প্রদেশ সভাপতির গাড়ি ভাঙচুর, ১২ ঘন্টার বনধ ডাকল ত্রিপুরা কংগ্রেস

গাড়ির সামনের কাচ ভেঙে গিয়েছে এবং হামলার জেরে বেশ কয়েক জন কংগ্রেস কর্মী আহত হয়েছেন। এই হামলার বিরোধিতায় ত্রিপুরা কংগ্রেস ১২ ঘন্টার বনধ ডেকেছেন।

প্রদেশ সভাপতির গাড়ি ভাঙচুর, ১২ ঘন্টার বনধ ডাকল ত্রিপুরা কংগ্রেস
ছবি- এএনআই

আগরতলা: ত্রিপুরায় বিশালগড়ে কংগ্রেসের (Tripura Congress) দলীয় কার্যালয়ের সামনেই গাড়ি ভাঙচুর হল কংগ্রেসের প্রদেশ সভাপতি পীযুষ বিশ্বাসের। অভিযোগ, শাসক দল বিজেপির কর্মীরাই নাকি এই কাজ করেছে। ইতিমধ্যেই থানায় এফআইআর দায়ের করেছেন পীযুষ। তদন্ত শুরু হলেও পুলিস এখনও এই ঘটনার পিছনে কোনও রাজনৈতিক দলের কথা জানায়নি। গাড়ি ভাঙচুর হওয়ার পর আহত পীযুষ বিশ্বাসকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সংবাদ মাধ্যমকে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি জানিয়েছেন, বিশালগড়ে তিনি একটি দলীয় মিটিংয়ে গিয়েছিলেন, তখনই এই হামলার শিকার হন তিনি। গাড়ির সামনের কাচ ভেঙে গিয়েছে এবং হামলার জেরে বেশ কয়েক জন কংগ্রেস কর্মী আহত হয়েছেন। এই হামলার বিরোধিতায় ত্রিপুরা কংগ্রেস ১২ ঘন্টার বনধ ডেকেছে।

প্রদ্যুত দেববর্মন ইস্তফা দেওয়ার পর ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে ত্রিপুরা কংগ্রেসের প্রদেশ সভাপতি পদে বসেছিলেন পীযুষ। সভাপতি পদে বসার পর রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে মিটিং সেরেছেন তিনি। শুক্রবারও আগরতলার মহাত্মা গান্ধী মূর্তি থেকে রাজভবন পর্যন্ত কৃষি আইন বিরোধী মিছিলে পা মিলিয়ে ছিলেন পীযুষ।

আরও পড়ুন: “অধিকাংশ কৃষকরাই আইনের সমর্থনে”, দশম দফার আগে সুর চড়ালেন কৃষিমন্ত্রী

কৃষি আইনের বিরোধিতা করায় গত মাসেও সিপিআইএম কর্মীদের উপর হামলার ঘটনায় বিজেপির দিকে আঙুল তুলেছিলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার। তখন অবশ্য মানিক সরকারে অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছিলেন বিজেপির মুখপাত্র নবেন্দু ভট্টাচার্য। পাল্টা তিনি দাবি করেছিলেন সিপিআইএম কর্মীরা হামলা করেছেন বিজেপি কর্মীদের উপর।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla