Omicron Variant: বাধ্যতামূলক হল যাত্রীদের একান্তবাসে থাকার নিয়ম, ওমিক্রন সংক্রমণ রুখতে কড়া ঠাকরে সরকার

Maharashtra New Rules for International Travelers: ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত যে সমস্ত দেশ থেকে যাত্রীরা আসবে, তাদের বিমানবন্দরে পৌঁছনো মাত্রই আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। রিপোর্ট পজেটিভ এলে তাদের হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হবে।

Omicron Variant: বাধ্যতামূলক হল যাত্রীদের একান্তবাসে থাকার নিয়ম, ওমিক্রন সংক্রমণ রুখতে কড়া ঠাকরে সরকার
মহারাষ্ট্রে এলেই বাধ্যতামূলকভাবে ৭ দিন একান্তবাসে থাকতে হবে। প্রতীকী চিত্র

মুম্বই: ওমিক্রন(Omicron)-র আতঙ্কে সতর্ক কেন্দ্র। বিদেশ থেকে আগত যাত্রীদের ক্ষেত্রে জারি করা হয়েছে একাধিক সতর্কতা। কেন্দ্রের পাশাপাশি একাধিক রাজ্যও বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করছে। দিল্লির পর এ বার মহারাষ্ট্র সরকার(Maharashtra Government)-ও বিদেশ ফেরত যাত্রীদের জন্য কড়া নিয়ম চালু করল। মঙ্গলবারই সরকারের তরফে নির্দেশিকা জারি করে জানানো হয় যে, ঝুঁকিপূর্ণ দেশ থেকে আগত যাত্রাীদের বাধ্যতামূলকভাবে সাতদিন প্রাতিষ্ঠানিক একান্তবাসে (Institutional Quarantine) থাকতে হবে।

মুম্বই বিমানবন্দর সূত্রে জানা গিয়েছে, দ্রুত এই নিয়ম কার্যকর করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যাত্রীদের একান্তবাসের জন্য নির্দিষ্ট কয়েকটি হোটেল চিহ্নিত করা হয়েছে। সেগুলিতেই তাদের থাকতে হবে এবং খরচও নিজেদেরই বহন করতে হবে। তবে এই নিয়ম নিয়ে সংশয়ও দেখা দিয়েছে। কারণ যে সমস্ত যাত্রীরা মাঝ আকাশে রয়েছেন, তারা এই নিয়ম সম্পর্কে জানেন না। তাদের পক্ষে সাতদিন হোটেলে একান্তবাসে থাকার খরচ অনেকটাই ব্যয়সাপেক্ষ হতে পারে।

মহারাষ্ট্র সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, ঝুঁকিপূর্ণ দেশ থেকে আগত যাত্রীদের বাধ্যতামূলকভাবে একান্তবাসে থাকার পাশাপাশি করোনা পরীক্ষাও করাতে হবে। বিমানবন্দর ছাড়াও একান্তবাসে থাকার দ্বিতীয়, চতুর্থ ও সপ্তম দিনে ফের আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। এদের মধ্যে যে সমস্ত যাত্রীদের করোনা পররীক্ষার রিপোর্ট পজেটিভ আসবে, তাদের হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হবে। রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও তাদের সাতদিন বাড়িতেই একান্তবাসে থাকতে হবে। সরকারি নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে, গত ২৮ নভেম্বর কেন্দ্রের তরফে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে যে নির্দেশিকা জারি করেছে, তা ন্য়ূনতম বিধিনিষেধ হিসাবে বিমানবন্দরগুলিতে কার্যকর হবে।

বিদেশ থেকে আগত যাত্রীদের জানানো হয়েছে, বিগত ১৫ দিনে তারা কোন কোন দেশে গিয়েছে, তা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য জমা দিতে হবে। বিমানবন্দরে পৌঁছনোর পর তা ইমিগ্রেশন দফতর খতিয়ে দেখবে। যদি কোনও যাত্রী ভুল তথ্য দেন, তবে তার বিরুদ্ধে বিপর্যয় মোকাবিলা আইনের অধীনে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত যে সমস্ত দেশ থেকে যাত্রীরা আসবে, তাদের বিমানবন্দরে পৌঁছনো মাত্রই আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। রিপোর্ট পজেটিভ এলে তাদের হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হবে। নেগেটিভ এলে দুই সপ্তাহের জন্য বাড়িতেই প্রাতিষ্ঠানিক একান্তবাসের মতো থাকতে হবে।

উল্লেখ্য, কেন্দ্রের তরফে যে সমস্ত দেশকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে, সেগুলি হল- বিট্রেন, ইউরোপের ৪৪টি দেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, বাংলাদেশ, বৎসনিয়া, চিন, মরিশাস, নিউজিল্যান্ড, জিম্বাবোয়ে, সিঙ্গাপুর, হংকং ও ইজরায়েল।

আন্তর্জাতিক যাত্রীদের মধ্যে যারা সংযোগকারী বিমান ধরার জন্য মহারাষ্ট্রে অবতরণ করবে, তাদের ক্ষেত্রেও আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যদি তাদের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে, তবেই সংযোগকারী বিমানে উঠতে দেওয়া হবে। যদি রাজ্যের অন্দরেই কোনও সংযোগকারী বিমান ধরার বিষয় থাকে, সেক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক একান্তবাসের নিয়ম মানতে হবে।

দেশের অভ্যন্তরে যাতায়াতকারী যাত্রীদের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ টিকাপ্রাপ্ত হওয়ার সার্টিফিকেট বা বিমানবন্দরে পৌঁছনোর ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে করানো আরটি-পিসিআর পরীক্ষার নেগেটিভ রিপোর্ট দেখাতে হবে, এমনটাই জানিয়েছে মহারাষ্ট্র সরকার।

আরও পড়ুন: Omicron Scare: দিল্লি বিমানবন্দরে অবতরণের পরেও ৬ ঘণ্টা অপেক্ষা, মধ্যরাত থেকেই চালু নতুন নিয়ম

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla