Fake Vaccination: ভারতে এখনও অনুমোদনই মেলেনি! সেই ফাইজ়ারের ‘টিকা’ দেবাঞ্জনের অফিসে

Fake Vaccination: গত বছর করোনার প্রথম ঢেউয়ের সময় স্যানিটাইজারের ব্যবসা শুরু করেছিলেন দেবাঞ্জন। কিন্তু সেই স্যানিটাইজারও ভুয়ো বলে জানতে পেরেছে পুলিশ।

Fake Vaccination: ভারতে এখনও অনুমোদনই মেলেনি! সেই ফাইজ়ারের 'টিকা' দেবাঞ্জনের অফিসে
ফাইল চিত্র।

কলকাতা: আমাদের দেশে এখনও যে টিকার অনুমোদনই দেওয়া হয়নি, সেই ফাইজ়ারের ‘টিকা’ উদ্ধার দেবাঞ্জন দেবের অফিস থেকে। তল্লাশি চালিয়ে ফাইজ়ারের লেবেল লাগানো টিকা পাওয়া গিয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে খবর। একইসঙ্গে আরও বহু ভুয়ো টিকা উদ্ধার হয়েছে কসবায় ভুয়ো টিকাকরণকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত দেবাঞ্জনের অফিস থেকে। সেই টিকা পরীক্ষার জন্য ড্রাগ ল্যাবে তা পাঠানো হয়েছে।

এর আগে কোভিশিল্ডের লেবেল নকল করে বহু মানুষের টিকাকরণের অভিযোগ উঠেছে দেবাঞ্জন দেবের বিরুদ্ধে। শুধু কোভিশিল্ডই নয় রাশিয়ার টিকা স্পুটনিক ভি-ও অনায়াসে ‘বিলিয়েছেন’ এই ভুয়ো আইএএস। এবার জানা যাচ্ছে মার্কিন মুলুকের ফাইজারের টিকাও নিজের অফিসে মজুত করেছিলেন তিনি। লক্ষ্য ছিল, শিবির করে টিকাকরণ।

বৃহস্পতিবারই দেবাঞ্জনের অফিসের কম্পিউটারে মিলেছে নকল কোভিশিল্ড-এর লেবেল তৈরির গ্রাফিক্স। অর্থাৎ তাঁর কম্পিউটারেই লেবেলের জন্য গ্রাফিক্স তৈরি করা হয়েছিল। তারপর তা বাইরে থেকে ছাপিয়ে এনে প্রত্যেকটি ইনজেকশনের শিশির উপর সাঁটিয়ে দেওয়া হয়েছিল। দেবাঞ্জনের অফিসের কম্পিউটারের হার্ড ডিস্কটি বাজেয়াপ্ত করেছেন গোয়েন্দারা। সেখান থেকে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মিলতে পারে।

আরও পড়ুন: Fake Vaccination: পুরসভার হলোগ্রাম ব্যবহার, কেএমসির জিএসটি নম্বরে দেদার অনলাইন কেনাকাটা দেবাঞ্জনের

গত বছর করোনার প্রথম ঢেউয়ের সময় স্যানিটাইজারের ব্যবসা শুরু করেছিলেন দেবাঞ্জন। কিন্তু সেই স্যানিটাইজারও ভুয়ো বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। তাঁর অফিস থেকে যে স্যানিটাইজারের নমুনা পাওয়া গিয়েছে, তা পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে সেখানে ইথাইল অ্যালকোহল নেই। রয়েছে হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড। যা ঘরবাড়ির জীবাণুমুক্ত করতে ব্যবহার করা হয়।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla