EURO2020 : আত্মঘাতী গোলে হার জার্মানির, পোগবাকে কামড়ে ফিরল ২০১৪ বিশ্বকাপের স্মৃতি

ফিরল ২০১৪ বিশ্বকাপের স্মৃতি।  এদিন পোগবা অভিযোগ করেন ম্যাচ চলাকালীন তাঁকে পেছন থেকে এসে কামড়ে দেন জার্মানির অ্যান্তোনিও রুডিগার। সঙ্গে সঙ্গে ম্যান ইউ তারকা মাঠে থাকা রেফারিকে বিষয়টি নালিশ করেন। তবে তা খারিজ করেন স্প্যানিশ রেফারি।

EURO2020 : আত্মঘাতী গোলে হার জার্মানির, পোগবাকে কামড়ে ফিরল ২০১৪ বিশ্বকাপের স্মৃতি
জয়ের পর কোচ দেঁশর সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন গ্রিজম্যান, ডানদিকে হারে হতাশ জার্মানির গোলকিপার ন্যুয়ার

ফ্রান্স – ১ (হুমেলস আত্মঘাতী গোল ২০’)

জার্মানি-০

 

মিউনিখঃ চলতি ইউরোয়(EURO 2021) সবচেয়ে হেভিওয়েট লড়াই। ঘরের মাঠে জার্মানি (GERMANY)মুখোমুখি বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের(FRANCE)। তবে শুরু থেকে খুঁজেই পাওয়া গেল না জার্মানির চেনা ফুটবল ঝলক। বরং এমবাপে(MBAPPE)-গ্রিজম্যান-বেঞ্জেমার ত্রিফলা আক্রমণে ঝাঁঝরা হয়ে যায় জার্মান ডিফেন্স। ফল, ম্যাট হুমেলসের(MAT HUMMELS) আত্মঘাতী গোলে ১-০ ফলে জার্মানিকে হারায় ফ্রান্স।

এদিন শুরু থেকেই জার্মান বক্সে একের পর এক আক্রমণ হানে ফ্রান্স। কাউন্টার অ্যাটাকও ছিল জার্মানির। কিন্তু বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে যে লড়াই জার্মানির থেকে আশা করা হয়েছিল, তার সিকিভাগও মেলেনি প্রথমার্ধে।ম্যাচের ২০ মিনিটে পোগবার ডান দিকে দৌড়। সেখান থেকে মাপা পাস হার্নান্ডেজকে। জার্মানির বক্সের বাঁদিক থেকে এমবাপেকে বাড়ানো  হার্নান্ডেজের পাস ক্লিয়ার করতে গিয়ে বিপদ ডেকে আনলেন ম্যাট হুমেলস। আত্মঘাতী গোল করে বসেন হুমেলস। ফল, এগিয়ে যায় ফ্রান্স। ২ বছর পর জাতীয় দলে ফিরেছেন হুমেলস। ফিরেই আত্মঘাতী গোলে বিপাকে পড়ে যায় জোয়াকিম লো-র দল।

 

FRANCE WON AGAINST GERMANY

হুমেলসের সেই আত্মঘাতী গোলের মুহূর্ত

শেষ ৩টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র ১টি ম্যাচ জিতেছে জার্মানি। ছন্দে একেবারেই ছিল না। যার প্রমাণ মিলল ইউরোর মূলপর্বের প্রথম ম্যাচেই। এরপরে যোগ হল নতুন বিতর্ক। ফিরল ২০১৪ বিশ্বকাপের স্মৃতি।  এদিন পোগবা অভিযোগ করেন ম্যাচ চলাকালীন তাঁকে পেছন থেকে এসে কামড়ে দেন জার্মানির অ্যান্তোনিও রুডিগার। সঙ্গে সঙ্গে ম্যান ইউ তারকা মাঠে থাকা রেফারিকে বিষয়টি নালিশ করেন। তবে তা খারিজ করেন স্প্যানিশ রেফারি। শুরু হয় বিতর্কের। ম্যাচের পর অবশ্য পোগবা চাননি বিতর্কের জল বেশি দূর গড়াক।

 

POGBA CONTROVERSY

ফর কামড় বিতর্ক ফুটবলে, এবার পোগবা অভিযোগ করলেন রুডিগারের বিরুদ্ধে

দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য অন্য মেজাজে পাওয়া গেল জার্মানিকে। খোলস ছেড়ে ফের চেনা ছন্দে পাওয়া গেল টনি ক্রুজদের। গোলের রাস্তা খুলতে মরিয়া তখন টমাস মুলাররা। এর মধ্যে দুবার অফসাইডের জন্য বাতিল হয় বেঞ্জেমা ও এমবাপের গোল। ৫১ মিনিটে রাবিয়তের শট পোস্টে লাগে। তবে দ্বিতীয়ার্ধে জার্মানি ম্যাচে ফেরার কতটা মরিয়া লড়াই করেছিল , তা একটি পরিসংখ্যানেই স্পষ্ট। এদিনের ম্যাচে জার্মানির বল পজেশন ছিল ৬১ শতাংশ। যার বেশিরভাগটাই ছিল দ্বিতীয়ার্ধে।

হারের পর গ্রুপ পর্বে চাপ বাড়ল জার্মানির উপর। গ্রুপের বাকি দুই ফেভারিট পর্তুগাল ও ফ্রান্স জিতে ৩ পয়েন্ট পেয়ে অনেকটা এগিয়ে গিয়েছে তাঁদের থেকে। সেক্ষেত্রে বাকি ২টি ম্যাচ জিততে না পারলে পরের রাউন্ডে যাওয়া একপ্রকার শেষ হয়ে যাবে জার্মানির কাছে।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla