চার বিরোধী প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলের দাবি তৃণমূলের! ঠিক কী অভিযোগ?

বুধবার শিলিগুড়ি মহকুমাশাসক তথা শিলিগুড়ির রিটার্নিং অফিসারের কাছে নির্দল-সহ বিরোধী রাজনৈতিক দলের চার প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলের অভিযোগ জানাল দার্জিলিং জেলা তৃণমূল কংগ্রেস (TMC)।

চার বিরোধী প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলের দাবি তৃণমূলের! ঠিক কী অভিযোগ?
নিজস্ব চিত্র

শিলিগুড়ি: নির্দল-সহ বিরোধী রাজনৈতিক দলের চার প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের (Election Commission) কাছে মনোনয়ন বাতিলের অভিযোগ জানাল দার্জিলিং জেলা তৃণমূল কংগ্রেস (TMC)।

বুধবার শিলিগুড়ি মহকুমাশাসক তথা শিলিগুড়ির রিটার্নিং অফিসারের কাছে এ নিয়ে অভিযোগ দায়ের করে তৃণমূল নেতৃত্ব। তাদের এই অভিযোগকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায় রাজনৈতিক মহলে। নির্বাচন কমিশন এবং তৃণমূল কংগ্রেস শিবির সূত্রে জানা গিয়েছে, মাটিগাড়া নকশালবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী আনন্দময় বর্মন, সংযুক্ত মোর্চা সমর্থিত কংগ্রেস প্রার্থী শঙ্কর মালাকার, শিলিগুড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী শঙ্কর ঘোষ এবং নির্দল প্রার্থী নান্টু পালের বিরুদ্ধে নির্বাচন মনোনয়ন বিধি ভঙ্গের অভিযোগ তুলেছে ঘাসফুল শিবির। কিন্তু ঠিক কী অভিযোগ তাঁদের?

তৃণমূলের নেতৃত্বর অভিযোগ, শিলিগুড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী শঙ্কর ঘোষ এবং মাটিগাড়া নকশালবাড়ির বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী আনন্দময় বর্মন সরকারি বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক পদে কর্মরত। শঙ্কর ঘোষ শিলিগুড়ির বিবেকানন্দ উচ্চবিদ্যালয় এবং আনন্দময় বর্মন উত্তর দিনাজপুরের চোপড়ার যতীন সিং স্মৃতি উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক পদে কর্মরত। দু’জনেই শিক্ষা দফতর, স্কুল কর্তৃপক্ষ বা স্কুলের পরিচালন সমিতির কাছ থেকে বিধানসভা নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য অনুমতি নেননি এবং তা নির্বাচনী বিধি লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ করেন জেলা তৃণমূল সভাপতি রঞ্জন সরকার।

অন্যদিকে, শিলিগুড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের নির্দল প্রার্থী নান্টু পাল শিলিগুড়ির কৃষ্ণমায়া মেমোরিয়াল হাইস্কুলের পরিচালন সমিতির সরকার মনোনীত সদস্য। তিনিও সেই সদস্যপদ থেকে ইস্তফা না দিয়ে নির্বাচনে মনোনয়ন জমা করেছেন বলে অভিযোগ। তাই তাঁরও মনোনয়ন বাতিলের দাবি তুলেছে ঘাসফুল শিবির।

মাটিগাড়া নকশালবাড়ির প্রাক্তণ কংগ্রেস বিধায়ক তথা এবারের সংযুক্ত মোর্চা সমর্থিত কংগ্রেস প্রার্থী শঙ্কর মালাকারের তফশিলি শংসাপত্রর বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানিয়েছে তারা। অভিযোগ, শঙ্কর মালাকারের তফশিলি জাতি হওয়ার শংসাপত্রটিই জাল। ওই জাল সার্টিফিকেট দিয়েই দু’বার বিধায়ক হয়েছেন তিনি! সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছেন শঙ্কর মালাকার বলে অভিযোগ রঞ্জন সরকারের। যদিও এ নিয়ে মামলা চলছে এবং আদালতের স্থগিতাদেশ রয়েছে বলে পাল্টা দাবি করেছেন শঙ্কর মালাকার।

আরও পড়ুন: ‘আমাকে খুনের পরিকল্পনা করেছিল তৃণমূল’, চাঞ্চল্যকর অভিযোগ শুভ্রাংশুর

এদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের তোলা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন বিরোধী দলের প্রার্থীরা। তাঁদের দাবি, নির্বাচনে হারের আভাস পেয়ে এখন যেনতেন প্রকারে বাঁচতে চাইছে তৃণমূল।