কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই প্রবল বৃষ্টির পূর্বাভাস সঙ্গে বজ্রপাতের সতর্কতা! কবে থেকে শুরু?

জ্রপাতেরও সতর্কতা জারি করল আলিপুর আবহাওয়া দফতর (Alipur Weather Office)।

কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই প্রবল বৃষ্টির পূর্বাভাস সঙ্গে বজ্রপাতের সতর্কতা! কবে থেকে শুরু?
ফাইল ছবি

কলকাতা: আগামী দু-তিন দিন কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সর্বত্রই ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস (Rain Forecast) । সঙ্গে বজ্রপাতেরও সতর্কতা জারি করল আলিপুর আবহাওয়া দফতর (Alipur Weather Office)।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, এই মুহূর্তে পূর্ব উত্তর প্রদেশ থেকে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা অবস্থান করছে। আরেকটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা সিকিম-উত্তরবঙ্গ থেকে ছত্রিশগড় পর্যন্ত রয়েছে। পাশাপাশি প্রচুর জলীয় বাষ্প ঢুকছে বাংলায়।

এর ফলে আগামী দু-তিন দিন কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের সব জায়গাতেই বিক্ষিপ্ত ঝড় বৃষ্টি হবে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা অনেকটা কমে যাবে। ১০ তারিখ থেকে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে। ১১ তারিখ আরও একটি নিম্নচাপ তৈরি হবে উত্তর বঙ্গোপসাগরের ওপর। আর তার হাত ধরেই মৌসুমী বায়ু প্রবেশ করবে পশ্চিমবঙ্গের বাদবাকি জেলায়। এর ফলে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলের জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

১০ তারিখের পর থেকে কলকাতায় বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে আর ১১ তারিখের পর থেকে দক্ষিণবঙ্গের বিশেষ করে পশ্চিমের জেলাগুলিতে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ১১ তারিখ দক্ষিণবঙ্গে বর্ষা ঢুকবে। ১১ তারিখ থেকে ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা সম্ভাবনা রয়েছে দুই ২৪ পরগনা, ঝাড়গ্রাম, পূর্ব মেদিনীপুর, হাওড়া ও কলকাতায়। উত্তরবঙ্গে আগেই বর্ষা প্রবেশ করেছে।

ইয়াসের ধাক্কা এখনও সামলে উঠতে পারেনি বাংলা। উপকূলবর্তী এলাকার বহু মানুষ এখনও গৃহহীন। তাঁদের অবস্থা পরিদর্শনে এই মুহূর্তে বাংলায় রয়েছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। বিপর্যস্তদের পাশে দাঁড়াতে প্রশাসন ছাড়াও সমাজের নানা শ্রেণির মানুষ এগিয়ে এসেছেন। তার মধ্যে বর্ষা ঢুকে পড়ায় বিপদ বাড়বে বই কমবে না বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ইতিমধ্যেই সমুদ্র থেকে মৎস্যজীবীদের ফিরে আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: বুধে ‘লেভেল টেস্টের’ আরও এক ধাপ! প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতে শুভেন্দু

উপকূলবর্তী এলাকায় প্রচুর বাঁধ ভেঙেছে। সেগুলি জরুরিকালীন ভিত্তিতে মেরামতির কাজ চলছে। যেগুলি অক্ষত রয়েছে, সেগুলি যাতে ভেঙে না পড়ে, তা নিয়ে চলছে বিস্তর চেষ্টা। প্রশাসন মূলত এখন উদ্বিগ্ন উপকূলবর্তী এলাকাগুলিকে নিয়েই। এখনও বহু গ্রাম জলের তলায়। টানা বৃষ্টিতে ওই এলাকাগুলির কী অবস্থা, তা ভাবাচ্ছে। একে বর্ষা তার ওপর জোয়ারে সমুদ্রের জলস্ফিতি! জোড়া ফলার হাত থেকে দুর্গতদের রক্ষা করতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে প্রশাসন।