‘ধনখড় চুপ কর,’ রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানকে নিশানা তৃণমূল সাংসদের

রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় (Governor Jagdeep Dhankhar) বিজেপি (BJP)-র হয়ে কাজ করছেন বলে অভিযোগ করে এসেছে তৃণমূল (TMC)। কয়েকদিন আগে সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায় (Sukhendu Sekhar Roy) সাংবাদিক বৈঠক করে বিস্ফোরক দাবি করেছেন।

'ধনখড় চুপ কর,' রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানকে নিশানা তৃণমূল সাংসদের
রাজ্যপাল ধনকড় ও তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায়

একের পর এক জায়গায় গিয়ে বিজেপি কর্মীর বাড়িতে সাক্ষাৎ, প্রকাশ্যে আইসিকে ধমক। এসব নিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় (Governor Jagdeep Dhankhar) বিজেপি (BJP)-র হয়ে কাজ করছেন বলে অভিযোগ করে এসেছে তৃণমূল (TMC)। কয়েকদিন আগে সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায় (Sukhendu Sekhar Roy) সাংবাদিক বৈঠক করে এমনই বিস্ফোরক দাবি করেছেন। তবে সোমবার কার্যত বেনজির ভাষায় রাজ্যপালকে আক্রমণ করলেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ। নারদ মামলায় সিবিআই-র হাতে গ্রেফতার হওয়া তিন তৃণমূল বিধায়কের অন্তর্বর্তী জামিন পাওয়ার প্রেক্ষিতে সুখেন্দু শেখরের ইংরেজি হরফে টুইট, ‘ধনখড় চুপ কর।’

সিবিআই সূত্রের খবর, রাজ্যপালের কাছ থেকে অনুমতি মেলার পর নারদ কাণ্ডে চার অভিযুক্ত নেতা-মন্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। আর এ নিয়ে রাজ্যপালকে তীব্র আক্রমণ শানালেন সুখেন্দু শেখর রায়। সোশ্যাল মিডিয়ায় একাধিক পোস্টে তিনি রাজ্যপালকে নিশানা করেন। একটি পোস্টে ধনখড়ের নামে উইকিপিডিয়া পেজের স্ক্রিনশট পোস্ট করে তৃণমূল সাংসদ লেখেন, ‘সোনার বাংলা থেকে কী দারুণ জন্মদিনের উপহার।’ প্রসঙ্গত, ধনখড়ের জন্মদিন ১৮ মে। তাছাড়াও সংশ্লিষ্ট স্ক্রিনশটে এক জায়গায় রাজ্যপালের পরিচয়ের জায়গায় লেখা রয়েছে বিজেপির প্রাক্তন নেতা। ওই অংশটিকে লাল দাগ দিয়ে চিহ্নিত করেন তিনি।

এর পর নিজস্ব টুইটার হ্যান্ডেল থেকে সুখেন্দু শেখর রায়ের পোস্ট, ‘অভিবাদন! তৃণমূল নেতাদের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে গ্রেফতার করে হেরে গিয়েছে সিবিআই। ধনখড় চুপ কর।’

এর আগের এক টুইটে ধনখড়ের পদত্যাগ দাবি করে সুখেন্দু শেখর জানান, গত ৯ মে রাজ্যপাল সিবিআইকে অনুমতি দেন তৃণমূল মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে তদন্তে। কিন্তু তখনও মন্ত্রী হিসাবে শপথই নেননি সুব্রত মুখার্জি ও ফিরহাদ হাকিম। তাই সংবিধান না মেনে এক্তিয়ার বহির্ভুত কাজ করেছেন রাজ্যপাল।

আরও পড়ুন: নারদকাণ্ড: অন্তর্বর্তী জামিন পেলেন ববি-সুব্রত-মদনরা, হাইকোর্টে যেতে পারে সিবিআই 

এদিকে রাজ্যপালকে নিয়ে তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদের বেনজির আক্রমণের প্রেক্ষিতে বিজেপি নেতৃত্ব তীব্র প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন। বঙ্গ বিজেপির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুর কথায়, এটাই তৃণমূলের সংস্কৃতি। তৃণমূলের কাছ থেকে এর চেয়ে বেশি কিছু আশা করা যায় না। একজন বর্ষীয়ান সাংসদ যে ভাষাতে রাজ্যপালকে আক্রমণ করলেন তা দেখে বাঙালি হিসেবে লজ্জায় মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছে।

বিজেপির অন্যতম মুখপাত্র কেয়া ঘোষের কথায়, “তৃণমূলের একজন নির্বাচিত সাংসদ মহামহিম রাজ্যপালের উদ্দেশে যে ভাষার ব্যবহার করলেন, সেটা শুনে আমি স্তম্ভিত! সেই ভাষা যদি আমরা বিরোধীরা ব্যবহার করতাম এতক্ষণে হাজতবাস করতে হত।” তিনি আরও যোগ করেন, তৃণমূল বলে কি যা ইচ্ছা তাই করা যায়, যা ইচ্ছা তাই বলা যায়?