ঠাকুর্দার উপহারের ব্যাটে বিশ্বরেকর্ড, স্মৃতিতে ডুব আজহারে

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছবি পোস্ট করে আজহার লেখেন, "এই ব্যাট নিয়েই আমি বিশ্বরেকর্ড গড়েছিলাম। আমার কেরিয়ারের প্রথম ৩টি টেস্টে ৩টি করে এই কীর্তি গড়েছিলাম ১৯৮৪-৮৫ মরসুমে।সেই মরসুমে এই ব্যাট হাতেই আমি ৮০০-র বেশি রানও করেছিলাম। আমার ঠাকুর্দা এই ব্যাটটা আমাকে উপহার দিয়েছিল।"

ঠাকুর্দার উপহারের ব্যাটে বিশ্বরেকর্ড, স্মৃতিতে ডুব আজহারে
সেই ঐতিহাসিক ব্যাট হাতে মহম্মদ আজহারউদ্দিন

হায়দরাবাদঃ সাল ১৯৮৪। ঝাঁকড়া চুলের শান্ত দোহারা চেহারার এক তরুণ।বয়স ২১-র আশেপাশে। সিরিজের তৃতীয় টেস্ট(TEST CRICKET)। তাঁর অভিষেক টেস্ট। তাও আবার কার জায়গায়? বিশ্বকাপজয়ী দলের অন্যতম সদস্য সন্দীপ পাটিলের জায়গায়। টেস্টের স্থান কলকাতা(KOLKATA)। তিলোত্তমা তো সফল তারকাকে আপন করে নেয়। এটা ভারতীয় ক্রিকেটের চালু কথাই। অভিষেক টেস্টে ব্যাট হাতে নেমে ইংল্যান্ডের এলিসন-এডমন্ডসদের সামলে অভিষেক টেস্টেই সেঞ্চুরি হাঁকালেন প্রথম ইনিংসে। ১১০ রান। টেস্ট ড্র। চেন্নাইয়ে (CHENNAI) পরের টেস্টে তিনি অটোমেটিক চয়েস। প্রথম ইনিংসে ৪৮ রান। দ্বিতীয় ইনিংসে আবার সেঞ্চুরি। ১০৫।সিরিজের পঞ্চম ও শেষ টেস্টে ফের সেঞ্চুরি। ১২২ রান। দ্বিতীয় ইনিংসে অপরাজিত ৫৪। ২১ বছরের ছিপছিপে তরুণ গড়লেন বিশ্বরেকর্ড। কেরিয়ারের প্রথম ৩টি টেস্টেই সেঞ্চুরির অনন্য রেকর্ড। তিনি মহম্মদ আজহারউদ্দিন(MOHAMMAD AZHARUDDIN)। তাঁর সেই রেকর্ড প্রায় ভেঙে ফেলেছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়(SOURAV GANGULY)। কিন্তু কোনওমতে তা অক্ষত থাকে।

৩৭ বছরের আগের সেই স্মৃতিতেই ডুব দিলেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন।কেরিয়ারের প্রথম ৩টি টেস্টে বিশ্বরেকর্ডের কীর্তি আজ্জু মিঁঞা গড়েছিলেন একটি ব্যাটেই। সেই ব্যাট নিয়েই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক। আর আজহারের পরনে ভারতীয় দলের বর্তমান জার্সি। যেই একই ডিজাইনের জার্সি পড়ে ১৯৯২ সালে ভারতের অধিনায়কত্ব করেছিলেন আজহার।

1992 WORLD CUP CRICKET

১৯৯২ বিশ্বকাপের জার্সি পড়ে দাঁড়িয়ে আজহারউদ্দিন (বাঁদিক থেকে তৃতীয়)। সঙ্গে অংশগ্রহণকারী বাকি দলের অধিনায়করা।
বাঁদিক থেকেঃ গ্রাহাম গুচ, ইমরান খান, মহম্মদ আজহারউদ্দিন, ডেভ হাউটন,অরবিন্দ ডি সিলভা, অ্যালান বর্ডার,মার্টিন ক্রো, রিচি রিচার্ডসন ও কেপলার ওয়েসেলস

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছবি পোস্ট করে আজহার লেখেন, “এই ব্যাট নিয়েই আমি বিশ্বরেকর্ড গড়েছিলাম। আমার কেরিয়ারের প্রথম ৩টি টেস্টে ৩টি করে এই কীর্তি গড়েছিলাম ১৯৮৪-৮৫ মরসুমে।সেই মরসুমে এই ব্যাট হাতেই আমি ৮০০-র বেশি রানও করেছিলাম। আমার ঠাকুর্দা এই ব্যাটটা আমাকে উপহার দিয়েছিল।”

ক্রিকেট কেরিয়ারের শেষদিকে বেটিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েছিলেন। মুক্তও হন। এখন তিনি হায়দরাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোশিয়েসনের সভাপতি। ক্রিকেট কেরিয়ারের শেষদিকে তিনি সবার চোখে ভিলেন বনে গিয়েছিলেন। নিজের পয়া মাঠ ইডেনের দর্শকদের চোখেও। কিন্তু গত ২০ বছরে প্রিয় ইডেন ফের তাঁদের ভালবাসার আজ্জু মিঁঞাকে আবার আগের মতই আপন করে নিয়েছে। আর প্রাক্তন ভারত অধিনায়কের এই ছবি দেখে ফের একবার আবেগতাড়িত বঙ্গের আজ্জুপ্রেমীরা।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla