জুলাইতেই হাতে মিলবে কোভ্যাক্সিনের তৃতীয় দফার ট্রায়ালের ফলাফল, জানাল প্রস্তুতকারক সংস্থা

মেড ইন ইন্ডিয়া এই ভ্য়াকসিন তৃতীয় ট্রায়াল চলাকালীনই জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োগের অনুমোদন পেয়েছিল। সেই কারণে এই ভ্যাকসিনের এখনও কোনও বৈধ লাইসেন্স নেই এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদনও মেলেনি।

জুলাইতেই হাতে মিলবে কোভ্যাক্সিনের তৃতীয় দফার ট্রায়ালের ফলাফল, জানাল প্রস্তুতকারক সংস্থা
ফাইল চিত্র।

নয়া দিল্লি: আগামী মাসেই হাতে এসে যাবে তৃতীয় দফার ট্রায়ালের ফলাফল। তারপরই কেভ্যাক্সিনের লাইসেন্সের আবেদন জানাবে ভারত বায়োটেক, বুধবার এমনটাই জানানো হল সংস্থার তরফে। ট্রায়ালের ফলাফল মিলতেই আগামিদিনে কতটা কার্যকরী এই ভ্যাকসিন, তা নিয়ে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলবে বলে জানানো হয়েছে ভারত বায়োটেকের তরফে।

মেড ইন ইন্ডিয়া এই ভ্য়াকসিন তৃতীয় ট্রায়াল চলাকালীনই জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োগের অনুমোদন পেয়েছিল। সেই কারণে এই ভ্যাকসিনের এখনও কোনও বৈধ লাইসেন্স নেই এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদনও মেলেনি। তবে তৃতীয় দফার ট্রায়াল শেষে জানা গিয়েছিল, সংক্রমণ রোধে ৭৮ শতাংশ কার্যকরী এই ভ্যাকসিন। জুলাইতে এই ট্রায়ালের ফলাফল হাতে মিলতেই তারপর ভ্যাকসিনের বৈধ লাইসেন্সের জন্য আবেদন জানাবে সংস্থা।

সংস্থার তরফে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা সম্পর্কে বলা হয়, “তৃতীয় দফার ট্রায়াল মিলিয়ে দেখা গিয়েছে মোট ৭৮ শতাংশ সংক্রমণ রুখতে সফল এই ভ্যাকসিন। এই ভ্যাকসিন প্রয়োগে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ১০০ শতাংশই রোখা যায়।”

অন্যদিকে, সম্প্রতি  কোভ্যাক্সিনের তুলনায় কোভিশিল্ডের কার্যকারিতা বেশি বলেই দাবি করা হয় একটি গবেষণায়। এই জল্পনাকেও উড়িয়ে দেওয়া হয় সংস্থার তরফে। এই বিষয়ে সংস্থার প্রধান রাচেস এলা বলেন, “এটি তথ্য বা বিজ্ঞানসম্মত গবেষণা নয়। এমনকি এই গবেষণায় সিডিএসসিও-ও অনুমোদন দেয়নি। এই ধরনের অনুমোদনহীন ও ভিত্তিহীন গবেষণা প্রকাশ কেন পেল, সেটাই প্রশ্ন।” তিনি জানান, গবেষণাগারে নয়, বাস্তব জগতে কোভ্যাক্সিন কতটা কার্যকরী, তা পরীক্ষা করতে চতুর্থ দফার ট্রায়ালও করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: টিকার দাম পরিবর্তন নিয়েও ভাবনাচিন্তা কেন্দ্রের, কথা হতে পারে সেরাম ও ভারত বায়োটেকের সঙ্গে