লকেট চট্টোপাধ্যায়)। কিন্তু সবাইকে জনে-জনে উত্তর দিতে পারছি না। আমার পেজেই বললাম।”

এই নিয়ে হাসাহাসির শেষ নেই। বিষয়টিকে যান্ত্রিক গোলযোগের আখ্যাও দিয়েছেন তিনি। রসিকতা করেই শিলাজিৎ লিখেছেন, “অত দুশ্চিন্তার কোনও কারণ নেই। কোনও একটা গ্লিচ হচ্ছে। আমাকে বদলে দেওয়া সম্ভব নয়। আমি যে রকম ছিলাম, সে রকমই আছি। একটা ছবি কি আর সব বদলে দেবে? আপনারা দুশ্চিন্তা করবেন না…”। মজা করে এও জানিয়েছেন, তাঁকে তাঁর মতোই দেখতে আছে। তিনি আয়না দেখেছেন ঘুম থেকে উঠে। লিখেছেন, “আপনাদেরও ঘুম নষ্ট করবেন না এই ছবি কেলেঙ্কারি নিয়ে।”

এই খবরটিও পড়ুন

আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ কথা লিখেছেন শিলাজিৎ। তাঁর সাফ বক্তব্য, যে কোনও বিষয়ে খোঁজখবরের জন্য যেন কেউ গুগলকে চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস না করেন। নিজের বুদ্ধির উপরই যেন ভরসা রাখেন। শিলাজিতের সংযোজন, “গুগল সব সময় সঠিক বলতে পরে না। তবে কেউ যদি এই ব্যাপারে শিক্ষিত হন, এটা কীভাবে বদলানো যায়, তার সমাধান যদি জানা থাকে, দিতে পারেন। এই টুকুই!”

এই ঘটনার পর ভ্রম সংশোধন করা হয়েছে। গুগলে ‘অযোগ্য’ ছবির কাস্ট লিস্ট সার্চ করলে সঠিক তথ্যই মিলছে এখন। অভিনেত্রী-রাজনীতি লকেট চট্টোপাধ্যায়ের ছবি সরিয়ে শিলাজিতের একটি ঝকঝকে ছবি দেওয়া হয়েছে।