আশার আলো! জুলাইয়ের মধ্যেই ৫১ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ়, আশ্বাস হর্ষ বর্ধনের

অগস্ট থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে দেশে ২১৬ কোটি ভ্যাকসিন উপলব্ধ হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আশার আলো! জুলাইয়ের মধ্যেই ৫১ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ়, আশ্বাস হর্ষ বর্ধনের
ছবি- পিটিআই

নয়া দিল্লি: ভ্যাকসিন (COVID Vaccine) সঙ্কটে জেরবার গোটা দেশ। করোনা থেকে বাঁচার উপায় টিকা, কিন্তু ভারতে টিকার পর্যাপ্ত জোগান নেই। যার ফলে মুখ থুবড়ে পড়েছে করোনা টিকাকরণের গতি। যে গতিতে ভারত এগোচ্ছিল, সেই গতি বজায় থাকলে অতি দ্রুত টিকা পেয়ে যেতেন দেশের সিংহভাগ মানুষ। একাধিক সমস্যায় শ্লথ হয়েছে ভারতের টিকাকরণ। তবে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন আশ্বাস দিয়েছেন জুলাইয়ের মধ্যেই ৫১.৬ কোটি ডোজ় দেশের মানুষ পেয়ে যাবেন।

শনিবার উত্তর প্রদেশ, গুজরাট, মধ্য প্রদেশ ও অন্ধ্র প্রদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে এ কথাজানিয়েছেন হর্ষ বর্ধন। তিনি বলেন, “চাহিদার কথা মাথায় রেখে দ্রুত বাড়ছে টিকা উৎপাদন। সরাসরি ভ্যাকসিন পৌঁছে যাচ্ছে রাজ্য সরকার বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের হাতে। আমরা জুলাইয়ের শেষের মধ্যেই ৫১.৬ কোটি ডোজ় দিয়ে দিতে পারব।” উক্ত বৈঠকে চার রাজ্য়ের মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও ছিলেন স্বাস্থ্য সচিবরা।

সেখানে হর্ষ বর্ধন আসন্ন একাধিক ভ্যাকসিনের কথাও জানান। দেশে ইতিমধ্যেই অনুমোদন পেয়েছে তিনটি প্রতিষেধক। কোভ্যাক্সিন ও কোভিশিল্ডের পর স্পুটনিক ভিকে অনুমোদন দিয়েছে ডিসিজিআই। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, আগামিদিনে সেরামের নভোভ্যাক্স, ভারত বায়োটেকের ন্যাজাল ভ্যাকসিন, জেনোভার এম-আরএনএ ভ্যাকসিনের মাধ্যমে অগস্ট থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে দেশে ২১৬ কোটি ভ্যাকসিন উপলব্ধ হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

উত্তর প্রদেশ ও গুজরাটে ১৮-৪৫ বছর বয়সী করোনা আক্রান্তদের অধিক মৃত্যু হচ্ছে। গুজরাটে সুস্থ হয়ে ওঠার হারও কম। সে বিষয়ে ছোট ছোট শহরগুলিতে চিকিৎসার ক্ষেত্রে অধিক জোর দেওয়ার কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। উল্লেখ্য, জুলাইয়ের মধ্যে ৫১.৬ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে পারলে দেশের অতিমারি অবস্থা উন্নতি হবে বলে আগেই জানিয়েছেন বিশিষ্ট চিকিৎসক দেবী শেট্টি।

আরও পড়ুন: ‘আমাকেও গ্রেফতার করুন’, পোস্টার কাণ্ডে ঘি ঢাললেন রাহুল