Anil Deshmukh Resigns: সিবিআই তদন্তের নির্দেশ আসার পরই পদত্যাগ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

১৫ দিনের মধ্যে সিবিআই তদন্ত শুরু করার নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট

  • TV9 Bangla
  • Published On - 15:00 PM, 5 Apr 2021
Anil Deshmukh Resigns: সিবিআই তদন্তের নির্দেশ আসার পরই পদত্যাগ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর
ফাইল চিত্র।

মুম্বই: মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখের বিরুদ্ধে দুর্ণীতির মমালায় হাই কোর্ট সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল। এরপরই পদত্যাগ করলেন তিনি। সোমবারই মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের কাছে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছেন তিনি। মুম্বইয়ের প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার পরমবীর সিং-এর আবেদনের ভিত্তিতেই এই নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট।

রাজ্যের মন্ত্রী নবাব মালিক জানিয়েছেন, হাই কোর্টের নির্দেশের পরই শরদ পাওয়ার ও শিব সেনা নেতাদের সঙ্গে দেখা করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ। তিনি পদত্যাগের ইচ্ছা প্রকাশ করেন দলীয় নেতাদের কাছে। এনসিপির তরফ থেকে পদত্যাগ পত্র গ্রহণ করা আর্জি জানানো হয়েছে উদ্ধব ঠাকরের কাছে।

সুপ্রিম কোর্ট ও পরে বম্বে হাইকোর্টে সিবিআই তদন্তের আবেদন জানিয়েছিলে পরমবীর সিং। অনিল দেশমুখের বিরুদ্ধে তোলাবাজির অভিযোগ এনেছিলেন তিনি, চিঠি দিয়েছিলেন উদ্ধব ঠাকরেকেও। সেই আবেদনের ভিত্তিতে সোমবার আদালতের তরফে ১৫ দিনের মধ্যে সিবিআইকে প্রাথমিক তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

ফেব্রুয়ারি মাসে শিল্পপতি মুকেশ অম্বানীর বাড়ি অ্যান্টিলিয়ার সামনে থেকে বিস্ফোরক বোঝাই গাড়ি উদ্ধারের ঘটনার তদন্ত শুরু হওয়ার কিছুদিন পরই পুলিশ কমিশনার পরমবীর সিংকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তাঁর বদলে দায়িত্ব নেন হেমন্ত নাগরালে। এই ঘটনার পরই প্রাক্তন পুলিশকর্তা উদ্ধব ঠাকরেকে একটি ছ পাতার চিঠি লেখেন। সেই চিঠিতে তিনি জানান, মুম্বইয়ে অনিল অম্বানীর বাড়ির সামনে বিস্ফোরক উদ্ধারের তদন্ত থেকে সরাতেই তাঁকে সরানো হয়েছে। একইসঙ্গে তিনি মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখের বিরুদ্ধেও তোলাবাজির অভিযোগ তোলেন। চিঠিতে তিনি লিখেছিলেন, “অম্বানীকাণ্ডে ধৃত পুলিশ অফিসার সচিন ভাজ়েকে প্রতিমাসে ১০০ কোটি টাকা তোলাবাজির লক্ষ্যমাত্রা দিয়েছিলেন। এর জন্য মুম্বইয়ের ১৬০০ বার-রেস্তরাঁকেও চিহ্নিত করেছিলেন তিনি।”

আরও পড়ুন: পরমবীরের দাবিতেই সম্মতি আদালতের, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তোলাবাজির অভিযোগে তদন্ত করবে সিবিআই

অন্য দিকে, তদন্তে নেমেই এনআইএ ক্রাইম ব্রাঞ্চের অফিসার সচিন ভাজ়েকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর ঘটনার পুনর্গঠন করতে সচিন ভাজ়েকে অ্যান্টিলিয়ার সামনে নিয়ে যাওয়া হয়। তদন্তকারী সংস্থার তরফে জানানো হয়, সচিন ভাজ়ের নির্দেশেই তাঁর গাড়ির চালক ওই বিস্ফোরক বোঝাই গাড়িটি অ্যান্টিলিয়ার সামনে রেখে আসেন। গোটা ঘটনার বিবরণ দিয়ে এনআইএ জানায়, ১৭ ফেব্রুয়ারি গাড়ির মালিক মনসুখ হিরেন মুলুন্দ-আইরোলি রোডে স্করপিও গাড়িটি রেখে আসেন। সেইদিনই তিনি ক্রাইম ব্রাঞ্চের দফতরে গিয়ে সচিন ভাজ়ের হাতে গাড়ির চাবিটি তুলে দেন। এরপর সচিনের নির্দেশেই তাঁর নিজস্ব গাড়ির চালক ঘটনাস্থান থেকে গাড়িটি নিয়ে সচিন ভাজ়ের সাকেতের হাউসিং কমপ্লেক্সের সামনে রেখে আসেন।