“আপনাদের কাছ থেকে এইটুকু সহযোগিতা প্রার্থনীয়,” ফেসবুকে আর্তি আবির চট্টোপাধ্যায়ের বাবার

লকডাউনে এক থিয়েটারকর্মীর পাশে দাঁড়ালেন ফাল্গুনী চট্টোপাধ্যায়। ফেসবুকে ভিডিয়ো পোস্ট করে আবেদন করলেন যেন মানুষ তাপসের পাশে দাঁড়ায়।

  • TV9 Bangla
  • Published On - 17:04 PM, 23 Feb 2021
“আপনাদের কাছ থেকে এইটুকু সহযোগিতা প্রার্থনীয়,” ফেসবুকে আর্তি আবির চট্টোপাধ্যায়ের বাবার
পুত্রের সঙ্গে ফাল্গুনী চট্টোপাধ্যায়।

সিনেমাহলের আলোগুলো আরও উজ্জ্বল। মঞ্চে তেমনটা নয়। মঞ্চের আলো একটু নিভু নিভু। একটু আলো ছায়ার খেলা। একটু সাদা-কালো রঙের। জাঁকজমকবিহীন।

লাইমলাইটের বিচ্ছুরণও নেই নাটকের সঙ্গে জুড়ে থাকা মানুষগুলোর জীবনে। কোভিড পরবর্তী এ সময়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার প্রচেষ্টায় রয়েছেন তাঁরাও। সেরকমই একজন মানুষের পাশে দাঁড়ালেন আবির চট্টোপাধ্যায়ের বাবা ফাল্গুনী চট্টোপাধ্যায়।

 

আরও পড়ুন নতুন বছরে নয়া পদক্ষেপ, নিজের ব্যবসা শুরু করছেন কঙ্গনা রানাওয়াত

 

নাট্য জগতে ফাল্গুনীবাবুর ‘লোককৃষ্টি’ নাট্যদল এক ভিন্ন ঘরানার নাম। ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে একের পর এক মনে রাখার মতো নাটক পরিবেশনা করে গিয়েছে এই নাট্যদল। দলের নাটকগুলোর আলোকসজ্জার দায়িত্বে রয়েছেন সুদীপ সান্যাল। তবে এক সুদীপ একা নন, আলো অপারেট করেন তাপস ভট্টাচার্যও।

 

 

করোনার এ সময়ে থিয়েটারের কল শোগুলো প্রায় বন্ধ। দলের নিজস্ব উদ্যোগে নাটক অনুষ্ঠিত হলেও তা সংখ্যায় একেবারে নামমাত্র। তা-ই অর্থ উপার্জনের রাস্তা প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছে তাপসের। তাই তাপস এখন বাড়ি-বাড়ি গিয়ে মাসকাবারির দ্রব্য দিয়ে আসছেন। গ্রাহকরা ফোন করে অর্ডার দিচ্ছে এবং তাপস পাইকপাড়া, শ্যামবাজার, বাগবাজার, কুমোরটুলি, হাতিবাগান, বেলগাচিয়া, পাতিপুকুর, লেক টাউন, কালিন্দী, বাঙ্গুর, নাগেরবাজার, এয়ারপোর্ট, বিরাটি, মধ্যমগ্রাম, সল্টলেক, কেষ্টপুর ,বাগুইহাটি, কৈখালী, বাবলাতলা, চিনার পার্ক ,নিউ টাউন, তেঘরিয়া, মুচী বাজার ,মানিকতলার বিভিন্ন এলাকায় পৌঁছে দিচ্ছেন দ্রব্যাদি।

 

 

ফাল্গুনীবাবু, তাপসের এই বিকল্প জীবিকার কথা জানিয়ে ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। আবেদন করেন যেন মানুষ আরেক মানুষের পাশে দাঁড়ান।

ভিডিও পোস্ট করার পর সাড়া পেলেন? কেউ তাপসের উদ্যোগের পাশে দাঁড়াল? ফোনে ফাল্গুনীবাবুকে ধরা হলে তিনি বলেন, “আমার মৌখিকভাবে এর আগে অনেককে বলেছিলাম। ওর পাশে অনেকে দাঁড়িয়ছিল। কিন্তু এই প্রথম সোশ্যাল মিডিয়ায় আমার এই আবেদন রাখলাম। প্রচুর লোকজন শেয়ার করেছে আমার ভিডিও। এবং ফোন করে অর্ডারও দিচ্ছেন মানুষ।”