গুগল সার্চে ‘ভারতের কুরুচিপূর্ণ ভাষা’ কন্নড়! বিক্ষোভের মুখে পড়ে ক্ষমা চাইল গুগল কর্তৃপক্ষ

কন্নড় ভাষাকে সবথেকে কুরুচিপূর্ণ ভাষা হিসাবে দেখানোর পরই বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষেরা ক্ষোভ  প্রকাশ করেন।

গুগল সার্চে 'ভারতের কুরুচিপূর্ণ ভাষা' কন্নড়! বিক্ষোভের মুখে পড়ে ক্ষমা চাইল গুগল কর্তৃপক্ষ
ফাইল ছবি

বেঙ্গালুরু: গুগল সার্চে ভারতের সবথেকে কুরুচিপূর্ণ ভাষা সার্চ করতেই স্ক্রিনে ফুটে উঠছিল কন্নড় ভাষার নাম।  মাতৃভাষার অপমানে নেট মাধ্যমেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন কর্নাটকবাসী। রাজ্য সরকারের তরফেও গুগলকে আইনি নোটিস পাঠানোর হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়। এরপরই কর্নাটকবাসীর কাছে ক্ষমা চেয়ে নিল গুগল কর্তৃপক্ষ।

কন্নড় ভাষাকে সবথেকে কুরুচিপূর্ণ ভাষা হিসাবে দেখানোর পরই বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষেরা ক্ষোভ  প্রকাশ করেন। এরপরই সার্চ ইঞ্জিন থেকে কন্নড় ভাষার নাম সরিয়ে ফেলা হয়। একইসঙ্গে জানানো হয় যে, সার্চ করলে যে ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে, তার সঙ্গে সংস্থার মতামত জড়িয়ে নেই।

গুগল সার্চে ভারতের কুরুচিপূর্ণ ভাষা হিসাবে কন্নড় ভাষার নাম দেখানোর পরই কর্নাটকের কন্নড় ভাষা, সংস্কৃতি ও বনমন্ত্রী অরবিন্দ লিম্বাবালি বলেন, ” গুগল সার্চে কন্নড় ভাষার অবমাননাকর এইধরনের ফলাফল দেখানোর জন্য গুগলকে আইনি নোটিস পাঠানো হবে।” এরপর তিনি টুইটারেও এই নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং গুগলকে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানান।
২হাজার ৫০০ বছর পুরনো ভাষাকে অপমান করায় তিনি বলেন, “কন্নড় ভাষার নিজস্ব একটি ইতিহাস রয়েছে। গুগলের সেই ভাষাকে ছোট করা আসলে কন্নড়বাসীদের অহংবোধকেই অপমানের চেষ্টা মাত্র। আমাদের সুন্দর ভাষাকে কলুষিত করার জন্য গুগলের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্য়বস্থা নেওয়া হবে।”
গুগলের এক মুখপাত্র বলেন, “সবসময় সঠিকভাবে সার্চ করা হয় না। আমরা জানি এটি সঠিক নয়, তবে আমরা ক্রমাগত অ্যালগরিদম যাতে আরও উন্নত হয়, সেই লক্ষ্যে কাজ করছি। সার্চের ফলাফলের সঙ্গে গুগলের মতামতের প্রতিফলনের কোনও সম্পর্ক নেই। আমরা ভুল বোঝাবুঝি ও সাধারণ মানুষের ভাবাবেগে আঘাত পৌঁছনোর জন্য ক্ষমা চাইছি।”
তবে গুগলের এই ক্ষমা চাওয়ায় সন্তুষ্ট নন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী। তিনি একাধিক টুইটে গুগলের এই দায়িত্ব-জ্ঞানহীন আচরণের কারণ জানতে চান। বিজেপি সাংসদ পিসি মোহনও গুগলের সমালোচনা করে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানান।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla