TMC-BJP: ভয় দেখাচ্ছে তৃণমূল! পার্টি অফিসের জন্য বিজেপিকে ঘর দিচ্ছে না কেউ

Katwa BJP: বিজেপি যে দলীয় কার্যালয় ছিল, ভোটের পর তা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে বিজেপি। এমনটাই অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের।

TMC-BJP: ভয় দেখাচ্ছে তৃণমূল! পার্টি অফিসের জন্য বিজেপিকে ঘর দিচ্ছে না কেউ
১০০ দিনের প্রচার চালানোর পরিকল্পনা বিজেপির। প্রতীকি ছবি

কাটোয়া: কোথাও ঘর ভাড়া নিতে পারছে না বিজেপি (BJP)। যেখানেই যাচ্ছে, সেখানেই কেউ ঘর দিতে রাজি হচ্ছে না। এমনটাই অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের। এমনকি যে ঘর ভাড়া নিয়ে এতদিন পর্যন্ত পার্টি অফিস চালানো হচ্ছিল, বিধানসভা নির্বাচনের (Assembly Election) ফল প্রকাশের পর সেটাও বন্ধ করে দিতে হয়েছে। পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ায় (Katwa) এমনই অভিযোগ জানিয়েছে বিজেপি নেতৃত্ব। যদিও তৃণমূলের (TMC) দাবি, আসলে অফিস চালানোর মতো লোকই নেই বিজেপির। তাই বন্ধ হয়ে গিয়েছে পার্টি অফিস (Party Office)।

পূর্ব বর্ধমান জেলা বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, ভয় দেখানোর কারণেই কাটোয়ার কাছারি রোডে ভাড়ায় নেওয়া বিজেপির জেলা কার্যালয় বন্ধ করে দিতে হয়েছে। কয়েক কিলোমিটার দূরে দাইহাট শহরে দলীয় কার্যালয় খুলেছে বিজেপি। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর।

বিধানসভা ভোটের আগে যে বিজেপির জেলা কার্যালয় গমগম করত দলীয় নেতা কর্মীদের উপস্থিতিতে, এখন সেই কার্যালয়েই তালা পড়েছে। এক প্রকার তৃনমূলের চাপে পড়েই এই ভাড়া করা কার্যালয় ছাড়তে হয়েছে বলে অভিযোগ বিজেপির। জেলা বিজেপি সভাপতি কৃষ্ণ ঘোষের বক্তব্য, ‘শহরে অন্য জায়গায় কার্যালয় করার জন্য ভাড়া নেওয়ার কথা হলেও তৃণমূলের ভয়ে কেউই ঘর ভাড়া দিতে চাইছেনা। তাই বাধ্য হয়েই কাটোয়া শহরে দলীয় কার্যালয় না পেয়ে দাইহাট শহরে একটি গোডাউন ভাড়া করে অস্থায়ী ভাবে কার্যালয় বানিয়ে চলছে সাংগঠনিক কাজ।

আরও পড়ুন: Delhi Terror Module Update: ব্যাগেই ছিল দেড় কেজি আরডিএক্স! পুলিশের জালে পাক জঙ্গিদের আরও এক সদস্য

বিজেপি জেলা সহ সভাপতি অনিল দত্ত বলেন, ‘একটা ঘর ভাড়ায় নেওয়া হয়েছিল। নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর সেই বাড়ির মালিক আমাদের উঠে যেতে বলেছে। উনি তৃণমূলের ভয়ে আমাদের অনুরোধ করেছেন। চুক্তি শেষ না হওয়া সত্ত্বেও আমরা উঠে যাই। যিনি ভাড়া দিয়েছলেন, তিনি তৃণমূলের হুমকিতে ভয় পেলেন।’

জেলা তৃনমূল সভাপতি রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়ের দাবি আসলে,  ‘এই অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা।’ তিনি জানান, এখন বিজেপি দলে কোনও কর্মী না থাকায় কাটোয়া শহরে কার্যালয় বন্ধ করে দিয়েছে বিজেপি। তিনি বলেন, ‘বিজেপির লোকেরা পালিয়ে গিয়েছে। কয়েকজন কর্মী আক্ষেপ করে জানিয়েছেন যে তাঁরা খেতে পাচ্ছেন না। জেলা সভাপতি তাঁদের কোনও খোঁজখবর নেয় না। তাই তাঁরাও পালিয়ে যাবেন।’ রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় আরও বলেন, ‘বিজেপির অনেকে নেতাই রাস্তায় ঘোরাফেরা করে। কেউ কিছু করেনি তাদের। তাই এই সব অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই।’ তৃণমূল নেতার কথায়, ‘বিজেপি করার কেউ নেই। অফিসে থাকার কেউ নেই।’

আরও পড়ুন: Gold Smuggling: ট্রাক থামিয়ে তল্লাশি চালাতেই চক্ষু চড়কগাছ! থরে থরে সাজানো সোনা

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla