মঙ্গলের বুকে প্রথমবার হেলিকপ্টার Ingenuity-র উড়ানের শব্দ রেকর্ড করল রোভার পারসিভের‍্যান্স

নাসার তরফে একটি ভিডিয়ো টুইটারে শেয়ার করা হয়েছে। গত ৩০ এপ্রিল চতুর্থ বারের জন্য লালগ্রহের বুকে উড়েছে হেলিকপ্টার Ingenuity। সেই সময়েই এই শব্দ ধরা পড়েছে রোভারের সুপার ক্যামে থাকা শক্তিশালী মাইক্রোফোনে।

মঙ্গলের বুকে প্রথমবার হেলিকপ্টার Ingenuity-র উড়ানের শব্দ রেকর্ড করল রোভার পারসিভের‍্যান্স
লালগ্রহের বুকে নাসার মার্স হেলিকপ্টার Ingenuity।

মঙ্গলগ্রহে রোভার পারসিভের‍্যান্স পাঠিয়েছে মার্কিন স্পেস এজেন্সি নাসা। সেই সঙ্গে পাঠানো হয়েছে হেলিকপ্টার Ingenuity। পৃথিবীর বাইরে এই প্রথম অন্য কোনও গ্রহে সফল ভাবে উড়েছে হেলিকপ্টার। তাও একাধিকবার। এবার সেই হেলিকপ্টারের উড়ানের শব্দ, অর্থাৎ ব্লেড ঘোরার শব্দও শোনা গিয়েছে রোভারের মাধ্যমে।

নাসার তরফে একটি ভিডিয়ো টুইটারে শেয়ার করা হয়েছে। গত ৩০ এপ্রিল চতুর্থ বারের জন্য লালগ্রহের বুকে উড়েছে হেলিকপ্টার Ingenuity। সেই সময়েই এই শব্দ ধরা পড়েছে রোভারের সুপার ক্যামে থাকা শক্তিশালী মাইক্রোফোনে। এই মাইক্রোফোন আসলে একটি লেসার ইন্সট্রুমেন্ট। ২ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিয়োতে প্রথমে উড়ান শুরুর সময় খুব আস্তে শোনা গেলেও, পরে বেশ স্পষ্ট ভাবেই শোনা গিয়েছে, Ingenuity- র ব্লেড ঘোরার শব্দ।

এই প্রথম পৃথিবীর বাইরে অন্য কোনও গ্রহে হেলিকপ্টার উড়েছে। আর সেই সঙ্গে তার ছবি ও হেলিকপ্টার ওড়ার শব্দ রেকর্ড করা হয়েছে। চতুর্থ উড়ানে মঙ্গলগ্রহে থাকা Jezero Crate প্রদক্ষিণ করেছে Ingenuity। উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে এই Jezero Crate- এই অবতরণ করেছিল নাসার রোভার পারসিভের‍্যান্স। লালগ্রহের বুকে প্রাণের অস্তিত্ব ছিল কি না, তার সন্ধান করাই এই রোভারের মূল কাজ।

জানা গিয়েছে, চতুর্থবার উড়ানের সময় মার্স হেলিকপ্টার Ingenuity- র ব্লেড ২৫৩৭ rpm স্পিন হয়েছে। সেদিন Jezero Crate- এর চারপাশে ২৬৬ মিটার (গোলাকার ভাবে) প্রদক্ষিণ করেছিল এই হেলিকপ্টার। যেখান থেকে উড়ান শুরু হয়েছিল, সেই এলাকা থেকে হেলিকপ্টার যখন ৮০ মিটার দূরে ছিল, তখন বিজ্ঞানীরা কোনও শব্দ শুনতে পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু সকলকে অবাক করে দিয়ে, টেক-অফ থেকে ল্যান্ডিং পর্যন্ত, সমস্ত সময়েই হেলিকপ্টারের শব্দ স্পষ্ট ভাবেই শোনা গিয়েছে।

আরও পড়ুন- হোম গ্যালাক্সির স্বর্গীয় ছবি শেয়ার নাসার, আপ্লুত নেটপাড়া!

আকাশে হেলিকপ্টার উড়লে, টেক-অফ এবং অবতরণের সময় যেমন শব্দের পার্থক্য করা যায়, ঠিক তেমনই এক্ষেত্রেও উড়ান শুরু এবং ল্যান্ডিংয়ের সময় Ingenuity- র ব্লেড ঘোরার শব্দের ফারাক বোঝা গিয়েছে। একে বলা হয় ডপলার এফেক্ট। বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই শব্দ রেকর্ড হওয়ার ঘটনা অন্যান্য গ্রহে গবেষণার ক্ষেত্রে নতুন দিগন্ত খুলে দিয়েছে। যে ইঞ্জিনিয়াররা এই হেলিকপ্টার Ingenuity তৈরি করেছেন, তাঁরাও জানতে পেরেছেন যে পৃথিবী পৃষ্ঠের বাইরে অন্য গ্রহে হেলিকপ্টার উড়লে ঠিক কেমন শব্দ শোনা যায়। আগামী দিনে অন্যান্য উড়ানের ক্ষেত্রেও Ingenuity- এর বিভিন্ন মুহূর্তের শব্দ রেকর্ড করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।