Election Commission: হিমাচলের সঙ্গেই কেন দিন ঘোষণা হল না গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের? প্রশ্ন বিরোধীদের, জবাব দিল কমিশনও

TV9 Bangla Digital

TV9 Bangla Digital | Edited By: ঈপ্সা চ্যাটার্জী

Updated on: Oct 15, 2022 | 7:37 AM

Gujarat Assembly Election 2022: নির্বাচন কমিশনের মুখ্য কমিশনার রাজীব কুমার বলেন, "দুই রাজ্যের বিধানসভার মেয়াদ শেষ হওয়ার মধ্যে ৪০ দিনের ব্যবধান রয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী, ৩০ দিনের ব্যবধান থাকতে হয়, যাতে এক রাজ্যের নির্বাচনের প্রভাব অন্য রাজ্যে না পড়ে।"

Election Commission: হিমাচলের সঙ্গেই কেন দিন ঘোষণা হল না গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের? প্রশ্ন বিরোধীদের, জবাব দিল কমিশনও
মুখ্য নির্বাচন কমিশনার রাজীব কুমার।

নয়া দিল্লি: বছরের শেষেই দুই রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন- হিমাচল প্রদেশ ও গুজরাট। শুক্রবারই নির্বাচন কমিশনের তরফে হিমাচল প্রদেশের নির্বাচন ও ফল প্রকাশের দিন ঘোষণা করা হয়। ওই সাংবাদিক বৈঠক থেকে গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণার জল্পনা থাকলেও, গুজরাটের নির্বাচন নিয়ে কোনও ঘোষণা করেনি নির্বাচন কমিশন। এরপরই উঠেছে একাধিক প্রশ্ন। বছরের শেষে যখন দুই রাজ্যে নির্বাচন, তবে এখন শুধু এক রাজ্যের নির্বাচনের দিনক্ষণই কেন ঘোষণা করা হল, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা। তবে যাবতীয় প্রশ্নের জবাব দিয়ে জাতীয় নির্বাচন কমিশনের মুখ্য কমিশনার রাজীব কুমার জানালেন, কোনও নিয়মই ভঙ্গ করা হয়নি। হিমাচল প্রদেশের সঙ্গে গুজরাটের বিধানসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা না করার পিছনে যথাযথ কারণ রয়েছে।

আগামী ছয় মাসের মধ্যে হিমাচল প্রদেশ ও গুজরাট- দুই রাজ্যেই বিধানসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে। সাধারণত পরপর দুই রাজ্যে নির্বাচন থাকলে, নির্বাচন কমিশনের তরফে একসঙ্গেই নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করা হয়। কিন্তু এবারে তা হয়নি। শুক্রবার হিমাচল প্রদেশের নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করা হলেও, গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের দিন জানানো হয়নি।

নির্বাচন কমিশনের মুখ্য কমিশনার রাজীব কুমার বলেন, “দুই রাজ্যের বিধানসভার মেয়াদ শেষ হওয়ার মধ্যে ৪০ দিনের ব্যবধান রয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী, ৩০ দিনের ব্যবধান থাকতে হয়, যাতে এক রাজ্যের নির্বাচনের প্রভাব অন্য রাজ্যে না পড়ে। এছাড়াও আরও বেশি কিছু বিষয়ও মাথায় রাখতে হয়েছে, যেমন আবহাওয়া। তুষারপাত শুরু হওয়ার আগেই আমরা হিমাচল প্রদেশের নির্বাচন শেষ করতে চাই। এই বিষয় নিয়ে একাধিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।”

উল্লেখ্য, আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি গুজরাট বিধানসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে। অন্যদিকে হিমাচল প্রদেশের বিধানসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৮ জানুয়ারি। নির্বাচন কমিশনের তরফে জানানো হয়েছে, আদর্শ আচরণবিধি নির্বাচনের ৭০ দিনের বদলে ৫৭ দিন আগে থেকে শুরু হবে। আগামী ১২ নভেম্বর নির্বাচন হবে হিমাচল প্রদেশে, ভোটের ফল প্রকাশ হবে ৮ ডিসেম্বর।

এদিকে, হিমাচল ও গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের মধ্যে ব্যবধান রাখা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা। অভিযোগ, ২০১৭ সালের মতোই এবারও হিমাচল প্রদেশ ও গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের আলাদা দিনক্ষণ ঘোষণা করা হয়েছে। সেই সময় হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচন ৯ নভেম্বর হয়েছিল, গুজরাটে দুই দফায়- ৯ ডিসেম্বর ও ১৪ ডিসেম্বর নির্বাচন হয়েছিল। কিন্তু দুই রাজ্যেই ভোটের ফল প্রকাশিত হয়েছিল ১৮ ডিসেম্বর। বিরোধীদের অভিযোগ, গুজরাটে নির্বাচনের আগে বিজেপি যাতে একাধিক প্রকল্প ঘোষণা করতে পারে, তার জন্যই নির্বাচন কমিশন দিনক্ষণ ঘোষণা করেনি। আগামী দুই সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর একাধিকবার গুজরাটে যাওয়ার কথা বিভিন্ন প্রকল্পের উদ্বোধনে। নির্বাচনী প্রচারে যাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা সহ একাধিক নেতা।

Latest News Updates

Follow us on

Related Stories

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla