CWC Meeting: গান্ধী পরিবারের হাতেই কি থাকবে কংগ্রেসের ব্যাটন? সিদ্ধান্ত হতে পারে আগামী শনিবার

Congress Chief: আক্ষরিক অর্থে সাংগঠনিক দিক থেকে দেখতে গেলে, কংগ্রেস এখন 'অভিভাবকহীন'। অকংগ্রেসী দলগুলি থেকে এই নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বক্রোক্তিও শুনতে হয়েছে কংগ্রেস হাই কমান্ডকে।

CWC Meeting: গান্ধী পরিবারের হাতেই কি থাকবে কংগ্রেসের ব্যাটন? সিদ্ধান্ত হতে পারে আগামী শনিবার
কংগ্রেসে পরবর্তী সভাপতি কে হবেন? (ফাইল ছবি)

নয়া দিল্লি: দীর্ঘদিন দলের কোনও ঘোষিত সভাপতি নেই। বর্ষীয়ান সোনিয়া গান্ধী (Sonia Gandhi) এখনও কংগ্রেসের অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী (Interim President of Congress) হিসেবে দায়িত্ব সামলে যাচ্ছেন। দলটাকে যতটা সম্ভব আগলে রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু আক্ষরিক অর্থে সাংগঠনিক দিক থেকে দেখতে গেলে, কংগ্রেস এখন ‘অভিভাবকহীন’। অকংগ্রেসী দলগুলি থেকে এই নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বক্রোক্তিও শুনতে হয়েছে কংগ্রেস হাই কমান্ডকে। এবার হয়ত সেই বক্রোক্তি শোনার দিন শেষ করতে চাইছে কংগ্রেস।

১৬ অক্টোবর কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব বৈঠকে বসছে। সম্ভবত সেই বৈঠকেই কংগ্রেসের পরবর্তী সর্বভারতীয় সভাপতি হিসেবে কাকে তুলে ধরা হবে, সেই নিয়ে আলোচনা হবে। কংগ্রেস সূত্র মারফত অন্তত এমনটাই জানা যাচ্ছে। দিল্লিতে কংগ্রেসের সদর কার্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, আগামী শনিবার (১৬ অক্টোবর) সকাল ১০ টায় একটি বৈঠকে বসবে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটি। সেখানে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, দেশের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন এবং কংগ্রেসের সাংগঠনিক নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে আলোচনা হবে বৈঠকে।

উল্লেখ্য, আগামী বছরের শুরুর দিকেই বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন রয়েছে। তার মধ্যে কংগ্রেসের দৃষ্টিকোণ থেকে পঞ্জাব এবং উত্তর প্রদেশ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমত, উত্তর প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে জয় মানে ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের জন্য এক পা এগিয়ে থাকা। আর দ্বিতীয়ত, পঞ্জাব কংগ্রেসের দলীয় কোন্দল যে তলানিতে এসে ঠেকেছে, তাতে আসন্ন নির্বাচনে সেখানে নিজেদের ক্ষমতা ধরে রাখাটাই একটা বড় চ্যালেঞ্জ কংগ্রেসের জন্য। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশের মতে, এই সব দিক হিসেব নিকেশ করে কংগ্রেস অন্তত এটুকু বুঝতে পেরেছে যে, দলকে আগলে রাখার জন্য একজন সাংগঠনিক প্রধান অবশ্যই দরকার। সোনিয়া গান্ধী দায়িত্ব সামলাচ্ছেন বটে, কিন্তু তিনি অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী।

গত মাসে, মুখ্যমন্ত্রী বদল করা নিয়ে পঞ্জাবে কংগ্রেসের অভ্যন্তরে যে অশান্তি তৈরি হয়েছিল, তা এখনও চলে যাচ্ছে। আর তা স্বাভাবিকভাবেই দলের মুখ পুড়ছিল জাতীয় রাজনীতির আঙিনায়। অস্বস্তি বাড়ছিল দলের। অমরিন্দর সিংকে মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে ‘সরানোর’ পর পঞ্জাবের প্রথম দলিত মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে চরণজিৎ চন্নিকে বেছে নেওয়ার পর যে রাজনৈতিক সঙ্কট পঞ্জাব কংগ্রেসে তৈরি হয়েছিল, তাতে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির এই বৈঠক যে খুব বেশি দেরি নেই, তা অনেকেই অনুমান করতে পারছিলেন। পঞ্জাব কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালাও এই ধরনের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন।

এর পাশাপাশি দলের সর্বভারতীয় স্তরে কোনও সভাপতি না থাকায়, কংগ্রেসের মধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল বিগত বেশ কিছুদিন ধরে। বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল তো একেবারে চিঠিই পাঠিয়ে দিয়েছিলেন গান্ধী পরিবারের কাছে। সেখানে তিনি প্রশ্ন তুলেছিলেন, “কংগ্রেসে এখন কোনও নির্বাচিত প্রধান নেই। তাহলে যে কোনও ইস্যুতে সিদ্ধান্ত কে নিচ্ছেন? আমরা জানি না যে দলের কোনও বিষয়ে শেষ সিদ্ধান্ত কে নিচ্ছেন।”

আরও পড়ুন : Lakhimpur Kheri: অনশনের মেয়াদ একদিন! অভিযুক্ত হাজিরা দিতেই ‘রণে ভঙ্গ’ দিলেন সিধু

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla