মঙ্গলগ্রহ থেকে প্রথমবার ছবি পাঠিয়েছে চিনের রোভার ঝুরং

লালগ্রহের বুকে গত সপ্তাহে সফলভাবে অবতরণ করেছে চিনের ছয় চাকার সৌরবিদ্যুতচালিত মহাকাশ যান।

মঙ্গলগ্রহ থেকে প্রথমবার ছবি পাঠিয়েছে চিনের রোভার ঝুরং
এই ছবিই শেয়ার করেছে চিনের জাতীয় স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।

মার্কিন স্পেস এজেন্সি নাসার পর মঙ্গল অভিযানে সামিল হয়েছে চিনও। আমেরিকার পর তারাও মহাকাশযান পাঠিয়েছে লালগ্রহে। গত শনিবার মঙ্গল গ্রহের অবতরণ করেছে চিনের রোভার ঝুরং। বৈজ্ঞানিকরা আগেই জানিয়েছিলেন যে, সফল অবতরণের পর কয়েকদিন মহাকাশযানের ভিতরেই থাকবে রোভার। তারপর ল্যান্ডার থেকে বেরিয়ে পর্যবেক্ষণের কাজ শুরু করবে রোভার।

ইতিমধ্যেই মঙ্গলগ্রহ থেকে প্রথম ছবি পাঠিয়েছে চিনে পাঠানো রোভার। একের পর এক ঐতিহাসিক কাণ্ড ঘটাচ্ছে চিনের মহাকাশযান। এই প্রথম কোনও দেশ প্রথমবার মঙ্গল অভিযানেই সফল হয়েছে। লালগ্রহের বুকে গত সপ্তাহে সফলভাবে অবতরণ করেছে চিনের ছয় চাকার সৌরবিদ্যুতচালিত মহাকাশ যান। তার ভিতরেই রয়েছে রোভার ঝুরং। অবতরণের পর প্রথমবার ছবিও পাঠিয়েছে চিনের মহাকাশযান। জানা গিয়েছে, চৈনিক আগুনের দেবতার নাম অনুসারে মঙ্গলগ্রহে পাঠানো এই রোভারের নামকরণ করা হয়েছে।

কয়েক মাস আগেই মঙ্গলগ্রহে পৌঁছে গিয়েছে নাসার পাঠানো রোভার ‘পারসিভের‍্যান্স’। তার পরই লালগ্রহের পৃষ্ঠদেশ ছুঁয়েছে চিনের রোভার ঝুরং। তবে প্রথম অভিযানেই সফল হয়ে বিশ্ববাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে চিন। বুধবার চিনের জাতীয় স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন রোভার ঝুরং- এর পাঠানো প্রথম সেলফি প্রকাশ করেছে। রোভারে লাগানো অত্যাধুনিক ক্যামেরার সাহায্যেই এই ছবি তোলা হয়েছে। সেখানে দেখা গিয়েছে, রোভারের মধ্যে এমন কিছু যন্ত্রাংশ রয়েছে, যা মঙ্গলগ্রহের পৃষ্ঠদেশে কোনও বাধা-বিপত্তি কাটিয়ে এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে রোভারকে। সেইসব যন্ত্রাংশ ধরা পড়েছে ঝুরং- এর পাঠান প্রথম ছবিতে। এছাড়াও ভেহিকেলের সোলার প্যানেলও লক্ষ্য করা গিয়েছে। তবে এই সব কিছুর সঙ্গে মঙ্গলগ্রহের পৃষ্ঠদেশের গঠন-প্রকৃতিও ধরা পড়েছে ওই ছবিতে।

আরও পড়ুন- মায়াবী চাঁদ: ৫০ হাজার ছবি নিয়ে তৈরি হল চন্দ্রপৃষ্ঠের অপরূপ ছবি, সৌজন্যে পুণের কিশোর

চিনের এই রোভার তিনমাস ধরে মঙ্গলগ্রহ থেকে বিভিন্ন ধরনের নমুনা সংগ্রহ করবে। মূলত লালগ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব ছিল কি না, জলের অস্তিত্ব ছিল কি না, এখন প্রাণ বা জলের অস্তিত্ব রয়েছে কি না এইসব প্রসঙ্গে নমুনা সংগ্রহ করবে রোভার ঝুরং। এছাড়া মঙ্গলগ্রহের বায়ুমণ্ডল নিয়েও গবেষণার পরিকল্পনা রয়েছে রোভারের।