কোভিড আক্রান্ত তৃণমূল সভাপতির মৃত্যুর জেরে ‘হামলা’ হাসপাতালে, চিকিৎসক ও নার্সদের মারধরের অভিযোগ দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ওই তৃণমূল নেতা জেলার আইএনটিটিইউসি সভাপতি দিব্যেন্দু রায়ের অনুরোধে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিছুদিন আগে তিনি করোনা আক্রান্ত হন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, শনিবার, হারুন আলি মারা যাওয়ার পরেই হাসপাতাল চত্বরে প্রায় শতাধিক লোক চড়াও হয়ে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করে।

কোভিড আক্রান্ত তৃণমূল সভাপতির মৃত্যুর জেরে 'হামলা' হাসপাতালে, চিকিৎসক ও নার্সদের মারধরের অভিযোগ দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে
আক্রান্ত চিকিৎসক, নিজস্ব চিত্র

পূর্ব মেদিনীপুর: করোনা আক্রান্ত হয়ে তৃণমূল (TMC) সভাপতির মৃত্য়ুকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠল পাঁশকুড়ার বড়মা হাসপাতাল চত্বর। শনিবার সকালে হাসপাতালেই মারা যান তমলুক পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি শেখ হারুন আলি রশিদ। তাঁর মৃত্য়ুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই হাসপাতাল চত্বরে প্রায় শ’খানেক লোক জমা হয়ে ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে যে হাসপাতালে এসে পৌঁছয় পুলিশ।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ওই তৃণমূল (TMC) নেতা জেলার আইএনটিটিইউসি (INTTUC) সভাপতি দিব্যেন্দু রায়ের অনুরোধে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিছুদিন আগে তিনি করোনা (Corona) আক্রান্ত হন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, শনিবার, হারুন আলি মারা যাওয়ার পরেই হাসপাতাল চত্বরে প্রায় শতাধিক লোক চড়াও হয়ে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করে। এমনকী, হাসপাতালের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ। ‘হামলার’ জেরে রীতিমতো বিপত্তির মুখে পড়েন রোগীরা। সেই সময়ে  হাসপাতালে উপস্থিত চিকিৎসক ভাস্কর রায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলে ওই দুষ্কৃতীরা তাঁর উপরে চড়াও হয়ে মারধর করে বলে অভিযোগ। এমনকী, অন্যান্য চিকিৎসক ও নার্সদেরও মারধরের অভিযোগ উঠেছে ওই দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পৌঁছলেও কার্যত কোনও পদক্ষেপ করেনি বলেই অভিযোগ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের।

হাসপাতাল চত্বরে এই ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্কিত রোগীরা। অনেকেই হাসপাতালে রোগীর নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। যদিও, এই ঘটনায় স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগ করে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

আরও পড়়ুন: করোনায় আক্রান্ত মা ভর্তি হাসপাতালে, ব্রেনস্ট্রোকে মৃত বাবার দেহের সামনেই ‘আত্মঘাতী’ অবসাদগ্রস্ত ছেলে!