বিজেপি নেতাকে তৃণমূলে ফেরাতে মন্ত্রীর ফোন! ফোন বন্ধ করে রাখতে বাধ্য হচ্ছেন নেতা

"পরিস্থিতি এমনই, যে মোবাইল বন্ধ রাখতে বাধ্য হচ্ছি। বারংবার ফোন করে বিরক্ত করছেন তৃণমূলের মন্ত্রী ও নেতারা।"

বিজেপি নেতাকে তৃণমূলে ফেরাতে মন্ত্রীর ফোন! ফোন বন্ধ করে রাখতে বাধ্য হচ্ছেন নেতা
ফাইল চিত্র

শিলিগুড়ি: তোলবাজির অভিযোগে এলাকার দাপুটে নেতাকে বহিষ্কার করেছে দল। তাহলে আবার এলাকার সংগঠনের কী হবে? তাই ভরসা সেই প্রাক্তন কাউন্সিলরই, যিনি এই মুহূর্তে বিজেপি নেতা। তাই বিজেপি নেতাকেই দলে ফেরাতে উদ্যোগী হল তৃণমূল (TMC)। বিজেপির এই অভিযোগ ঘিরে উত্তপ্ত শিলিগুড়ির (Siliguri) রাজনীতি।

নিউ জলপাইগুড়ি ইউনিট সভাপতি প্রসেনজিৎ রায়কে রবিবারই দল থেকে বহিষ্কার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তার বিরুদ্ধে ড্রাইপোর্টে ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠায় জামিন অযোগ্য মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ তাকে খুঁজছে। এই পরিস্থিতিতে প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর জয়দিপ নন্দীকে দলে টেনে নিউ জলপাইগিড়ি এলাকার দায়িত্ব দিতে চাইছে তৃণমূল শিবির। অন্তত এমনই অভিযোগ বিজেপির।

সোমবার শিলিগুড়িতে জয়দিপ নন্দীকে পাশে বসিয়ে বিজেপি রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসু বলেন, “শিলিগুড়ির এক মন্ত্রী বারংবার ফোন করে আমাদের নেতাকে উত্ত্যক্ত করছেন। তৃণমূলে যোগ দিতে বলছেন। অনুরোধে কাজ না হওয়ায় হুমকিও দিচ্ছেন। এমনটক চলতে থাকলে আমরা ওই মন্ত্রীর বাড়ির সামনে শান্তিপূর্ণ ধরনা দেব।”

জয়দিপ নন্দীর দাবি, “এলাকায় তোলাবাজির নানা অভিযোগ রয়েছে ফেরার বহিষ্কৃত নেতা প্রসেনজিৎ রায়ের বিরুদ্ধে। তার নানা কাজের প্রতিবাদেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলাম। এখন ওই নেতাকে বহিষ্কারের পর আমায় তৃণমূলে যোগ দিতে চাপ দেওয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি এমনই, যে মোবাইল বন্ধ রাখতে বাধ্য হচ্ছি। বারংবার ফোন করে বিরক্ত করছেন তৃণমূলের মন্ত্রী ও নেতারা।”

আরও পড়ুন: দেব কি বিজেপিতে যাচ্ছেন? নেতার মামাবাড়ি থেকেই ফাঁস আসল খবর

অভিযোগ অবশ্য মানতে চায়নি শাসক দল। পালটা জেলা তৃণমূলের মুখপাত্র বেদব্রত দত্ত বলেন, “আমরা প্রসেনজিৎকে বহিষ্কার করায় বাকিদের বিজেপিতে যোগ দেওয়াতে ওরা চেষ্টা চালাচ্ছে বলেই শুনেছি। আমাদের দলে নেতার অভাব নেই।”