মমতার সফরের আগেই বৈঠক, জাতীয় রাজনীতির গুরুদায়িত্ব কাঁধে তুলে নিচ্ছেন অভিষেক?

সাংসদদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে সেই বৈঠকে। বিকেল ৪টেয় বসবে ঘাসফুল শিবিরের বৈঠক।

মমতার সফরের আগেই বৈঠক, জাতীয় রাজনীতির গুরুদায়িত্ব কাঁধে তুলে নিচ্ছেন অভিষেক?
ফাইল ছবি

কলকাতা: মমতার দিল্লি সফরের পিছনে যে বিশেষ রাজনৈতিক তাৎপর্য আছে, তার আঁচ ইতিমধ্যেই পেয়েছে রাজনৈতিক মহল। তবে তাঁর সেই সফরের আগে নজর থাকছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠক ঘিরে। ঘাসফুল শিবিরে তিনিই যে ‘দ্বিতীয়’ ব্যক্তি হয়ে উঠছেন, এ দিনের বৈঠক থেকে তা আরও একবার স্পষ্ট। প্রায় সাত বছরের সাংসদ হলেও দিল্লির রাজনীতিতে কোনোদিনই তাঁকে সে ভাবে সামনের সারিতে দেখা যায়নি। কিন্তু, আজ মমতার দিল্লি সফরের আগে তৃণমূল সাংসদ তথা বর্ষীয়ান নেতাদের নিয়ে বৈঠকে বসছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

এত দিন পর্যন্ত এ ভাবে মমতার সফরের আগে তৃণমূল শিবিরকে বৈঠকে বসতে দেখা যায়নি। আর যদিও বা কোনও রণনীতি নির্ধরাণ করার প্রয়োজন পড়ত, সেই দায়িত্ব থাকত ডেরেক ও’ব্রায়েন বা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাঁধে। কিন্তু এ বার সেই দায়িত্ব নিয়েছেন অভিষেক। আর এই বৈঠকই স্পষ্ট করে দিচ্ছে যে, অভিষেকই এই মুহূর্তে দলের ‘সেকেন্ড ইন কমান্ড’। শুধু তাই নয়, জাতীয় রাজনীতিতে দলকে গুছিয়ে নিয়ে ২৪-এর লোকসভা নির্বাচনের মাঠে নামতে তৃণমূল যে ভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছে, তাতে যে অভিষেকের একটা বড় ভূমিকা থাকবে, সেটাও স্পষ্ট।

সোমবার বিকেল ৪টেয় সংসদ ভবনের ৬২ নম্বর রুমে এই বৈঠক হবে। তৃণমূল সূত্রের খবর, দলের সাংসদদের আরো গঠনমূলক ভূমিকা পালনে উৎসাহিত করতে চাইছেন অভিষেক। সেই লক্ষ্যেই লোকসভা ও রাজ্যসভার দলের নেতাদের মাধ্যমে সব সাংসদকে সক্রিয় থাকার বার্তা দিয়েছেন অভিষেক। শনিবার রাতে এই বৈঠকে থাকার জন্য লোকসভার মুখ্য সচেতক কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং রাজ্যসভার মুখ্য সচেতক সুখেন্দুশেখর রায় দলের সাংসদদের এসএমএস পাঠিয়ে বৈঠকে উপস্থিত থাকার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। আজ সন্ধেয় রাজধানী পৌঁছবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর সঙ্গে বিরোধী দলের নেতাদের বৈঠকের সম্ভাবনা রয়েছে।

বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারের সময়ও দেখা গিয়েছে, মমতার কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করেছেন অভিষেক। আর ২১ জুলাই তৃণমূলের ‘শহিদ দিবস’-এর অনুষ্ঠানে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে অভিষেকের ভাষণ। সাধারণত সবার শেষে ভাষণ দিয়ে শহিদ দিবসের অনুষ্ঠান শেষ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ বারও তৃণমূল সুপ্রিমো দীর্ঘ ভাষণ দিলেও, সব শেষে দু-চার কথা বলতে শোনা যায় অভিষেককে। দলের ইতিহাসে এমন ঘটনা প্রথম। সেই ঘটনাও বুঝিয়ে দিচ্ছে যে তৃণমূলে কতটা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেন অভিষেক। আরও পড়ুন: রাতের শহরে কুণাল ঘোষের গাড়ি আটকাল পুলিশ!

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla