IPL 2021: বিরাট-রোহিতের টক্করে ফেভারিট কিন্তু মুম্বই

রোহিত শর্মা (Rohit Sharma) বনাম বিরাট কোহলির (Virat Kohli) ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে টুর্নামেন্ট। এর থেকে উত্তেজক ম্যাচ আইপিএলে আর নেই। মুম্বই পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন।

  • TV9 Bangla
  • Published On - 12:08 PM, 9 Apr 2021
IPL 2021: বিরাট-রোহিতের টক্করে ফেভারিট কিন্তু মুম্বই

শরদিন্দু মুখোপাধ্যায়

প্রতিবার আইপিএলের (IPL) ঠিক আগে ভিতরে ভিতরে একটা আশ্চর্য অপেক্ষা শুরু হয় আমার। নতুন তারকা কাকে দেখব! এমন কেউ হয়তো উঠে আসবে, যে উল্টেপাল্টে দেবে সব হিসেবে। যার জন্য টিমগুলোকে নতুন করে ভাবতে হবে। যাকে রোজই ডাকতে হবে নতুন নতুন নামে। এ বার এই অপেক্ষাটা যেন আরও বেশি করে হচ্ছে। এত তারকাঠাসা একটা লিগ। আমি নিশ্চিত, তোলপাড় করা কেউ একজন অপেক্ষা করে রয়েছে আমাদের আলোচনায় তুমুলভাবে ঢুকে পড়ার জন্য। অনেকেই জানতে চাইছে, কে হতে পারে উঠতি মুখ? মহম্মদ আজহারউদ্দিন, শাহরুখ খানদের অপেক্ষায় আছি।

আইপিএলের বিউগলটা এখন অধিকাংশ লোকের পছন্দের রিংটোন হয়ে গিয়েছে। বাসে-ট্রামে-ট্রেনে তো বটেই, রেস্তোরাঁ-পার্টিতেও অবিরত শুনি। তার মানে হল, তীব্র জনপ্রিয়তা পেয়ে গিয়েছে আইপিএল। কাল চেন্নাইয়ের চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে যখন বল গড়াতে শুরু করবে আইপিএল ১৪-র, তখন সারা দেশে টিভি কিংবা মোবাইলে মুখ গুঁজবে।

রোহিত শর্মা (Rohit Sharma) বনাম বিরাট কোহলির (Virat Kohli) ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে টুর্নামেন্ট। এর থেকে উত্তেজক ম্যাচ আইপিএলে আর নেই। মুম্বই পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন। ছ’নম্বর লিগটা জেতার জন্য মুখিয়ে আছে ওরা। টিমটার সবচেয়ে পজিটিভ দিক হল, নিজেদের উপর ভরসা রাখা। সেটার জোরেই যে কোনও প্রতিপক্ষকে যে কোনও পরিস্থিতিতে হারিয়ে দিতে পারে। ফেভারিট হিসেবেই এই আইপিএল শুরু করবে ওরা। বিরাটের টিমের কাছে কিন্তু এটা একটা বড় সুযোগ হতে পারে। এর আগে কখনও আইপিএল জিততে পারেনি ওরা। গত বার আমিরশাহিতে দারুণ পারফর্ম করেছিল। কিন্তু ফাইনালে পৌঁছতে পারেনি। এ বার যদি টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেই জিততে পারে, তা হলে কিন্তু প্রয়োজনীয় আত্মবিশ্বাস পেয়ে যাবে বিরাটের টিম।

এই আইপিএল আরও একটা কারণে গুরুত্বপূর্ণ। মহেন্দ্র সিং ধোনির (MS Dhoni) জন্য। আমার মনে হয়, এটাই ওর শেষ আইপিএল। ও এত বড় প্লেয়ার, নিজে দুরন্ত পারফর্ম করে, টিমকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে এই আইপিএলটা স্মরণীয় রাখতে চাইবে। ধোনি যদি মিডল অর্ডারে ব্যাট করে এবং ফিনিশারের দায়িত্বটা অন্য কাউকে দেয়, তা হলে ভালো করবে। ও দারুণ চাপ সামলাতে পারে। ইস্পাত কঠিন মানসিকতা। ধোনি কিন্তু শেষ মরসুমে কিছু চমক তো দেখাবেই।

