মসুর ডালে রবি ঠাকুরের ছবি এঁকে ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডে নাম ডায়মন্ড হারবারের ছাত্রের

প্রবল দারিদ্রের মধ্যেও শিল্পকে নিয়ে বেঁচে থাকতে চাওয়া শুভেন্দু আগামী দিনে শিল্পকর্ম দিয়ে সারা বিশ্বকে তাক লাগানোর স্বপ্ন দেখেন। এবার তাঁর লক্ষ্য গ্রিনিজ বুক অব রেকর্ডেও জায়গা করে নেওয়া।

মসুর ডালে রবি ঠাকুরের ছবি এঁকে ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডে নাম ডায়মন্ড হারবারের ছাত্রের
নিজস্ব চিত্র

ডায়মন্ড হারবার: করোনা অতিমারিতে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় এক প্রকার ঘরবন্দী জীবন কাটাতে হচ্ছে পড়ুয়াদের। হাতে অনেকটা সময় থাকায় বাড়িতে বসেই নিজের শিল্পকর্মের উপর জোর দিয়েছিল এক কলেজ পড়ুয়া। আর তাতেই মিলল সর্বভারতীয় স্বীকৃতি। মসুর ডালের দানার উপর কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও ভারতের মানচিত্রের ছবি ফুটিয়ে তুলে ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডসের খেতাব জিতে নিলেন বছর কুড়ির শুভেন্দু হালদার।

কয়েক সপ্তাহ আগে ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ড কর্তৃপক্ষের তরফে ছাত্রের বাড়িতে সার্টিফিকেট এবং মেডেল পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। শিল্পকর্মে এতবড় স্বীকৃতি মেলায় ছাত্রের বাড়িতে খুশির হাওয়া। গর্বিত প্রতিবেশীরাও।

পরিবারে আর্থিক সঙ্কট প্রবল। তা স্বত্তেও পড়াশোনার পাশাপাশি সমানতালে ছবি আঁকার কাজ চালিয়ে যান চাঁদনগরের বাসিন্দা শুভেন্দু হালদার। ডায়মন্ড হারবার ফকির চাঁদ কলেজের বাংলা অনার্সে দ্বিতীয় বর্ষের এই ছাত্রের বাবা সনজিৎ হালদার পেশায় রাজমিস্ত্রি। মা রেখাদেবী বিড়ি বাঁধার কাজ করেন। তিন ভাইয়ের মধ্যে শুভেন্দু মেজো। ছোট থেকেই আঁকার প্রতি তাঁর প্রবল আগ্রহ। পড়ার ফাঁকে আঁকাজোকা তাঁর নিত্যসঙ্গী। নতুন কিছু করে দেখানোর ভাবনা বরাবরই মাথার ভিতর ঘুরপাক খায়। এদিকে করোনা পরিস্থিতিতে কলেজ বন্ধ তাকায় হাতে এখন অবসরের সময় একটু বেশি। এই সময়টাকে পুরোপুরি শুভেন্দু কাজে লাগিয়েছেন তাঁর শখের কাজে। আর তাতেই এল সর্বভারতীয় স্বীকৃতি।

এবার একাধিক এক্সপেরিমেন্টে নেমে পড়েছিলেন শুভেন্দু। এই প্রথমবার ধান, গম এমনকি ডালের উপর ছবি আঁকার চেষ্টা শুরু করেন তিনি। মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই মসুর ডালের উপর ভারতের মানচিত্র ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছবি এঁকে রীতিমত তাক লাগিয়ে দেন তিনি। এর মাঝে সোশ্যাল মিডিয়াতেই শুভেন্দু জানতে পারে অনেক নামজাদা শিল্পীই তাঁর কাজের স্বীকৃতি দিয়েছে। তাঁদের কাছেই কীভাবে ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডে আবেদন করা যাবে তা জানতে পারেন। এর পর গত ৬ ফেব্রুয়ারি ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডে আবেদন করেন ডায়মন্ড হারবারের এই ছাত্র।

আরও পড়ুন: ৬ মিলিমিটার গাড়ি বানিয়ে ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডে নাম তমলুকের ছাত্রের

মসুর ডালের উপর ভারতের মানচিত্র এবং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছবি এঁকে রাতারাতি ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডে জায়গা করে নেন তিনি। দিনকয়েক আগে ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ড কর্তৃপক্ষের তরফে করে শুভেন্দুকে এই খবর জানানো হয়। খুশির হাওয়া ছাত্রের পরিবার, বন্ধু ও প্রতিবেশীদের মধ্যে। প্রবল দারিদ্রের মধ্যেও শিল্পকে নিয়ে বেঁচে থাকতে চাওয়া শুভেন্দু আগামী দিনে শিল্পকর্ম দিয়ে সারা বিশ্বকে তাক লাগানোর স্বপ্ন দেখেন। এবার তাঁর লক্ষ্য গ্রিনিজ বুক অব রেকর্ডেও জায়গা করে নেওয়া।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla