5

Mahua Moitra: ‘যতই প্রভাবশালী হোক না কেন, একদিন ধরা পড়বেই’, কাকে বার্তা দিলেন মহুয়া?

TMC: সম্প্রতি নদিয়ার তেহট্টের বিধায়ক তাপস সাহার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ ওঠে। এলাকার কিছু মানুষ তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে অভিযোগ জানান।

Mahua Moitra: 'যতই প্রভাবশালী হোক না কেন, একদিন ধরা পড়বেই', কাকে বার্তা দিলেন মহুয়া?
সাংসদ মহুয়া মৈত্র। ছবি PTI
Follow Us:
| Edited By: | Updated on: Apr 28, 2022 | 9:57 PM

কলকাতা: কোনওরকম তোলাবাজি, নিয়োগ দুর্নীতি বা অপরাধের ক্ষেত্রে পুলিশ যেন কড়া ব্যবস্থা নেয়, বুধবারই নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দুর্নীতিতে নাম জড়ালে কেউই যে ছাড় পাবেন না, নবান্ন থেকে সে বার্তাই দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। দলনেত্রীর এই বার্তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই কৃষ্ণনগরের সাংসদ মহুয়া মৈত্র সোশাল মিডিয়ায় আহ্বান জানালেন, ‘আমার অফিসে এসে লিখিত অভিযোগ করুন। যতই প্রভাবশালী হোক না কেন ধরা পড়বেই।’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্যকে সামনে রেখে কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদের এই বার্তা হলেও কেউ কেউ মহুয়ার পোস্টে একটু অন্য ‘সুর’ও খুঁজে পাচ্ছেন। ‘প্রভাবশালী’দের বলতে মহুয়া ঠিক কাদের বলতে চেয়েছেন, রাজনৈতিক মহলের একাংশ সে প্রশ্নও তুলেছেন। কারণ, অতি সম্প্রতি তেহট্টের তৃণমূল বিধায়কের বিরুদ্ধে টাকা নিয়ে চাকরি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। যা ঘিরে জেলার রাজনীতিতে হইচই পড়ে যায়।

এরইমধ্যে সোমবার সোশাল মিডিয়ায় মহুয়া মৈত্র লেখেন, ‘মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী বারবার বলছেন, দলকে সামনে রেখে কোনওরকমের তোলাবাজি করা যাবে না। চাকরি দেওয়ার নাম করে, টেট প্যানেলে নাম নথিভুক্ত করার কথা বলে, সরকারি কাজ করিয়ে দেওয়ার নাম করে কেউ বা কারা যদি মানুষকে প্রতারণা করে তবে নির্ভয়ে এখুনি পুলিশ বা আমার অফিসে লিখিত অভিযোগ করুন।’ একইসঙ্গে সাধারণ মানুষকে আশ্বস্ত করেছেন তিনি, ‘ভয় পাবেন না। চোর, প্রতারককে ভয় করার কোনও কারণ নেই। যতই প্রভাবশালী হোক না কেন এক দিন না একদিন ধরা পড়বেই – তাই দয়া করে এগিয়ে আসুন – চলুন এই চক্রগুলিকে বন্ধ করি।’

প্রসঙ্গত, নদিয়ার তেহট্টের বিধায়ক তাপস সাহার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ ওঠে। এলাকার কিছু মানুষ তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে অভিযোগ জানান। চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা হাতানোর অভিযোগ তোলা হয় বিধায়ক ও তাঁর অনুগামীদের বিরুদ্ধে। যদিও যে সময় এই অভিযোগ ওঠে সে সময় তাপস সাহা এই জেলারই পলাশিপাড়া কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন। অভিযোগকারীদের দাবি, তাঁরা লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে চাকরিও পাননি, টাকা ফেরতও পাননি। যদি পাল্টা বিধায়ক দাবি করেছিলেন, এলাকার এক দলীয় নেত্রীর ষড়যন্ত্রে এসব হচ্ছে। এরইমধ্যে মহুয়া মৈত্রের এই সোশাল-পোস্ট ঘিরে জোর চর্চা বঙ্গ রাজনীতিতে।

আরও পড়ুন: CM Mamata Banerjee: ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়ারা কে কোথায় পড়বেন ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর, চাকরি দুই শ্রমিককেও