আরও পড়ুন:এএফসি কাপে ফিরছেন করোনা মুক্ত সুনীল

এই আইপিএল হতে পারে আরও কয়েক জনের। যেমন ঋষভ পন্থ। অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে ও দারুণ খেলছে। শ্রেয়স আয়ার না থাকায় ওকেই ক্যাপ্টেন করা হয়েছে। পন্থ যদি এই পরীক্ষাটায় উতড়ে যেতে পারে, তা হলে কিন্তু ভারতীয় টিমের কাছে বিকল্পের আরও রাস্তা খুলে যাবে। টি নটরাজন, দেবদত্ত পাড়িক্কল, লোকেশ রাহুল, মহম্মদ সিরাজ, সূর্যকুমার যাদব, শুভমন গিলদের তাকাতে হবে। নজর রাখতে হবে রবীন্দ্র জাডেজার দিকেও। গতবার একদম ফর্মে ছিল না। ও যে মাপের ক্রিকেটার, নিজেকে তুলে ধরতে চাইবে। চোখ রাখতে হবে সুরেশ রায়নার দিকেও। এবি ডে ভিলিয়ার্স, ডেভিড ওয়ার্নার, কেন উইলিয়ামসন, ট্রেন্ট বোল্ট, কাইল জেমিসন, কাগিসো রাবাডা, এনরিক নর্টজেও যে কোনও ম্যাচে বাজি হতে পারে টিমের।

অনেকেই জিজ্ঞেস করছে, কে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে এই আইপিএলে? ক্রিকেটে প্রেডিকশন হয় না। যে কোনও টিম যে কোনও সময় হিসেব উল্টে দিতে পারে। তবু একটা টিমের ভাবনা, ভারসাম্য, গভীরতা, পরিকল্পনার মধ্যে দিয়ে কিছুটা বোঝা যায়। সে দিক থেকে দেখলে, প্লে-অফের লড়াই থাকবে পাঁচটা টিম। মুম্বই, কলকাতা, আরসিবি, হায়দরাবাদ, পঞ্জাব। লোকেশ রাহুলের টিমকে প্লে অফের হিসেবে রাখছি তার কারণ হল, এ বার ওদের ভারসাম্যটা চমৎকার।

ঘটনা হল, গত বছর আমিরশাহিতে যে ধরণের পিচে খেলা হয়েছিল আইপিএল তার সঙ্গে চেন্নাইয়ের পিচের বিস্তর ফারাক। চিদম্বরম স্টেডিয়ামে বল স্লো আসবে ব্যাটে, স্পিনও করবে। মুম্বই খুব একটা পরীক্ষা-নিরীক্ষায় যাবে না। ওদের সেট টিম। রোহিত-ডি কক ওপেন করবে। তিনে ঈশান, চারে সূর্যকুমার যাদব, পাঁচে হার্দিক, ছয়ে মাসলম্যান কায়রন পোলার্ড। তার পর আসবে ক্রুণাল পান্ডিয়া। অফস্পিনার জয়ন্ত যাদব কিংবা পীযূষ চাওলার মধ্যে যে কোনও একজনকে খেলানো হতে পারে। থাকবে লেগস্পিনার রাহুল চাহার। শেষে ট্রেন্ট বোল্ট ও বুমরা। টিম দেখলেই বোঝা যায়, পেস আর স্পিনের চমৎকার ভারসাম্যটা রাখার চেষ্টা করবে ওরা।

বিরাটের টিম এ বার কার্যত নতুন। বিকল্প অনেক বেশি। বোলার যেমন রয়েছে, ব্যাটসম্যানও রয়েছে। দেবদত্ত পাড়িক্কাল করোনার পর টিমের সঙ্গে যোগ দিলেও প্রথম ম্যাচে ও বিরাটের সঙ্গেই ওপেন করবে। তিন নম্বরে রজত পাতিদারকে খেলিয়ে চমক দিতে পারে আরসিবি। ছেলেটার ব্যাটের হাত যেমন ভালো, তেমনই অফস্পিনটাও করতে পারে। ওই জায়গায় ব্যবহার করা যেতে পারে আজহারকেও। চারে অবশ্যই এবিডি। আর পাঁচে ম্যাক্সওয়েল। বিপুল টাকা দিয়ে ম্যাক্সিকে কিনেছে আরসিবি। আগের আইপিএলে সে ভাবে নিজেকে প্রমাণ করতে পারেনি। কিন্তু এ বার ও নিজেকে প্রমাণ করতে মুখিয়ে আছে। সচিন বেবীকে ছ’নম্বরে, সাতে ওয়াশিংটন সুন্দরকে খেলাতে পারে বিরাটের টিম। এর থাকবে ড্যান ক্রিশ্চিয়ান। কাইল জেমিসন, নভদীপ সাইনি ও জুজবেন্দ্র চাহাল।

আইপিএল একটা এমন টুর্নামেন্ট, সব হিসেবে তুলে রাখতে হয়! কখন কে যে সব উল্টে দেবে, কে জানে!