Mamata on Tripura: এখন মানবাধিকার কমিশন কোথায়? কনভয়ের ল্যাজে কী হয়েছিল তখন তো খুব…! নাড্ডার গাড়িতে হামলা প্রসঙ্গ তুলে তোপ মমতার

Mamata Banerjee: নাড্ডার মিছিলের কনভয়ের ল্যাজে কোথায় কে একটা গুন্ডা কী করেছিল তা নিয়ে হিউম্যান রাইটস, ৩৫৬, ৩৫৫ কত কী ধারা ব্যবহার করে ফেলেছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক, বক্তব্য মমতার।

Mamata on Tripura: এখন মানবাধিকার কমিশন কোথায়? কনভয়ের ল্যাজে কী হয়েছিল তখন তো খুব...! নাড্ডার গাড়িতে হামলা প্রসঙ্গ তুলে তোপ মমতার
দিল্লি সফরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি।

কলকাতা: দিল্লি যাওয়ার আগে ত্রিপুরা সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতার দাবি, এই ধরনের ঘটনা বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কালসার ছবিটাই সামনে এনে দিয়েছে। সায়নী ঘোষের গ্রেফতারি নিয়েও তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, একজন শিল্পীকেও খুনের চেষ্টার মামলা দেওয়া হচ্ছে। অথচ থানায় ঢুকে পুলিশের সামনে বিজেপির লোকজন হামলা চালাচ্ছে। এই ঘটনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক বা মানবাধিকার কমিশনের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “থানায় পুলিশের সামনে বটি, কাটারি নিয়ে হামলা করা হয়েছে। আমাকে সায়নী নিজে বলেছে। বিজেপি রাজ্যে ভোট তো হয় না। ওরা ভোটের নামে ঘোট করে। ওরা ভয় পাচ্ছে, মানুষকে বিশ্বাস করতে পারছে না বলেই এটা করছে। আমাদের রাজ্যে তো এত মানুষ এসে ঘুরে গিয়েছে। রোজ এক একজন নেতা এসেছেন। আমরা তো বাধা দিইনি। নাড্ডার মিছিলের কনভয়ের ল্যাজে কোথায় কে একটা গুন্ডা কী করেছিল তা নিয়ে হিউম্যান রাইটস, ৩৫৬, ৩৫৫ কত কী ধারা ব্যবহার করে ফেলেছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। আজ কোথায় ন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস কমিশন? আজ কোথায় মানবাধিকার কমিশন, কোথায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক? ৩৫৫? ত্রিপুরা সরকারকে কেন্দ্রীয় সরকার কটা নোটিস পাঠিয়েছে?”

এ প্রসঙ্গের রেশ ধরেই মমতা বলেন, “ত্রিপুরায় যা ঘটছে বিজেপি শাসিত রাজ্যের গণতন্ত্রের কঙ্কালসার চেহারাটা বেরিয়ে পড়েছে। এমনকী সায়নীর মতো একটা শিল্পী, তাকে পর্যন্ত খুনের চেষ্টার মামলা দিয়েছে বলে আমি শুনেছি। কাল থেকে তাঁকে গ্রেফতার করে রেখে দেওয়া হয়েছে। অভিষেকরা আজ গিয়েছে মিটিং করতে। বিভিন্ন ভাবে অত্যাচার করছে। কত লোককে যে পিজি হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেছি। এমনকী চিকিৎসা পর্যন্ত করতে দিচ্ছে না ত্রিপুরায়। জানি না এখন কোথায় গেল মানবাধিকার কমিশন বা অন্যান্য লেফট-রাইট কমিশন। আমাদের কিছু না হলেও মিথ্যা কথা বলে। আর ফেক ভিডিয়ো দিয়ে বাংলার নামে দেশ বিদেশে মিথ্যা কথা বলে বেড়াচ্ছে।”

ত্রিপুরায় শুধু তৃণমূল কংগ্রেসকেই নয়, সমস্ত সংবাদমাধ্যমেরও কন্ঠরোধ করা হচ্ছে, বক্তব্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “ত্রিপুরা, উত্তর প্রদেশ, অসম সর্বত্রই একই রকম ঘটনা ঘটছে। খুব দুর্ভাগ্যজনক। অভিষেক ত্রিপুরায় গিয়েছে। কুণাল, অর্পিতা, ব্রাত্য সকলেই ওখানে আছে। ওরা আজ ভোটের শেষ প্রচার করবে। যদি রাজ্য সরকার মিটিংটাও না করতে দেয় তা হলে ভোটে কী হবে তা আমি জানি না। তবে মানুষ জবাব দেবেই।”

মমতার কথায়, “ত্রিপুরায় অগ্নিগর্ভ অবস্থা। মাননীয় সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেওয়া সত্ত্বেও গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে আন্দোলন করতে দেওয়া হচ্ছে না। মিটিং মিছিল করতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে আমাদের কর্মীরা মার খেয়েও লড়াই করে যাচ্ছে মানুষের সমর্থনে। আমি মনে করি ত্রিপুরার মানুষ এর জবাব দেবে।”

ত্রিপুরা ইস্যুতে দিল্লিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের দফতরের সামনে সোমবার সকাল থেকে ধরনায় বসেছেন তৃণমূল সাংসদরা। সুখেন্দুশেখর রায়, মালা রায়, কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, সৌগত রায়, অপরূপা পোদ্দার, শান্তনু সেনরা গান গেয়ে প্রতিবাদ প্রদর্শন করছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লিতে নেমেই সাংসদদের সঙ্গে দেখা করতে যাবেন। তবে ধরনায় যোগ দেবেন না তিনি।

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমাদের মন্ত্রীরা রবিবারই দিল্লি গিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য। উনি বিজেপির। তবু উনি তো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের চেয়ারে আছেন। তাদের রাজ্যে এমন ঘটনা। কথা বলার অধিকার নিশ্চয়ই আছে? অথচ রাত থেকে কোনও অ্যাপয়েনমেন্ট পায়নি। আমাকে বলেছিল সাংসদরা রাত থেকেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাড়ির সামনে অনশনে বসবে। আমি না করেছি। কারও বাড়ি সামনে বসাটা ঠিক নয়। আজ অফিসের সামনে বসেছে। কেউ একটা সৌজন্য পর্যন্ত দেখায়নি। সময় দেওয়া বা কথা বলা।”

আরও পড়ুন: Mamata Banerjee Delhi Visit: প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিএসএফ ইস্যুতে কথা বলতেই দিল্লি সফর, জানিয়ে গেলেন মমতা

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla