Upper Primary: অন্য বিভাগের চাকরি প্রার্থীদের নামও এসটি তালিকায়! ফের দুর্নীতির অভিযোগ এসএসসি-র বিরুদ্ধে

Upper Primary: আপার প্রাইমারিতে উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের যে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে, সেখানে সিডিউল ট্রাইব ( ST) তালিকায় মন্ডল, মাহাতো ইত্যাদি পদবীর পরীক্ষার্থীরাও জায়গা পেয়েছেন, যাঁরা ওই বিভাগের অন্তর্ভুক্ত নয়।

Upper Primary: অন্য বিভাগের চাকরি প্রার্থীদের নামও এসটি তালিকায়! ফের দুর্নীতির অভিযোগ এসএসসি-র বিরুদ্ধে
এসএসসির নিয়োগ নিয়ে ফের মামলা হাইকোর্টে। ফাইল চিত্র।


কলকাতা : সদ্য স্কুল সার্ভিস কমিশনের (SSC) গ্রুপ ডি নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতির মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট (Calcutta High Court)। এবার ফের আরও একটি মামলায় প্রশ্নের মুখে কমিশন। যে তালিকায় এসটি বা তফশিলি উপজাতি অন্তর্ভুক্ত চাকরি প্রার্থীদের নাম থাকার কথা, সেখানে অন্যান্যদেরও নাম রয়েছে বলে অভিযোগ। এই অভিযোগ জানিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন তফশিলি উপজাতি অন্তর্ভুক্ত চাকরি প্রার্থীরা। ২০১৬ সালে উচ্চ প্রাথমিকের যে নিয়োগের পরীক্ষা হয়েছিল, সেই তালিকা থেকেই এই প্রশ্ন সামনে এসেছে।

আজ সেই মামলার শুনানি ছিল। প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে ছিল মামলার শুনানি। উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ নিয়ে আগেও এসেছে একাধিক অভিযোগ। এবার ফের প্যানেলে দুর্নীতির অভিযোগ সামনে এল। অভিযোগ, ২০১৬-র আপার প্রাইমারিতে উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের যে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে, সেখানে সিডিউল ট্রাইব ( ST) তালিকায় মন্ডল, মাহাতো ইত্যাদি পদবীর পরীক্ষার্থীরাও জায়গা পেয়েছেন।

মামলাকারীর বক্তব্য, সুপ্রিম কোর্টের নির্দিষ্ট গাইডলাইন আছে কারা এসসি বা এসটি তালিকার অন্তর্ভুক্ত সে বিষয়ে। এমন কি সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী, মাহাতোদের যাতে এসটি তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা যায় সে জন্য কেন্দ্রকে চিঠিও লেখেন। কিন্তু সেই আর্জি খারিজ হয়ে যায়। মামলাকারীর আইনজীবী দেবজ্যোতি বসু বলেন, ‘অন্তত ৭৫ জনের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আছে। অন্য ক্যাটাগরির পরীক্ষার্থীদের কেন জায়গা দেওয়া হয়েছে? রাজ্য জানিয়েছে তারা ইতিমধ্যেই অভিযোগ পেয়েছে। তদন্ত শুরু করেছে। আগামী ২১ ডিসেম্বর সেই রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।’

এসসি বা এসটি তালিকাভুক্ত চাকরি প্রার্থীদের জন্য সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসন সংরক্ষিত থাকে। তাই এসটি তালিকায় অন্যান্য়দের নাম ঢুকে গেলে, এসটি তালিকাভুক্তদের জন্য আসন কমে যাবে। তাই এই অভিযোগ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

এ দিকে, স্কুলে গ্রুপ ডি কর্মী নিয়োগ মামলায় সোমবারই সিবিআই অনুসন্ধানের নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। সেই মতো মঙ্গলবার থেকেই কাজ শুরু করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। ইতিমধ্যেই দিল্লির হস্তক্ষেপের আভাসও পাওয়া যাচ্ছে। সেখান থেকে আসছে নির্দেশ। তবে মঙ্গলবারই সিবিআই কোনও কমিটি গঠন করছে না। বুধবার কলকাতা হাইকোর্ট থেকে এই মামলা সংক্রান্ত নথি সংগ্রহ করবে সিবিআই। একই সঙ্গে কমিটিতে কোন কোন আধিকারিক থাকতে চান, ইচ্ছুক অফিসারদের তালিকা চাওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: School Reopen: স্কুল খুলতেই বিপত্তি! মোবাইল নিয়ে ক্লাসে ছবি তোলার অভিযোগে ছাত্রকে মারের পর মার শিক্ষককের

মঙ্গলবারই হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে আর্জি জানায় রাজ্য। ডিভিশন বেঞ্চের তরফে মামলা করার অনুমতি দেওয়া হয়। বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডনের ডিভিশন বেঞ্চে মামলার শুনানি হবে।

আরও পড়ুন: BSF BGB meeting: কলকাতায় বৈঠকে বিএসফ এবং বিজিবি, উঠতে পারে গরু, সোনা পাচার প্রসঙ্গ

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla